‘সমাধান খুব সহজ, সমাধান হবে’

নাজমুল হাসান পাপন বিসিবি

চট্টগ্রামের পর ঢাকা টেস্টেও হেরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে ধবল ধোলাই হল বাংলাদেশ। কিছুটা দুর্বল দল হওয়া সত্বেও ক্যারিবিয়ায়নদের চেপে ধরার পরিবর্তে উল্টো নিজেরাই পড়েছে লজ্জায়। স্পিন নির্ভর উইকেট ও একাদশ সাজিয়ে সেই ফাঁদে পড়ে মুমিনুল হকের দলই। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলছেন পরিকল্পনায় অমিলের কথা। তবে দেশের ক্রিকেটে সৃষ্ট হওয়া এই সমস্যার সমাধান আছে বলেও জানান বিসিবি সভাপতি।

চট্টগ্রাম টেস্টে চারদিন চালকের আসনে থেকেও হেরেছে বাংলাদেশ। রেকর্ড গড়ে বাংলাদেশকে হতাশা উপহার দেওয়া ম্যাচে পঞ্চম দিনেও টাইগারদের স্পিন সাবলীলভাবে খেলেছে ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যানরা। সিরিজ বাঁচানো ম্যাচে ঢাকা টেস্টেও একই পরিণতি বাংলাদশের। যে ম্যাচে ব্যাট হাতে ব্যর্থ ব্যাটসম্যানরাও।

ঘরের মাঠে স্পিন নির্ভর উইকেট তৈরি করে ফাঁদে পড়া বাংলাদেশের জন্য নতুন কিছু না। এর আগে আফগানিস্তানের বিপক্ষেও বড় ব্যবধানে হারের লজ্জায় পড়তে হয়েছে। স্পিন নির্ভর উইকেটের কারণে পেসারদের সুযোগ না পাওয়াটাকে বড় ইস্যু হিসেবে দেখছেন দেশের ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থার প্রধান।

প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো দায়িত্ব নেওয়ার পর পেসার খেলানোর ব্যাপারে নিজের চিন্তা ভাবনা পরিষ্কার করেন। বিশেষ করে বিদেশের মাটিতে ভালো করতে পেসারদের ঘরের মাঠেই খেলিয়ে অভ্যস্ত করার পরিকল্পনা ছিল তার। কিন্তু ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টেও প্রয়োগ হয়নি এই পরিকল্পনা। দুই টেস্টেই খেলেছে একজন করে স্বীকৃত পেসার।

আজ (১৪ ফেব্রুয়ারি) মিরপুরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হারের পর গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে নাজমুল হাসান পাপন নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন।

পাপন বলেন, ‘একটা জিনিস হঠাৎ করে দেখছি আফগানিস্তান সিরিজ থেকে শুরু হয়েছে স্পিন উইকেট, স্পিন উইকেট, স্পিন উইকেট। আমাদের একটা সময় ছিল স্পিনে আমরা মোটামুটি ভালো ছিলাম কারণ আমাদের পেস ভালো ছিল না। আমাদের পেস বোলার ছিল না এবং গত তিনটা বছর ধরে আমরা ধারাবাহিকভাবে ভাবছি কিভাবে পেস বান্ধব উইকেট বানানো যায়। খুব বেশি উন্নতি করেছি তা না তবে আমরা অনেক উন্নতি করেছি ঘরোয়া ক্রিকেটে।’

‘সেটার ফলশ্রুতিতে আপনি যদি দেখেন আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেটে বা যে টুর্নামেন্টগুলা করলাম আমাদের পেসাররা ভালো বল করেছে। আমাদের এখন অনেকগুলা পেসার রয়েছে। এতগুলো পেসার থাকতে আমি পেসার খেলাবো না। ৫জনকে নিয়ে এখানে অলরাউন্ডারের জায়গাটা বন্ধ করে দিয়েছে। এখানে একটা অলরাউন্ডার নেয়ার জায়গা বন্ধ করে দিয়ে ৫ জন পেসার নিলাম, কিন্তু খেলাচ্ছি না। তাহলে নেই কেন আমরা। সো আপনি যদি দল নির্বাচন বলেন আমার এটা বলার কিছু নাই।’

লম্বা সময় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ক্রিকেটার দলে থাকার পরেও ব্যর্থ হওয়ায় হতাশ পাপন, ‘একটা অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান, বোলার, আমাদের বাংলাদেশর টপ যারা নামকরা বিশ্বমানের তাদেরকে এখন বলে দিতে হবে টেস্টে কিভাবে ব্যাটিং করতে হবে? এগুলো তো বলে দেয়ার কথা না।’

তবে এই সমস্যার সহজ সমাধান আছে বলেও জানান বিসিবি সভাপতি, ‘সমাধান খুবই সহজ, সমাধান হবে। এইভাবে চলতে দেয়া যায় না। আমি আফগানিস্তানের পরে বেশি কিছু বলতে চাই নাই কিন্তু আজকে আপনাদেরকে আমি বললাম হয় এটা পরিবর্তন করতে হবে, অবশ্যই পরিবর্তন করতে হবে। যেভাবেই হোক…’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বসন্ত এসেছে, বসন্ত আসেনি!

Read Next

চেন্নাই টেস্টের নাটাই ভারতের হাতে

Total
4
Share