ফেব্রুয়ারিতেই শুরু হচ্ছে ক্রিকেটারদের ‘কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনেশন প্রোগ্রাম’

ফেব্রুয়ারিতেই শুরু হচ্ছে ক্রিকেটারদের 'কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনেশন প্রোগ্রাম'

প্রায় এক বছর পর বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবির) নবম বোর্ড সভা (ভার্চুয়াল) অনুষ্ঠিত হয় গতকাল (২৮ জানুয়ারি)। যা করোনা পরবর্তী দেশের ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থার প্রথম বোর্ড সভা ছিল। সভায় যেসব এজেন্ডা নিয়ে আলোচনা হয় তাদের মধ্যে ক্রিকেটারদের ভ্যাকসিন প্রয়োগের মাধ্যমে ঘরোয়া লিগ ফেরানো ছিল অন্যতম।

ফেব্রুয়ারির শেষ দিকে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনেট প্রোগ্রাম পরিচালনার নীতিগত সিদ্ধান্ত হয় গতকালকের বোর্ড সভায়। ফলে দ্রুতই আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে স্থগিত হওয়া দেশের ঘরোয়া লিগ তা বলাই যায়। বোর্ড সভা শেষে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ‘কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনেশন প্রোগ্রাম’ এর বিষয়টি নিশ্চিত করে বিসিবি।

গত মার্চে করোনার প্রভাবে স্থগিত হয় দেশের সব ধরণের ক্রিকেট। তবে করোনাকে পাশ কাটিয়ে ইতোমধ্যে বিসিবি আয়োজন করে দুইটি ঘরোয়া টুর্নামেন্ট। যদিও যার কোনটিই ছিল না দেশের নিয়মিত কোন ঘরোয়া টুর্নামেন্ট। এদিকে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজে সিয়ে ফিরেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটও।

ঢাক প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের (ডিপিএলের) মাত্র এক রাউন্ড মাঠে গড়ানোর পরই স্থগিত হয় করোনার থাবায়। এরপর নানা সময়ে বিসিবি সভাপতি জানিয়েছেন একমাত্র ভ্যাকসিন আসলেই ফিরবে নিয়মিত ঘরোয়া টুর্নামেন্টগুলো।

গত ২১ জানুয়ারি ভারত সরকারের পাঠানো ২০ লাখ ভ্যাকসিন দিয়ে বাংলাদেশে প্রথম করোনা ভাইরাসের টিকা আসে। এর বাইরে বাংলাদেশ সরকারও প্রায় ৫০ লাখ ভ্যাকসিন কিনেছে। সরকারের ভ্যাকসিন পাওয়াদের অগ্রাধিকার তালিকায় আছে খেলোয়ায়রাও। ফলে বিসিবি সভাপতি ক্রিকেটারদের ভ্যাকসিনের প্রয়োগের ব্যাপারে শুরু থেকেই ছিলেন আশাবাদী।

নাজমুল হাসান পাপন সরকারি তালিকায় কঠিন হলে বেসরকারিভাবে ক্রিকেটারদের ভ্যাকসিন দেওয়ার ক্ষেত্রেও অগ্রাধিকার দিচ্ছেন। গতকালকের (২৭ জানুয়ারি) বোর্ড সভায় সেই প্রকল্পের সিদ্ধান্তই গৃহীত হল।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

নিজেকে পরিপূর্ণ অলরাউন্ডার হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করতে চান

Read Next

বিগ ব্যাশের টিম অব দ্য টুর্নামেন্ট’ ঘোষণা

Total
5
Share