বসন্ত এসেছে, বসন্ত আসেনি!

বসন্ত এসেছে, বসন্ত আসেনি!

বাংলা ঋতু বিবেচনায় মিরপুর টেস্ট গড়িয়েছে দুইটি ভিন্ন ঋতুতে। প্রথম তিনদিন শীতকাল হলেও আজ (১৪ ফেব্রুয়ারি) চতুর্থ দিন শুরু হল বসন্ত কাল। ফাল্গুনের প্রথম দিনে আবার বিশ্ব ভালোবাসা দিবসও। ক্ষণে ক্ষণে ম্যাচের মোড় বদলালেও চতুর্থ দিন শেষে হতাশাই সঙ্গী বাংলাদেশের। ভালোবাসা কিংবা বসন্তের উৎসব কোনটাই যে আজ ছুঁতে পারবে না টাইগার ক্রিকেটারদের। একদিন আগেই ম্যাচ হারের সাথে যোগ হল তুলনামূলক দুর্বল ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে ধবল ধোলাই হওয়ার লজ্জা।

জয়ের জন্য শেষ উইকেটে বাংলাদেশের প্রয়োজন ৪৩। আবু জায়েদ রাহিকে নিয়ে অতিরিক্ত ৩০ মিনিটের খেলায় মেহেদী হাসান মিরাজ যেন অসাধ্য সাধনে সবটুকু নিংড়ে দিলেন। তবে শেষ পর্যন্ত জয় থেকে ১৭ রান দূরে থেকেই থামতে হয় তাকে, থামতে হয় বাংলাদেশকে।

জোমেল ওয়ারিক্যানের বলে স্লিপে মিরাজের ক্যাচ দিয়ে রাখিম কর্নওয়ালের ভোঁ দৌড়। সিরিজে আন্ডার ডগ হয়ে মাঠে নেমেও ঘরের মাঠে বাংলাদেশকে যে ২-০ ব্যবধানে হোয়াইট ওয়াশ করলো ক্যারিবিয়ানরা। ২০১২ মৌসুমের পর ঘরের মাঠে এই প্রথম টেস্ট সিরিজে হোয়াইট ওয়াশ হল বাংলাদেশ।

২৩১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ৩ উইকেটে ৭৮ রান তুলে চা বিরতিতে যায় বাংলাদেশ। তামিম ইকবাল দ্রুত গতিতে ফিফটি করে ফিরলেও ব্যর্থ হয়েছেন সৌম্য সরকার ও নাজমুল হোসেন শান্ত। ক্যারিবিয়ায়নদের জন্য স্পিন নির্ভর পিচ ও একাদশ তৈরি করে সেই ফাঁদে নিজেরাই পড়লো বাংলাদেশ।

লক্ষ্য তাড়ায় শুরু থেকেই রান তোলার ব্যাপারে সচেষ্ট ছিলেন তামিম, ৪৪ বলে তুলে নেন ক্যারিয়ারের ২৮ তম টেস্ট ফিফটিও। তবে জমে যাওয়া তামিম-সৌম্য উদ্বোধনী জুটি ভাঙতে এগিয়ে আসেন অধিনায়ক ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট নিজে। খন্ডকালীন বোলার হিসেবে হাত ঘুরিয়ে সৌম্যকে (১৩) ফিরিয়ে ভাঙেন ৫৯ রানের জুটি। তামিমও ফিরেছেন ব্র্যাথওয়েটের বলে ঠিক ৫০ রানেই। তিন নম্বরে নেমে আরেক দফা ব্যর্থ শান্ত, বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যানকে শিকার করেন কর্নওয়াল।

বাংলাদেশ ইনিংসের প্রায় ৫০ শতাংশ ওভার একাই করে যান এই অফ স্পিনার। অন্য পাশে সঙ্গী বদলালেও টানা বল করেছেন ম্যাচে সফরকারীদের সবচেয়ে সফল এই বোলার।

চা বিরতির পর নিয়মিত বিরতিতেই উইকেট হারিয়েছে স্বাগতিকরা। তামিম-সৌম্যের উদ্বোধনী জুটিতে ৫৯ রানের পরও ১১৫ রানে ৫ উইকেট হারায় মুমিনুল হকের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ। এরপর আবারও মেহেদী হাসান মিরাজ ও লিটন দাসের জুটিতে স্বপ্ন দেখে টাইগাররা। ৩২ রানের জুটি ভাঙে কর্নওয়ালের বলে লিটন বিদায় নিলে। ৩৫ বলে ২২ রান করে কর্নওয়ালের তৃতীয় শিকার লিটন।

এরপরের লড়াই, গল্পটা কেবলই মেহেদি হাসান মিরাজের। ৮ম উইকেট জুটিতে তাইজুলকে নিয়ে ৫.৫ ওভারের জুটিতে যোগ করেন ১০ রান। ততক্ষণে বাংলাদেশের পরাজয়ের চাইতে ম্যাচ পঞ্চম দিনে গড়াবে কিনা তা নিয়েই শুরু আলোচনা। কর্নওয়ালের চতুর্থ শিকার হয়ে তাইজুল ফিরেছেন ৮ রান করে।

তাইজুল বিদায়ের সময় দলের জয়ের জন্য প্রয়োজন ৬৮ রান। ক্রিজে একমাত্র স্বীকৃত ব্যাটসম্যান মিরাজ। ফলে জয়টা বাংলাদেশের জন্য তখনো অসম্ভব কিছুই। কিন্তু সিরিজে ব্যাটসম্যান মিরাজের প্রত্যাবর্তন রূপটা আবারো দেখা গেল। নাইম হাসানকে নিয়ে ২২ মিনিট কাটিয়ে যোগ করে ফেলেন ২৫ রান। মিরাজ-নাইমের জুটি ভাঙতে আবারও আক্রমণে অধিনায়ক ব্র্যাথওয়েট।

নাইমকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে জয়ের পথে আরও এক ধাপ যেন এগিয়ে গেলেন। নাইম যখন বিদায় নেন তখন দিনের খেলা শেষ হওয়ার নির্ধারিত সময় শেষ। কিন্তু শেষ উইকেট বলেই আরও ৩০ মিনিট বাড়তি খেলানোর সিদ্ধান্ত আম্পায়ারের। শেষ ব্যাটসম্যান আবু জায়েদ রাহিকে নিয়ে এই আধাঘন্টার ২১ মিনিট ক্রিজে কাটাতে পেরেছেন মিরাজ। যেখানে ছিল রোমাঞ্চ, শঙ্কা ও শেষ পর্যন্ত হতাশা।

ম্যাচ জিততে প্রয়োজন ৪৩ এমন সমীকরণে রাহিকে এক পাশে রেখে কর্নওয়াল, ওয়ারিক্যানদের বাউন্ডারি হাঁকিয়ে এ দিনই যেন ম্যাচ বের করতে চেয়েছেন মিরাজ। ৭৭ মিনিট ক্রিজে টিকে ৫৬ বলে ৩ চার ২ ছক্কায় খেলেন ৩১ রানের ইনিংস। যেভাবে খেলছিলেন তাতে জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ১৮ রান তুলে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিবেন এমনটাই মনে হচ্ছিল। কিন্তু জোমেল ওয়ারিক্যানের বলে কর্নওয়ালকে ক্যাচ দিয়ে যখন ক্রিজে দাঁড়িয়ে ততক্ষণে ক্যারিবিয়ায়ন শিবিরে উৎসবের আমেজ। ভালোবাসা দিবসে বাংলাদেশের কাছ থেকে পেলেন সেরা উপহার, বাংলা ঋতু বসন্তের কিছুটা ছোঁয়া গায়ে লাগলো তাদেরও।

দিনের শুরুটা অবশ্য বাংলাদেশেরই ছিল। ৩ উইকেটে ৪১ রান নিয়ে চতুর্থ দিন শুরু করা ওয়েস্ট ইন্ডিজ লাঞ্চের আগে হারায় ৩ উইকেট। লাঞ্চের পর তাইজুল-নাইমের ঘূর্ণিতে অল আউট হয় ১১৭ রানেই। ১১৩ রানের লিড নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করা ওয়েস্ট ইন্ডিজ লিড পায় ২৩০ রানের। জয়ের জন্য বাংলাদেশকে গড়তে হত মিরপুরে সর্বোচ্চ রান তাড়া করার রেকর্ড।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

বাংলাদেশকে ধবলধোলাই করল ওয়েস্ট ইন্ডিজ

Read Next

‘সমাধান খুব সহজ, সমাধান হবে’

Total
3
Share