কর্নওয়ালের স্পিনে বিপাকে বিসিবি একাদশ

কর্নওয়ালের স্পিনে বিপাকে বিসিবি একাদশ

বাংলাদেশ সফরে আসা ক্যারিবিয়ায়নদের মূল ভয়ের জায়গা নিশ্চিতভাবে স্পিন। তিনদিনের প্রস্তুতি ম্যাচের প্রথমদিনে চট্টগ্রামের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে বিসিবি একাদশের বিপক্ষে অল আউট হওয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের ৭ ব্যাটসম্যান ফিরেছে স্পিনেই। তবে আজ দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশনে সফরকারীদের অফ স্পিনার রাখিম কর্নওয়ালও বেশ কঠিন পরীক্ষা নিলেন বিসিবি একাদশের ব্যাটসম্যানদের। ৪ উইকেটে ১১৫ রান তুলে লাঞ্চে যাওয়া বিসিবি একাদশের দুই শিকার কর্নওয়ালের।

আগেরদিন ২৫৭ রানে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অল আউট হওয়ার পর বাংলাদেশ ব্যাটিংয়ের সুযোগ পায় ৮ ওভার। কোন উইকেট না হারিয়ে স্কোরবোর্ডে তোলে ২৪ রান। রানের চাইতে দুই ওপেনার সাদমান ইসলাম ও সাইফ হাসানের সাবলীল ব্যাটিংই ছিল ইতিবাচক দিক।

তবে আজ ৯৩০ জানুয়ারি) দিনের প্রথম ওভারেই কেমার রোচের ভেতরে ঢোকা গুড লেংথের বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়ে বিদায় নিতে হয় ১৫ রান করা সাইফ হাসানকে। এরপর সাদমান ইসলামকে নিয়ে নতুন ব্যাটসম্যান নাইম শেখ খেলেন ওয়ানডে মেজাজে। শ্যানন গ্যাব্রিয়েল, কেমার রোচ, আলঝারি জোসেফদের পেস সামলে ছুটছিলেন ফিফটির দিকেও। ১৭ তম ওভারে আলঝারি জোসেফকে ডিপ ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্ট ও ডিপ এক্সট্রা কাভার অঞ্চল দিয়ে মারা ব্যাক টু ব্যাক চার দুটো ছিল তার ৪৫ রানের ইনিংসের বিজ্ঞাপন।

ততক্ষণে অবশ্য পুরোদস্তুর টেস্ট আবহে ব্যাটিং করছিলেন বাঁহাতি ওপেনার সাদমান ইসলাম। চোট কাটিয়ে ২০১৯ সালের পর প্রতিযোগিতামূল ক্রিকেটে ফেরা সাদমানের জন্য ম্যাচটি এমনিতেই ছিল আত্মবিশ্বাসের রসদ জোগানোর উপলক্ষ্য। দেখে শুনে ছেড়ে দেওয়া তত্বেই এদিন বেশি মনযোগী ছিলেন এই বাঁহাতি। তবে রাখিম কর্নওয়ালের স্পিন ঘূর্ণির সাথে আলঝারি জোসেফের গুড লেংথ, ব্যাক অব লেংথের কিছু বলে বিপাকে ফেলে এই ব্যাটসম্যানকে। ২১ তম ওভারে জোসেফের দেওয়া একটি শর্ট বলে আঙুলেও খানিক ব্যথা পান।

রাখিম কর্নওয়াল উপর থেকে ছোঁড়া বলে বাড়তি বাউন্স পেয়ে থাকেন, সাথে এম এ আজিজে মরা ঘাসের উইকেটে পেয়েছেন টার্নও। যা কাজে লাগিয়ে ফিফটি ছোঁয়ার আগেই বোল্ড করে ফেরান নাইম শেখকে। যদিও আউট করা বলটি ফুল লেংথে করেন ক্যারিবিয়ান এই অফ স্পিনার, কাট করতে গিয়ে মিস করে বোল্ড হন নাইম। থামে ৭৮ বলে ৯ চারে সাজানো ৪৫ রানের ইনিংস, ভাঙে সাদমানের সাথে ৭৪ রানের জুটি।

নাইমের বিদায়ের পর বেশিক্ষণ টিকেননি ১২৬ মিনিট ক্রিজে কাটিয়ে ৮২ বলে ২২ রান করা সাদমান ইসলামও। তাকে ফিরিয়েছেন আলঝারি জোসেফ, পুল করতে গিয়ে শর্ট মিড উইকেটে ধরা পড়েন ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েটের হাতে। কর্নওয়ালের অফ স্পিন ভেল্কিতে দ্রুত ফেরেন ইয়াসির আলি রাব্বিও (১)।

৯ বলের ব্যবধানে তিন উইকেট হারিয়ে ১ উইকেটে ৯৮ থেকে ৪ উইকেটে ১০০ রানে পরিণত হয় বিসিবি একাদশ। শেষ পর্যন্ত শাদাত হোশেন দিপু (৮*)ও অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহানের (৭*) ব্যাটে ৪ উইকেটে ১১৫ রান নিয়ে লাঞ্চে যায় বিসিবি একাদশ।

চট্টগ্রাম থেকে, ক্রিকেট৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

মোসাদ্দেকের ব্যাটে ঝড়ো ইনিংস, রান খরচে সেরা মুক্তার

Read Next

কর্নওয়ালের ‘৫’, দেড় সেশনেই শেষ বিসিবি একাদশ

Total
12
Share