মুমিনুলের চেয়ে উপযুক্ত কাউকে দেখেন না তামিম

মুমিনুলের চেয়ে উপযুক্ত কাউকে দেখেন না তামিম

সাকিব আল হাসান আইসিসির নিষেধাজ্ঞায় পড়াতে ২০১৯ সালে ভারত সফরের আগে টেস্ট অধিনায়কত্বের ভার দেওয়া হয় মুমিনুল হককে। তবে এখনো পর্যন্ত বলার মত সাফল্য নেই তার অর্জনের খাতায়। ম্যাচে তার নেওয়া বিভিন্ন সিদ্ধান্তু হয়েছে প্রশ্নবিদ্ধ। চট্টগ্রাম টেস্টে হারের পর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ঢাকা টেস্টের প্রথম দুই দিনেও বেশ পিছিয়ে টাইগাররা। তবে দলের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল বলছেন এই মুহূর্তে বাংলাদেশকে টেস্টে নেতৃত্ব দিতে মুমিনুলের চাইতে ভালো বিকল্প কেউ নেই।

চলতি ঢাকা টেস্ট মুমিনুল হকের নেতৃত্বে বাংলাদেশের ৬ষ্ঠ ম্যাচ। এর আগের পাঁচ ম্যাচে হেরেছে চারটিতে, যার চারটিই আবার টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ। একমাত্র জয় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। ভারতের বিপক্ষে দুই ম্যাচের পর পাকিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র ম্যাচেও ইনিংস ব্যবধানে হার। সবচেয়ে কম ব্যবধানে চট্টগ্রাম টেস্টে ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে ৩ উইকেটের হার। যে ম্যাচে চারদিন চালকের আসনে থেকেও হারতে হয়েছে বাংলাদেশকে।

ঢাকা টেস্টে টস জিতে আগে ব্যাট করে ক্যারবিয়ায়নদের সংগ্রহ ৪০৯। জবাবে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ৪ উইকেট হারিয়ে ১০৫ রান টাইগারদের স্কোরবোর্ডে। ফলো অন এড়াতেই এখনো করতে হবে ১০৫ রান। সব ছাপিয়ে মুমিনুলের অধিনায়কত্বও কম আলোচনার খোরাক জোগাচ্ছে না। যদিও দিন শেষে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তামিম ইকবাল জানালেন তার মতে এই বর্তমানে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেওয়ার যোগ্য ব্যক্তি মুমিনুলই।

তামিম বলেন, ‘সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি সে এই কাজের জন্য উপযুক্ত ব্যক্তি। টেস্ট অধিনায়কত্ব সহজ কাজ না। ওয়ানডে বলেন, টি-টোয়েন্টি বলেন এটা একটা দিনের খেলা। টেস্ট অধিনায়কত্ব অনেক অনেক কঠিন। কিন্তু ওর (মুমিনুল) যে চিন্তাধারা, ওর যে প্ল্যানিং, ওর যে ফোকাস, ওর যে ফিউচার প্ল্যান…টেস্ট ক্রিকেটকে যেভাবে দেখে। আমার কাছে মনে হয়না এখানে এর চাইতে বেটার কেউ আছে যে নেতৃত্ব দিবে। আমি বেশ শক্তভাবেই বিশ্বাস করি সে যোগ্য ব্যক্তি। একটা জিনিস আপনাদের সবার মাথায় রাখতে হবে যে সে খুবই তরুণ।’

‘সে ভুল করতেই পারে, এটা যে কোন অধিনায়কই করে। আর সে এটা থেকে শিখবে। আমি নিশ্চিত সময়ের সাথে সাথে ও আরও পরিপক্ক হবে, অনেক ভালো কিছু দেখবো সে করছে। কারও যদি মনযোগটা টেস্ট ক্রিকেট নিয়ে থাকে, আমাদের টিমে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয় এমন কাউকে যদি বলতে হয় মুমিনুল সেখানে উপরের দিকেই থাকবে নিশ্চিতভাবে। সুতরাং আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি সে সঠিক ব্যক্তি।’

দলের সিনিয়র ক্রিকেটার হিসেবে তামিম, মুশফিকরা সমর্থন জোগান প্রতিনিয়তই। তবে সিনিয়র বলে মুমিনুলের সিদ্ধান্তকে কখনোই এড়িয়ে যান না বলে জানিয়েছেন তামিম। মুমিনুল যেমন তামিমদের কথা শোনেন, তামিমরাও অনুসরণ করেন অধিনায়ক মুমিনুলের সিদ্ধান্ত।

টাইগার ওপেনার এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমরাতো অবশ্যই সাপোর্ট দিতে চাই, যখনই আমাদের কিছু বলার থাকে আমরা বলি। ও (মুমিনুল) যেটা ভালো মনে করে ও সেটা নেয়। যেটা মনে করে এখন দরকার নেই সেটা নেয়না। যেটা একজন অধিনায়কের জন্য ভালো দিক। মাঝে মাঝে এমনও হয় যে আমাদের মনে হয় ও যেটা সিদ্ধান্ত নিচ্ছে ওটা আমাদের অনুসরণ করা উচিৎ, আমরা সেটা অনুসরণ করি।’

‘এটা না যে সিনিয়র হওয়ার কারণে সবসময় ওকে বলতে থাকবো। সময় সময় যখন আমরা অনুভব করি তখনই আমরা পরামর্শ দিই। এবং সে শোনে, এটা না যে করে না। সব কথার শেষ কথা সে এই কাজের জন্য যোগ্য ব্যক্তি।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

মিরপুরে টাইগারদের ভুলে যাবার মত এক দিন

Read Next

নিজেদের ব্যাটিংয়ের সাথে উইকেটকেও দুষলেন তামিম

Total
12
Share