মুমিনুল-শান্তদের রাহির ধন্যবাদ

মুমিনুল-শান্তদের রাহির ধন্যবাদ

ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনে সমানে সমানে অবস্থান বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজের। দিনশেষে ক্যারিবিয়ানদের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ২২৩। স্পিন নির্ভর বাংলাদেশের সফল বোলার আবু জায়েদ রাহি। স্পিনারদের ভালোভাবে সামলানো ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব্যাটসম্যানদের এদিন ভুগিয়েছেন কেবল রাহিই। করোনা পরবর্তী বলে লালা ব্যবহার নিষিদ্ধ হলেও অধিনায়ক মুমিনুল হক ও ফিল্ডার নাজমুল হোসেন শান্ত দারুণভাবে বলের উজ্জ্বলতা ধরে রাখার কাজটা করেছেন। দিন শেষে পেয়েছেন রাহির ধন্যবাদও।

দিনের শুরু থেকেই লাইন লেংথ ঠিক রেখে ব্যাটসম্যানকে ভুগিয়েছেন রাহি, ছিল টানা এক জায়গায় বল করে যাওয়ার নজিরও। পেয়েছেন হালকা ইনসুইংও, যা বিভ্রান্ত করেছে ব্যাটসম্যানকে। তার নেওয়া উইকেট দুটিতেও আছে এসবের ছাপ।

১৮ ওভারের স্পেলে ৫ মেডেন সহ ৪৬ রান খরচায় ২ উইকেট। পেসারদের জন্য লালা ব্যবহার নিষিদ্ধ হলেও মুমিনল, শান্ত বেশ ভালোভাবে পরিচালনা করেছেন বলকে। এ ছাড়া স্পিনারদের বল ছোঁড়ার ক্ষেত্রেও বলের উজ্জ্বল অংশ পিচে না পড়ায় সুবিধা হয়েছে বলে জানান রাহি।

বলের উজ্জ্বলতা প্রসঙ্গে দিন শেষে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে ডানহাতি এই পেসার বলেন, ‘প্রথমেই এ জন্য ধন্যবাদ জানাবো সৌরভ (মুমিনুল হক) ভাই, (নাজমুল হোসেন) শান্তকে। কারণ ওরা বলটা খুব ভালো মেইনটেইন করেছে। এছাড়া আমাদের স্পিনারদেরও, কারণ ওদের বলগুলোয় বল খুব কমই পড়েছে শাইন পার্টে। আমার কাছে মনে হয় উনারা খুব ভালো মেইনটেইন করেছে বল।’

শুরু থেকে নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের রহস্য জানাতে গিয়ে ২৭ বছর বয়সী এই পেসার বলেন, ‘আমি যে পেসটা করি, আমার পেসটা একটু কম। আমাকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে টিকে থাকতে হলে আমার লেংথ এবং লাইন ঠিক রাখতে হবে। আমি যখন বোলিং করি, তখন আমার মাথায় থাকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ভালো করতে হলে আমাকে লেংথ এবং লাইনে বোলিং করতে হবে। এছাড়া আমার কাছে কোনো দ্বিতীয় বিকল্প নেই। আমি এটাই মাথার মধ্যে রেখে বোলিং করি।’

পেসার হয়েও ১৮ ওভার বল করেছেন রাহি। ডানহাতি এই পেসার বলছেন তার ধারণা ছিল অন্তত ১৫ ওভার বল করবেন। তবে এরপরও ১৮ ওভার করে পেশাদা ক্রিকেটার হিসেবে চ্যালেঞ্জ নিতে হবে এমন বার্তাও দিলেন।

রাহি বলেন, ‘সত্যি বলতে আমার কাছে কোনো প্ল্যান ছিল না যে ১৮ ওভার বোলিং করব। আমি অন্তত ১৫ ওভার বোলিং করব আমি ধরে রেখেছিলাম। অবশ্যই আমরা প্রফেশনাল ক্রিকেটার, আমাদের এসব চ্যালেঞ্জ নিয়েই থাকতে হবে।’

ক্যারিবিয়ানদের পাঁচ উইকেটের তিনটিই নিয়েছেন রাহি ও সৌম্য সরকার। এই দুই পেসারের সাফল্য কি আরও একজন বাড়তি পেসার খেলানোর আক্ষেপে পোড়াচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নে অবশ্য রাহির জবাব ‘না’।

এই টাইগার পেসার বলেন, ‘না (বাড়তি পেসার না নেওয়ার আক্ষেপ) যখন দ্বিতীয় নতুন বলটা নিয়েছি তখন আমার কাছে ওই রকম কিছু মনে হয় নাই।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

নিউজিল্যান্ডের দেওয়া অপশনে ‘বি’ বেছে নিয়েছে বিসিবি

Read Next

গিবসন বললেন: আমাদের সাহসী সিদ্ধান্ত নিতে হবে

Total
10
Share