নিজেদের ব্যাটিংয়ের সাথে উইকেটকেও দুষলেন তামিম

নিজেদের ব্যাটিংয়ের সাথে উইকেটকেও দুষলেন তামিম

হাতে ৬ উইকেট নিয়ে ৩০৪ রানে পিছিয়ে থাকা বাংলাদেশ ঢাকা টেস্ট জিততে করতে হবে অসাধারণ কিছু। আপাত দৃষ্টিতে ম্যাচ বাঁচানোই হয়তো মূল লক্ষ্য হবে বাংলাদেশের। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ৪০৯ রানের বিপরীতে ৪ উইকেটে ১০৫ রানে দ্বিতীয় দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ। ক্রিজে থিতু হয়েও ইনিংস লম্বা করতে পারেননি বাংলাদেশ ওপেনার তামিম ইকবাল। বাংলাদেশের বাজে দিনে উইকেটের সাথে ব্যাটসম্যানদেরও দুষলেন তামিম।

দ্বিতীয় দিন শেষ সেশনের পুরোটাই ব্যাটিং করার সুযোগ পায় বাংলাদেশ। যেখানে ১ রানে ১ম ও ১১ রানে হারায় ২য় উইকেট। পরে তামিম-মুমিনুল ৫৮ রানের জুটি গড়েও ইনিংস লম্বা করতে পারেননি। ২ রানের ব্যবধানে ফিরেছেন দুজনেই। ৭১ রানে ৪ উইকেট হারানো বাংলাদেশকে পথ দেখাচ্ছে মুশফিক-মিঠুনের অবিচ্ছেদ্য ৩৪ রানের জুটি।

বাংলাদেশের ব্যাটিং ইনিংসের সময় উইকেট ভালো থাকা সত্বেও ব্যাটসম্যানরা নিজেদের কাজ ঠিকভাবে করতে পারেনি। ক্যারিবিয়ান বোলারদের উইকেট উপহার দিয়ে দলের বিপর্যয় টেনে আনেন। তবে ৫২ বলে ৪৪ রান করে আউট হওয়া তামিম ছিলেন দারুণ ছন্দে। দিন শেষে তামিম জানিয়েছেন নিজেদের পিছিয়ে পড়ার কারণ উইকেটের সাথে ব্যাটসম্যানদের ভুল।

তামিম বলেন, ‘উইকেট অসম্ভব ভালো ছিল। আমরা যখন ব্যাটিংয়ে নামি তখনও অনেক ভাল ছিল। তেমন কিছু হচ্ছিল না উইকেটে। আমার কাছে মনে হয়, যে চারটা উইকেট পড়েছে, কোনোটা যে খুব ভালো বলে বা উইকেটের কারণে পড়েছে, তা নয়। আপনি যদি দেখেন, চারটাই ব্যাটসম্যানদের এরোর ছিল দেখে পড়েছে।’

‘আজকে যদি আমাদের ২টা উইকেট কম পড়ত এবং এ রানটা থাকত, তাহলে আমাদের অবস্থান আরও ভালো হতো। যেহেতু ৪টা উইকেট পড়ে গেছে, তাই বলতেই হবে ওরা টপে। বাট আমরা যদি কালকে বড় পার্টনারশিপ করতে পারি, ১০০-১৫০ রানের জুটি গড়তে পারি, তাহলে আবার ম্যাচে ফিরতে পারব।’ ম্যাচে ফিরতে কি করতে হবে জানাতে গিয়ে এমনটাই বলেন তামিম।

বাংলাদেশ মূলত পিছিয়ে পড়েছে টস জিতে আগে ব্যাট করা ওয়েস্ট ইন্ডিজকে চেপে ধরতে না পারায়। উইকেটে স্পিন ধরবে আশা করে আবারও তিন স্পিনারের বিপরীতে মাত্র এক পেসার নিয়ে মাঠে নামে স্বাগতিকরা। কিন্তু টাইগার স্পিনারদের সাবলীলভাবে খেলে বড় সংগ্রহই পায় সফরকারীরা। একমাত্র পেসার হয়ে মাঠে নামা আবু জায়েদ রাহি যৌথভাবে তাইজুল ইসলামের সাথে শিকার করেছেন সর্বোচ্চ ৪ উইকেট।

রাহির সাফল্যে বাড়তি পেসারের অভাব অনুভব করেছে কিনা বাংলাদেশ এমন প্রশ্নে তামিম সরাসরি উইকেটকেই দোষী করলেন।

তামিম বলেন, ‘যে প্ল্যানটা ছিল সেটাতো যে উইকেট দেখছি সেটার ছিল না। যখন ঘরের মাঠে কোন দল তিন স্পিনার নেয় তখন এটা রকেট সায়েন্স না, আপনার বুঝতেই পারেন আমরা আরও বেশি স্পিন ধরবে এমন উইকেট প্রত্যাশা করি। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে এটা স্পিন হয়নি যে কারণেই হোক না কেন। সুতরাং আমরা একটা প্ল্যান সেট করে এগিয়েছিলাম। এখন উইকেট স্পিনারদের সাহায্য না করায় এটা নিয়ে অনেক কথা হতে পারে।’

‘কিন্তু আমরা সামনের দিকে তাকাচ্ছি। আপনি জানেন যে বাংলাদেশ, আমরা জিতেছিলাম দুইটা বড় দলের সাথে ইভেন এই ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথেই শেষ যখন জিতেছি তখনও একই কম্বিনেশনেই সফল হয়েছি। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে উইকেট স্পিনারদের সাহায্য করেনি (এই ম্যাচে), দেখা যাক কি হয়।’

ম্যাচের বর্তমান পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের সম্ভাবনা দেখা বেশ সাহসিক মানসিকতার পরিচয় দিবে। টাইগার ওপেনার তামিম জানালেন ৪ উইকেট না হারালে খারাপ পরিস্থিতি বলা যেত না। তবে এখন ঘুরে দাঁড়ানো অসম্ভব না বললেও স্বীকার করছেন কাজটা কঠিন।

বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান বলেন, ‘বিশ্বাস তো করতেই হবে (ঘুরে দাঁড়ানোর ব্যাপারে)। যেটা বললাম যদি চারটা উইকেট না পড়তো তাহলে আমরা ভালো অবস্থায় থাকতাম। কঠিন (ম্যাচের বর্তমান পরিস্থিতি), কিন্তু আমি বলবো না যে আমি এটা বিশ্বাস করিনা। আমরা নিজেদের প্রতি বিশ্বাস রাখছি যে এখান থেকে ভালো কোন বড় পারফরম্যান্স হবে। এবং আমরা চেষ্টা করবো পরিস্থিতি বদলের।’

 

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

মুমিনুলের চেয়ে উপযুক্ত কাউকে দেখেন না তামিম

Read Next

জোসেফ বলছেন ভবিষ্যতে আরো সুযোগ আসবে

Total
5
Share