যে ভাবনায় আগে ব্যাটিং নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ

যে ভাবনায় আগে ব্যাটিং নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ

প্রথম ম্যাচে রহস্যে মোড়ানো মিরপুরের উইকেটে আগে ব্যাট করে ১২২ রানের বেশি করতে পারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ৬ উইকেটের জয় পেলেও বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদেরও ধুঁকতে হয়েছে বেশ। তবে শুক্রবার খেলা হয়েছে অনেকটাই ব্যাটিং বান্ধব উইকেটে। যদিও এই পিচেও টস জিতলে আগে ফিল্ডিং নিতেন বলে জানিয়েছেন টাইগার অধিনায়ক তামিম ইকবাল। কিন্তু টস জিতে ব্যাটিং নিয়েও ৭ উইকেটের হার সঙ্গী হয়েছে ক্যারিবিয়ানদের। ক্যারিবিয়ান দলপতি জানালেন আগে ব্যাট করার কারণ।

মিরপুরের উইকেট বিবেচনায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অধিনায়করা টস জিতে ফিল্ডিং নেওয়াকেই সেরা সিদ্ধান্ত মনে করেন। পরিসংখ্যান আমলে নিলেও পরের ব্যাট করা দলের জয়ের সংখ্যাই বেশি। পরের ব্যাট করে এখানে জয় এসেছে ৫৯ টি, বিপরীতে আগে ব্যাট করা দলের জয় ৫০ টি, একটি ম্যাচ পরিত্যাক্ত হয়েছিল।

উইকেটের ধরণ দেখে ব্যাটিং সহায়ক মনে হলেও তামিম চেয়েছিলেন ফিল্ডিংই করতে। প্রতিপক্ষ অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদ টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্তে তাই সমস্যা হয়নি তামিমের, যা চেয়েছেন তাই পেয়েছেন। কিন্তু কি কারণে টস জিতে ব্যাটিংই বেছে নিলেন জেসন মোহাম্মদ সেই ব্যাখ্যা অবশ্য দিয়েছেন ম্যাচ শেষে।

তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি আজকের উইকেট অনেক বেশি ভালো ছিল। আমরা ভেবেছি যদি আগে ব্যাট করে স্কোরবোর্ডে একটা ভালোমানের সংগ্রহ দাঁড় করাতে পারি তবে আমাদের বোলিং আক্রমণ দিয়ে তাদের (বাংলাদেশকে) আঁটকে রাখতে পারবো।’

স্পোর্টিং উইকেটেও মুখ থুবড়ে পড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ করতে পারে ১৪৮ রান। যা ১০০ বল ও ৭ উইকেট হাতে রেখে অনায়েসেই টপকে যায় বাংলাদেশ। মূলত অভিজ্ঞতার কাছেই পিছিয়ে পড়তে হচ্ছে বলে মত ক্যারিবিয়ান দলপতির।

জেসন মোহাম্মদ বলেন, ‘অবশ্যই আমরা মনে করি এটা কিছুটা অনভিজ্ঞতার কারণে হচ্ছে। অনেকেরই অভিষেক হল কেবল। ছেলেদের সামর্থ্য ও সম্ভাবনা আছে। আমি মনে করি শুধু একসাথে পারফরম্যান্স করা হচ্ছে না। আমাদের বড় কোণ জুটি হচ্ছে না কিংবা ব্যক্তিগতভাবেও কেউ বড় কোন ইনিংস খেলতে পারছেনা। তবে ছেলেদের সামর্থ্য আছে, আশা করি শেষ ম্যাচে সঠিক কিছুই করতে পারবে।’

এদিকে টাইগার স্পিনারদের ঘূর্ণিতে বেশ ভালোই খাবি খেয়েছে আগে থেকেই স্পিন ভয়ে ভীত হওয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দুই ম্যাচে সাকিব আল হাসান ও মেহেদী মিরাজ মিলে নিয়েছেন ১১ উইকেট।

টাইগার স্পিনারদের নিয়ে বলতে গিয়ে ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক যোগ করেন, ‘আমরা দুইজন মানসম্পন্ন স্পিনারকে সামলাচ্ছি। বিশেষ করে সাকিব বিশ্বের অন্যতম সেরাদের একজন। বাংলাদেশের হয়ে মেহেদীও দারুণ করছে। তারা বেশ ভালো করেছে আর আমরা তাদের ঠিকঠাক সামলাতে পারিনি। এটিই মূলত দুই ম্যাচে স্কোরবোর্ডে স্বল্প পুঁজি পাওয়ার কারণ।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সাকিব-রিয়াদের যে টোটকায় সফল মিরাজ

Read Next

মিরাজের লড়াইটা মিরাজের সঙ্গেই

Total
13
Share