যেকারণে অনুশীলনের সুযোগ পেতে বাংলাদেশের বাড়তি একদিনের অপেক্ষা

যেকারণে অনুশীলনের সুযোগ পেতে বাংলাদেশের বাড়তি একদিনের অপেক্ষা
Vinkmag ad

নিউজিল্যান্ড সফরে বাংলাদেশ দলকে মানতে হচ্ছে কড়া কোয়ারেন্টাইন নিয়ম। ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনের প্রথম এক সপ্তাহ কোন অনুশীলনের সুযোগ পাচ্ছে না টাইগাররা। পরের এক সপ্তাহ ছোট ছোট গ্রুপে করতে পারবে অনুশীলন। কিন্তু নিউজিল্যান্ড কর্তৃপক্ষের হিসেবের সাথে বাংলাদেশ দলের হিসেবে না মিলায় আরও একদিন বেশি অপেক্ষা করতে হচ্ছে আউটডোর অনুশীলনের জন্য।

কোয়ারেন্টাইনের প্রথম তিনদিন পুরোপুরি রুমে আটকা ছিল বাংলাদেশ দল। চতুর্থ দিন থেকে দুই বেলা বিভিন্ন গ্রুপ হয়ে ৩০-৪০ মিনিট হাঁটার সুযোগ পাচ্ছে তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিমরা। রুমে হালকা কিছু ব্যায়ামও সারছেন টাইগাররা, কিন্তু সব ছাপিয়ে আউটডোর অনুশীলনের জন্যই মুখিয়ে আছেন তারা।

দলের সাথে যাওয়া বিসিবি পরিচালক ও মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস জানান ৪ তারিখ থেকে ৯ তারিখ পর্যন্ত ছোট ছোট গ্রুপে অনুশীলন করবে বাংলাদেশ। বর্তমানে ক্রাইস্টচার্চে অবস্থান করা টাইগাররা ১০ মার্চ থেকে কুইন্সটাউনে শুরু করবে পাঁচ দিনের অনুশীলন ক্যাম্প।

হিসেব অমিলের কারণে ২ মার্চের পরিবর্তে ৪ মার্চ থেকে অনুশীলনের সুযোগ পাওয়া প্রসঙ্গে এক ভিডিও বার্তায় জালাল ইউনুস বলেন, ‘এখানে আমাদের ১৪ দিনের পুরোপুরি কোয়ারেন্টাইন মেনে চলতে হচ্ছে। তার মধ্যে প্রথম ৭ দিন… মানে ৪ তারিখে আমরা অনুশীলনে যেতে পারবো, গ্রুপ করে দিয়েছে। আগে ছিল আমরা ২ তারিখে বের হওয়ার কথা ছিল।’

‘এখন আমরা ৪ তারিখে অনুশীলনে যাবো। কারণ যেদিন আমরা পৌঁছেছি ২৪ ফেব্রুয়ারি সেদিন তারা ধরেছে শূন্য দিন। ২৫ ফেব্রুয়ারি থেকে তারা প্রথম দিন ধরেছে। যে কারণে ৮ দিন পর আমরা মাঠে নামছি। নিঃসন্দেহে এটা একটা ইউনিক অভিজ্ঞতা।’

কুইন্সটাউনে পুরোদস্তুর অনুশীলন ক্যাম্প প্রসঙ্গে তিনি আরও যোগ করেন, ‘সবাই মুখিয়ে আছে। রুমে হালকা কিছু শরীর চর্চা করছে। কিন্তু তারা চাচ্ছে বাইরে গিয়ে নক করুক, ওয়ার্ম আপ করুক, অনুশীলন করুক, জিমে যাবে। যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমার মনে হয় ৪ তারিখ থেকে ৯ তারিখ পর্যন্ত যখন আমরা বাইরে যাবো তখনো অনুশীলনের কিছু সুবিধা থাকবে। যেটা আমাদের মূল ক্যাম্প সেটাতো কুইন্সটাউনে। সেটা ১০ তারিখ থেকে আমরা শুরু করবো।’

এদিকে এখনো পর্যন্ত কোভিড প্রটোকল ঠিকঠাক মেনে চলায় বাংলাদেশ দলের উপর সন্তুষ্ট নিউজিল্যান্ড সরকার।

জালাল ইউনুস জানান, ‘সবাইকে সতর্ক করে দেওয়া হচ্ছে যেন কোনভাবেই মাস্ক ছাড়া করিডোরে বের না হয়। এমনকি খাওয়া যখন গ্রহণ করি আমরা দরজার কাছ থেকে সেটাও যেন মাস্ক পরে তবেই নিই। মাস্ক ছাড়া এলাউ না। তাই তাদের বার বার সতর্ক করা হচ্ছে যেন মাস্ক ছাড়া করিডোর থেকে খাবার না নেয়।’

‘সাব্বির (দলের ম্যানেজার) বলে দিয়েছে, আমিও বলে দিয়েছি সবাইকে। আর সবাই প্রটোকল মেনেই চলছে। নিউজিল্যান্ড সরকারের তরফ থেকে সাব্বিরদের একটা মিটিং ছিল আজ সকালে। তারা খুবই সন্তুষ্ট যে আমরা কোন প্রটোকল ভাঙিনি।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

নিউজিল্যান্ডে ‘ঘুম’ যখন টাইগারদের সমস্যা

Read Next

যতটা কঠিন ভেবেছিলেন ততটা কঠিন লাগছেনা তামিমের কাছে

Total
1
Share