বাংলাদেশি ব্র্যান্ড অব ক্রিকেট তৈরি করতে চান তামিম

বাংলাদেশি ব্র্যান্ড অব ক্রিকেট তৈরি করতে চান তামিম

এর আগে জাতীয় দলকে ৪ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়ে হেরেছেন সবকটিতেই। ঘরোয়া ক্রিকেটে নিয়মিতই অধিনায়কের ভূমিকা পালন করা তামিম ইকবাল অবশ্য সাফল্যের দেখা পান কমই। তবে পূর্ণ মেয়াদে টাইগারদের ওয়ানডে অধিনায়কের দায়িত্ব পাওয়ার প্রায় এক বছর পর মাঠে নামছে বাংলাদেশ। আগামীকাল ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ দিয়ে নতুন অধ্যায় শুর হচ্ছে তামিমের। বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যানের চাওয়া আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশি ব্র্যান্ড তৈরি করা।

এক যুগের বেশি সময়ের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ক্যারিয়ার। নানা চড়াই উতরাইয়ের সাথে প্রতিনিয়তই নানা সমালোচনায় বিদ্ধ হয়েছেন তামিম ইকবাল। কখনো পারফরম্যান্স তো কখনো ভিন্ন কোন কারণে সমালোচকদের তীর ঠিকই খুঁজে নিয়েছে দেশের অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যানকে।

দেশের ওয়ানডে অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ায়র পর তামিম নিজেও প্রস্তুত দল খারাপ করলে সমালোচনার ভার বইতে। নিজের তীক্ত অতীত অভিজ্ঞতাই এই বাঁহাতি ওপেনারকে মানসিকভাবে আগেই প্রস্তুত করে রেখেছে। তবে দলপতি হিসেবে বাংলাদেশের ক্রিকেট সংস্কৃতিকে আলাদা একটা ব্র্যান্ডে রুপান্তর করার স্বপ্ন তামিমের।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটি মাঠে গড়াবে আগামীকাল (২০ জানুয়ারি) মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। যে ম্যাচ দিয়ে ১০ মাসের বেশি সময় পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরবে বাংলাদেশ। সাথে গত মার্চে দায়িত্ব পাওয়ার পর প্রথম ম্যাচ নেতৃত্ব দিবেন তামিমও।

আজ (১৯ জানুয়ারি) এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক হিসেবে নিজের চাওয়ার কথা জানাতে গিয়ে তামিম বলেন, ‘আমি সবসময় প্রায়োরিটি দিই যে আমাদের বাংলাদেশি ব্র্যান্ড অব ক্রিকেট ডেভেলপ করতে হবে। আমি সবসময় একটা কথা বলেছি যে প্রত্যেকটা দেশের নিজের নিজের স্টাইল আছে। সুতরাং আমার মনে হয়না আমাদের অন্য কাউকে অনুসরণ করা উচিত। আমরা হয়তো ওয়েস্ট ইন্ডিজের মত স্ট্রং না, বা অস্ট্রেলিয়ার মত বিল্ড আপ না। তবে আমাদের এমন অনেক সুযোগ সুবিধা আছে যা অন্য দলে নাই।’

‘আমি যেটা তৈরি করতে চাই সেটা হল বাংলাদেশি ব্র্যান্ড অব ক্রিকেট, যেটা আমরা খেলি। আমরা অন্যদের ফলো না করে ওটাতেই ফোকাস করতে চাই। আমাদের যেখানে স্ট্রেংথ, যেগুলো দিয়ে আমরা ভাল খেলতে পারি সেটা দিয়ে ব্র্যান্ড। সেখানেই আমরা ফোকাস করছি।’

অধিনায়ক হিসেবে মাশরাফি অধ্যায়ের অবসান হতেই দায়িত্ব বর্তায় তামিমের কাঁধে। তবে অতীত রেকর্ড খুব একটা সুখকর নয় বলে অধিনায়ক হিসেবে ভক্ত সমর্থকদের আস্থার জায়গাটা পুরোপুরি নেই তামিমের উপর। ক্রিকেট বিশ্লেষকরাও আত্মবিশ্বাসের সাথে তামিমের সাফল্যের ব্যাপারে জোর দিয়ে বলতে পারছেনা। ফলে অধিনায়ক হিসেবে তামিম ব্যর্থ হলেই পড়বেন বেশ সমালোচনার মুখে এমন ঝুঁকি থেকেই যায়। তবে ক্যারিয়ারে এর আগে নানা ইস্যুতে সমালোচনা হজম করা তামিম এবারও প্রস্তুত।

তামিম বলেন, ‘সত্যি কথা বলতে যত সমালোচনা আমি শুনেছি আমার মনে হয় না বাংলাদেশের কোনো ক্রিকেটারই শুনেছে। তো ওইদিক থেকে আমি পুরোপুরি তৈরি। যেটা আমার সঙ্গে হয় আর কি এটা পুরোপুরি… কিছু কারণে হয় আবার কিছু অকারণে হয়, ভিন্নভাবে চেষ্টা করছি। আপনি যখন অধিনায়কের দায়িত্বটি গ্রহণ করেছেন তখন এটার সঙ্গে অনেক কিছু আসবে। এখানে সমালোচনা আসবে, প্রতিক্রিয়াও আসবে।’

‘আমার কাছে যেটা গুরুত্বপূর্ণ মনে হয় নিজের দায়িত্বে ঠিক থাকা। এখন বললাম আমি অনেক…। আমি আগামীকাল থেকে সামনে এগিয়ে যেতে মুখিয়ে আছি। কিন্তু আজ থেকে তিন-চার মাস পর বা এক বছর পর আমি কিভাবে প্রতিক্রিয়া করি সেটাও দেখার বিষয়। আমি সবসময় একটা জিনিস বলি যে আমার জন্য এটি এমন জিনিস বলেই আমি উপভোগ করব না এমন না।’

‘এমনও হতে পারে যে দল খুব ভালো খেললে হয়তো বা আমি উপভোগ করতে পারছি না। তখন সিদ্ধান্তটা আমি অন্যভাবে নিতে পারি। এখনই এই কথা যদি বাইরে গিয়ে বলি তাহলে আমি প্রস্তুত সমালোচনা শোনার জন্য, রেডি ফর প্রেইজ কারণ আমি রোমাঞ্চিত।’

দায়িত্ব পাওয়ার পরও করোনা প্রভাবে নেতৃত্ব দিতে তামিমকে অপেক্ষা করতে হয়েছে প্রায় এক বছর। তবে এই সময়ে দুইটি ঘরোয়া টুর্নামেন্টে অধিনায়কত্ব সামলেছেন এই টাইগার ওপেনার। যা জাতীয় দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার আগে তামিমের প্রস্তুতি হিসেবে ভালৈ কাজে এসেছে।

তামিম যোগ করেন, ‘ এটা একটা ভাল দিকই বলতে পারেন যে, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ক্যাপ্টেন্সি শুরু করার আগে আমি দুইটা টুর্নামেন্টে ক্যাপ্টেন্সি করতে পেরেছি। মহামারীর কারণে দুর্ভাগ্যবশত আমরা বেশ কিছু সিরিজ মিস করেছি। দুটো টুর্নামেন্টই আমার জন্য কঠিন ছিল। কঠিন ছিল বলে অনেক কিছু শিখতে পেরেছি। যদি ভালো করে থাকি তাহলে সেটা সামনে এগিয়ে নিব। আর স্টাইল অব ক্যাপ্টেন্সি সময়ের সাথে সাথে তৈরি হবে।’

‘এখন যদি আমি একটা কথা বলি আর সিচুয়েশন মাঝখানে ভিন্ন হয় এটার কোন মূল্য নেই। আমার কাছে মনে হয় সময়ের সাথে সাথে মানুষ বুঝতে পারবে, আর আমিও বুঝতে পারব আমি কোন দিকে যাচ্ছি। কোন সিচুয়েশনে খেলছেন সেটাও আপনাকে বিবেচনা করতে হবে। কিছু সময় আপনাকে ভিন্ন ভাবে চিন্তা করতে হয়।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সাকিবের তিনে ফেরার রাস্তা খুলে রেখেছেন তামিম

Read Next

যে শর্তে অবসর ভেঙে ফিরবেন মোহাম্মদ আমির

Total
20
Share