ব্যাটে-বলে পারফর্ম করেও মজা পাননি মিরাজ

'ব্যাটসম্যান হিসেবে আমি এখনো বাংলাদেশ দলে খেলতে পারতাম না'

চট্টগ্রাম টেস্টে বাংলাদেশ প্রথম চারদিন চালকের আসনে থেকেও হেরে যায়। দলকে প্রথম চারদিন এগিয়ে রাখার পেছনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা মেহেদী হাসান মিরাজের অলরাউন্ড নৈপুণ্য। শেষদিনে বাকিদের মত নিজেও ছিলেন নিষ্প্রভ। সামনে থাকা দারুণ এক রেকর্ড মিস করার পাশাপাশি দলও হেরেছে। রেকর্ডের চাইতে মিরাজকে পোড়াচ্ছে দলের হার।

ম্যাচে সেঞ্চুরির পাশাপাশি উইকেট নিয়েছেন ৮ টি। সেঞ্চুরিটি আবার স্বীকৃত ক্রিকেটে মিরাজের প্রথম সেঞ্চুরি। যদিও ইয়ুথ টেস্টের অভিষেকে হাঁকিয়েছেন সেঞ্চুরি। ম্যাচে আর দুইটি উইকেট নিতে পারলেই ইয়ান বোথাম, ইমরান খান ও সাকিব আল হাসানের পর চতুর্থ ক্রিকেটার হিসেবে ম্যাচে সেঞ্চুরি ও ১০ উইকেট শিকারি এলিট ক্লাবে ঢুকতেন মিরাজ।

ব্যাট হাতে প্রথম ইনিংসে ১০৩ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে আউট হয়েছেন ৭ রান করে। দুই ইনিংসেই বল হাতে নিয়েছেন ৪ টি করে উইকেট। তবে দল জেতাতে পঞ্চম দিনে ছিলেন নিজের ছায়া হয়ে। সারাদিনে উইকেট সাকূল্যে একটি, ততক্ষণে দলের হার অনেকটাই নিশ্চিত। যদিও আগের দিন দ্রুত তিন উইকেট নিয়ে জয়ের স্বপ্ন দেখান তিনিই।

ম্যাচে রেকর্ড কিংনা জয় কোনটাই পাননি মিরাজ। রেকর্ডের চাইতে দলের হারেই বিষণ্ণ এই অলরাউন্ডার। মজা পাননি দুর্দান্ত অলরাউন্ডার নৈপুণ্য দেখিয়েও।

দ্বিতীয় টেস্ট সামনে রেখে মিরপুরে আজ (৯ ফেব্রুয়ারি) অনুশীলন শেষে মিরাজ বলেন, ‘আক্ষেপ যেটা বলবো, আক্ষেপ ওরকম নেই। কারণ হলে (রেকর্ড) ভালো হত, কিন্তু দিনশেষে ক্রিকেট খেলা, যে কোনো কিছুই হতে পারে। কিন্তু সবচেয়ে খারাপ লাগছে যে দল হেরেছে। কারণ আমরা আশাও করিনি যে দল হেরে যাবে। দল জিতলে হয়ত আমার পারফরম্যান্সটা আরও ফোকাস হত বা খুব ভালো লাগত নিজের কাছে।’

‘দিনশেষে আমরা কিন্তু দলের জন্যই খেলি। দল জিতলে কিন্তু আমাদের ভালো লাগে। হেরে যাওয়াতে আমি যে রান করেছি বা উইকেট পেয়েছি, ওটার ভেতর কিন্তু আমি মজাও পাইনি। হয়ত আমরা যদি ম্যাচটা জিততে পারতাম, হয়ত আমার ফিলিংসটা আরও বেশি থাকতো, ভালো লাগাটা আরও বেশি থাকতো। তবুও দিনশেষে যেটা বলবো যে প্রথম সেঞ্চুরি করেছি, অবশ্যই ভালো লাগছে এবং এটা আমার ক্যারিয়ারের জন্য অনেক বড় একটা অ্যাচিভমেন্ট আমি মনে করি।’

এমনিতে ব্যাটিং অলরাউন্ডার হলেও জাতীয় দলে এসে ভূমিকা বদলে মিরাজ হয়ে পড়েছেন পুরোদস্তুর বোলার। শেষদিকে নেমে খুব একটা ভালো করার সুযোগ পাননা। চট্টগ্রাম টেস্টে ৮ নম্বরে নেমে হাঁকানো সেঞ্চুরিটি ভবিষ্যতে কাজে দিবে বলে বিশ্বাস তার।

মিরাজ যোগ করেন, ‘যেহেতু আমি লেট অর্ডারে ব্যাট করি, হয়তো আমার ভবিষ্যত ক্রিকেট এবং আমার নিজেকে অনেক সাহায্য করবে এই সেঞ্চুরিটা। আমার নিজেকে দিন দিন উন্নত করতে হবে কারণ ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট অনেক কঠিন, আমি খেলেছি, আমি দেখছি এবং খেলছি, কীভাবে সারভাইভ করতে হয়, কীভাবে খেলতে হয়, এটা আমাকে দিন দিন উন্নতি করতে হবে যেকোন ভাবে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

পিএসএল ৬ অ্যান্থেম- ‘গ্রুভ মেরা’ নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

Read Next

হিন্দি ভাষায় টুইট করে ভারতকে পিটারসেনের কটাক্ষ

Total
8
Share