টিম ম্যানেজমেন্টকে ৫ টা অপশন দিয়েছিলেন বিসিবি সভাপতি

টিম ম্যানেজমেন্টকে ৫ টা অপশন দিয়েছিলেন বিসিবি সভাপতি

টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের ব্যর্থতা যেন থামছেই না। ঘরের মাঠে খর্ব শক্তির ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছেও হতে হল ধবল ধোলাই। চট্টগ্রামের পর ঢাকা টেস্টেও হারের পর বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলছেন তার সাথে করা আলোচনার কিছুই মিলছেনা ম্যাচে। বিশেষ করে দল নির্বাচন, একাদশ কিংবা অন্য কোন পরিকল্পনা।

চট্টগ্রাম টেস্টে ছিটকে যাওয়া সাকিব আল হাসানের পরিবর্তে দলে ভেড়ানো সৌম্য সরকার ছাড়াও বেশ কিছু বিকল্প দিয়েছিলেন পাপন। কিন্তু সেখানে সৌম্যকেই বেছে নেয় টিম ম্যানেজমেন্ট। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে চাওয়া হলেও রিয়াদ নিজেই জানিয়েছেন তার পিঠের ব্যাথার কথা। তবে রিয়াদ ছাড়াও বিসিবি সভাপতির দেওয়া অন্য বিকল্পও বেছে নেয়নি টিম ম্যানেজমেন্ট।

সাকিবের বিকল্প হিসেবে দলে জায়গা পাওয়া সৌম্য ব্যাট হাতে ওপেন করতে নেমে প্রথম ইনিংসে খালি হাতে ফেরার পর দ্বিতীয় ইনিংসে করেছেন ১৩ রান। বল হাতে শিকার মাত্র এক উইকেট। আজ (১৪ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা টেস্টে বাংলাদেশের হারের পর গণমাধ্যমের মুখোমুখি হন নাজমুল হাসান পাপন।

সাকিবের বিকল্প হিসেবে পরিপূর্ণ অলরাউন্ডার কাউকে না নিয়ে সৌম্যকে বেছে নেওয়া প্রসঙ্গে পাপন বলেন, ‘যখন শুনলাম সাকিব ইনজুরিতে, তখন একটা রিপ্লেসমেন্ট লাগবে। তখন এক এক করে অনেক নাম বলা হয়েছে। ওখানে আমার সামনে আকরাম ছিল, নান্নু ছিল, সুজন ছিল, সুমন ছিল। আমি ওদেরকে অপশন দিয়েছিলাম চারটা না পাঁচটা। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ নাম্বার ওয়ান, তারপর মোসাদ্দেক, শেখ মেহেদী, এবং ফোর্থ অপশন ছিল সৌম্য। তারা সৌম্যকে বাছাই করেছে।’

‘আমি ব্যক্তিগত ভাবে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে কল দিয়েছিলাম। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বললো তাঁর ব্যাক পেইন। সাথে সাথে বললাম তাড়াতাড়ি মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের খোঁজ করো, খোঁজ করলো। খোঁজ করে বললো মোসাদ্দেক তো ঢাকায়ই নাই। আমরা চেষ্টা করেছি। ওদের পছন্দ একটাই। বাকি কারো নাম বলে নাই।’

টেস্ট সিরিজে ভরাডুবির পর পাপন বলছেন কোথাও সমস্যা হচ্ছে বুঝতে পারছেন নিজেই। বিশেষ করে পেসারদের সুযোগ দেওয়ার যে পরিকল্পনা তার প্রয়োগ না হওয়াকে বেশ ভালোভাবে আমলে নিয়েছেন দেশের ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থার প্রধান।

বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘সমস্যা সব জায়গায় আছে, এটাতো স্বীকারই করে নিচ্ছি। দুইটা টেস্ট সিরিজ দেখে বুঝেছি সমস্যা তো আছেই। একটা দেখে কিছু বলতে পারিনি তেমন। এবার তো আপনাদেরকে বললাম। আমার কাছে মনে হয়েছে , আমাদের টোটাল যে প্ল্যান। একটা টিম সম্পর্কে।’

‘একটা ব্যাপারে আমাদের কোনো সন্দেহ নাই যে আমাদের যে বোলাররা আছে তাদের মধ্যে আমাদের পেসাররা স্পিনারদের চেয়ে ভালো। কোনো সন্দেহ নাই। হাতে গোনা কয়টা স্পিনার আছে আমাদের। সাকিবকে আপনি বাদ দেন। এ ছাড়া স্পিনার কয়টা। দুই-তিন জন কিন্তু, আমাদের অনেকগুলো ভালো পেসার আছে।’

‘পরিবর্তন (স্কোয়াডে) তো আনা হয়। খেলানো তো হয় না। এমনেও তো পাঁচটা পেসার আছে। কেন খেলছে না? চট্টগ্রামে খেলার কথা ছিল, খেলে নাই। এখানেও (মিরপুরে) অন্তত দুইজন খেলবে আমাকে কনফার্ম করেছে। কিন্তু খেলে নাই কেন? আমাকে তো বলা হচ্ছে খেলবে। পরে তো দেখি নামছে না। ক্যাপ্টেন আর কোচ (ডিসিশন মেকার) এখানে আর আমরা কেউ নাই তো আর। (জবাবদিহি) চাইবো সবার কাছে অবশ্যই। শুধু ক্যাপ্টেন আর কোচ না। সবার কাছে চাইবো।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

চেন্নাই টেস্টের নাটাই ভারতের হাতে

Read Next

‘আমাকে আগে জানতে হবে এখানে কি ঘটছে’

Total
5
Share