ভেট্টোরির সাথে বিলাসী চুক্তিকে ভিন্নভাবে দেখে বিসিবি

ড্যানিয়েল ভেট্টোরি মুমিনুল হক
Vinkmag ad

বাংলাদেশ দলের স্পিন কোচ ড্যানিয়েল ভেট্টোরির পেছন ব্যয়কৃত অর্থ নিশ্চিতভাবেই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবির) অন্যতম বিলাসী প্রকল্প। রেকর্ড পারিশ্রমিকে চুক্তিবদ্ধ হওয়া ভেট্টোরি বাংলাদেশকে কতটুকু দিতে পেরেছেন তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠা অবধারিত। তবে বোর্ড বলছে বুঝে শুনেই কিউই কিংবদন্তীর পেছনে কাড়ি কাড়ি অর্থ ঢালা হচ্ছে।

২০১৯ সালে ১০০ দিনের চুক্তিতে বাংলাদেশ দলের সাথে কাজ শুরু করেন নিউজিল্যান্ড স্পিন তারকা। ২০২০ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত এই চুক্তিতে দৈনিক সাড়ে তিন হাজার ডলারের বিনিময়ে কাজ করার কথা ছিল তার। তবে ব্যক্তিগত কারণ সহ করোনারকালীন সময় মিলিয়ে খুব বেশি কাজ করার ফুরসত মেলেনি ভেট্টোরির। করোনা পরবর্তী কাজ করতে পারেননি নিজ দেশের কঠোর কোয়ারেন্টাইন নিয়মের কারণে। টাইগারদের সাথে কাজ করে দেশে ফিরলেই থাকতে হত ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে।

বাংলাদেশের কোচিং স্টাফদের মধ্যে রেকর্ড পারিশ্রমিক নেন এই কিউই। কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোর পুরো মাসের বেতনের চাইতে ভেট্টোরির পাঁচ দিনের পারিশ্রমিকই বেশি। লম্বা সময় পর ভেট্টোরির সান্নিধ্য পেতে চলেছে টাইগার স্পিনাররা। তবেও সেটিও স্পিন বিরুদ্ধ কন্ডিশন ভেট্টোরির নিজের দেশ নিউজিল্যান্ডে।

টাইগারদের নিউজিল্যান্ড সফরে ২০-২২ দিন কাজ করবে ভেট্টোরি। যেখানে তার পেছনে বিসিবিকে খরচ করতে হবে অর্ধ কোটি টাকা। ভেট্টোরির কাছ থেকে এখনো পর্যন্ত বাংলাদেশ কতটুকু আদায় করতে পেরেছে তা নিয়ে যেমন আছে প্রশ্ন, তেমনি এমন বিলাসী চুক্তির যৌক্তিকতাও খোঁজেন অনেকে।

বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী সুজন বলছেন বোর্ড নির্দিষ্ট পরিকল্পনা থেকেই ভেট্টোরিকে নিয়োগ দিয়েছে। ভেট্টোরির মত একজন কিংবদন্তী স্পিনারের ড্রেসিং রুম ও বাংলাদেশ দলের সাথে থাকাটা ভিন্ন মাত্রা যোগ করে বলে মত বিসিবি প্রধান নির্বাহীর।

আজ (৩ মার্চ) মিরপুরে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, ‘ভেট্টোরি কিন্তু অনেকদিন ধরে বাংলাদেশ দলের সাথে সম্পৃক্ত আছেন এবং সার্ভিস দিচ্ছেন। কিন্তু করোণার কারণে হয়তো উনার মুভমেন্টে সমস্যা হচ্ছে। মূল বিষয় হল উনি বাংলাদেশ দলের সাথে যেখানেই যোগ দেন না কেন দেশে ফিরে তাকে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। সেক্ষেত্রে এটাই উনার জন্য মূল চ্যালেঞ্জ দেশে ফিরে আবার ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন। উনি বাংলাদেশ দলের নিউজিল্যান্ড সফরেই যুক্ত হচ্ছেন।’

‘উনার মত একজন কিংবদন্তী ক্রিকেটারের ক্ষেত্রে আমরা সেগুলো অন্যভাবে দেখছি। বোর্ড মনে করে যে ভেট্টোরির মত একজন কিংবদন্তী ক্রিকেটার বাংলাদেশ দলের সাথে থাকা কিংবা ড্রেসিং রুম শেয়ার করাটা কিন্তু আলাদা ভ্যালু ক্যারি করে। উনার মত একজন সাবেক অধিনায়ক, বিশেষ করে নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনে উনার অভিজ্ঞতা আমাদের কাছে অনেক মূল্যবান। সুতরাং বোর্ড যেটা করেছে সবকিছু চিন্তাভাবনা করেই করেছে। দিনের হিসেবে উনি ২০-২২ দিন বাংলাদেশ দলের সাথে থাকবেন।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

এবার শ্রীলঙ্কা সফরে যেমন হবে টাইগারদের কোয়ারেন্টাইন

Read Next

আবুধাবি টেস্টে ২ দিনেই আফগানদের হারিয়ে দিল জিম্বাবুয়ে

Total
7
Share