শুরুতে ভয় পাওয়া তামিম উৎসাহী করছেন বাকিদের

শুরুতে ভয় পাওয়া তামিম উৎসাহী করছেন বাকিদের

করোনা ভ্যাকসিন নেওয়ার তালিকায় যোগ হল জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের নামও। আসন্ন নিউজিল্যান্ড সফর সামনে রেখে বিবেচনায় থাকা ক্রিকেটাররা আজ (১৮ ফেব্রুয়ারি) করোনা ভ্যাকসিন নিয়েছেন রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে। জাতীয় দলের ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল ভ্যাকসিন নেওয়া শেষে জানালেন খুব সহজেই সম্পন্ন হয়েছে পুরো প্রক্রিয়া। নিজে নেওয়ার পাশাপাশি উৎসাহী করছেন সাধারণ জনগণকেও।

শুরুতে অনাগ্রহ দেখালেও জাতীয় দলের বেশিরভাগ ক্রিকেটারই গতকাল পর্যন্ত বেশ সাড়া দিয়েছে ভ্যাকসিন নেওয়ার আগ্রহ দেখিয়ে। সরকারি নিয়মানুসারে ৪০ বছরের বেশি বয়সীদেরই করোনা ভ্যাকসিন প্রদানের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছিল। তবে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের বিশেষ ব্যবস্থাপনায় সরকারিভাবে ক্রিকেটারদেরও ভ্যাকসিনের আওতায় আনা হয়।

আজ (১৮ ফেব্রুয়ারি) কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভ্যাকসিন নেন তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মেহেদি হাসান মিরাজ ও নাসুম আহমেদ। বাকিরা ভ্যাকসিন নিবেন আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

ভ্যাকসিন নেওয়া শেষে সংবাদ মাধ্যমকে তামিম ইকবাল জানান পুরো প্রক্রিয়া ছিল মসৃণ। নিজের শরীরের কথা চিন্তা করেই ভ্যাকসিন নিয়ে নেওয়া উচিত বলে মনে করেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। শুরুতে ভয় পেলেও ভ্যাকসিন সম্পর্কে স্বচ্ছ দাহ্রণা নেওয়ার পর সহজ হয়েছে বলেও জানান তামিম।

টাইগারদের ওয়ানডে অধিনায়ক বলেন, ‘আসলে সাধারণ মানুষ না, আমার কাছে মনে হয় যে এই পুরা জিনিসটাই যেভাবে বাংলাদেশ সরকার করছে এটা আসলে উৎসাহিত করার মতোই। আসলে আমরা বিভিন্ন ধরনের নেতিবাচক কথাগুলো সবসময় তুলে ধরি কিন্তু এই একটা জিনিস আমার কাছে মনে হয় যে ইতিবাচক জিনিসটা আমাদের শেয়ার করা উচিত। এত সুন্দরভাবে জিনিসটা হচ্ছে। জাস্ট আমরা জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা এসেছে বলে দেখে যে খুব ভালেভাবে হয়ে গেছে তা না।’

‘আমার পরিবারের মানুষজন অনেকে নিয়েছে, সবাই বেশ ভালোভাবেই নিয়েছে। জিনিসটা তো আসলে এখন প্রয়োজনীয় হয়ে গেছে এটা নেয়ার। কারণ আপনার নিজের শরীরের জন্য। এটা অনেক উৎসাহিত করার মতো একটা জিনিস। যারা এটা মধ্যে সম্পৃক্ত আছেন তাদেরকে আমি আমার তরফ থেকে স্যালুট দেবো। এটি দারুণ একটি অভিজ্ঞতা। শুধু আমার জন্য নয়, আমার যারা বন্ধু-বান্ধব আছে, পরিবারের সদস্য যারা নিজে থেকে নিবন্ধন করে গেছে এবং নিয়েছে তাদেরও পুরা প্রক্রিয়াটা খুবই ভালো।’

‘ভয় অবশ্যই ছিল, এটা অস্বীকার করব না। সবার মনেই থাকতে পারে। জিনিসটা নিয়ে যদি একটু জানা যায় হয়তো জিনিসটা নিয়ে আপনি যখন কেউ বোঝাবেন তখন আপনি জিনিসটা বুঝতে পারবেন। আমরা ভাগ্যবান যে আমরা এই জিনিসটা পাচ্ছি। বিভিন্ন, আমরা যে প্রথম সারির দেশ বলি অনেক দেশে কিন্তু এই পরিমাণ ভ্যাক্সিনেশন দেয়াই হয়নি সেখানে আমরা মোটামুটি ১২ নম্বর দেশ।’

এদিকে ক্রিকেটারদের ভ্যাকসিন নেওয়া কার্যক্রম দেখভালে উপস্থিত ছিলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনও। পাপন জানান ক্রিকেটারদের সাথে দেশি-বিদেশি কোচিং স্টাফরাও নিচ্ছেন ভ্যাকসিন। বিদেশিদের ক্ষেত্রে আইডি কার্ড জটিলতা দেখা দিলেও বিসিবির তত্বাবধানে সমাধান হয়েছে সেটিরও।

পাপন বলেন, ‘আমরা আজকে এখানে এসেছিলাম বেসিকালি নিউজিল্যান্ড সফরের জন্য যারা প্রায়োরিটিতে আছে তারা ও কোচিং স্টাফেরা টিকা নিচ্ছে। তাদের জন্যই আসা। অন্য কয়েকজন ক্রিকেটার ও আছে। আমি নিজে যাদের দেখে গিয়েছি তারা হল তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, তাসকিন আহমেদ, মেহেদী হাসান মিরাজ। গতকাল আপনারা জানেন আমি অন্যদের সাথেও বসেছিলাম, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ওরাও সকলে নিচ্ছে টিকা। সেব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই, আজকের মধ্যেই আমার ধারণা যে সবাই নিয়ে নিবে।’

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

‘নিউজিল্যান্ডগামী দল, কোচিং স্টাফ ও বিসিবির জালাল ইউনুস সাহেব যাচ্ছেন দলের সাথে, উনিও টিকা নিয়েছেন। দেশি-বিদেশি কোচিং স্টাফের সবাই। বিদেশিদের সমস্যা হচ্ছিল ওদের এনআইডি নেই বলে। তবে সরকার ওদের জন্য একটা বিশেষ ব্যবস্থা করে দিয়েছে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বাবরের বিপক্ষে বল করতে মুখিয়ে আছেন রাশিদ খান

Read Next

নিলামে ডাকা হয়নি মাহমুদউল্লাহ-মুশফিক-সাইফউদ্দিনের নাম

Total
1
Share