আলোচিত জার্সির ডিজাইনার শোনালেন পেছনের গল্প

আলোচিত জার্সির ডিজাইনার শোনালেন পেছনের গল্প

গতকাল (১৭ জানুয়ারি) রাত ৮ টার দিকে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশের বিশেষ জার্সি প্রকাশ করে বিসিবি (বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড)। শুরুতে জার্সিতে বাংলাদেশ লেখা না থাকলেও পরে বাংলাদেশ লেখা যুক্ত করে নতুন জার্সি প্রকাশ করে বিসিবি। স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন করতে বিসিবির এই প্রয়াস। যা বাস্তব রূপ পেয়েছে আহমেদ স্বপনের সাহায্যে।

বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান আকরাম খান এই বিষয়ে গতকাল বলেছিলেন, ‘পুরো দেশবাসীর মত আমাদের ক্রিকেট বোর্ড এবং খেলোয়াড়েরাও এটাতে যুক্ত হতে চাচ্ছে। এটা আমাদের জন্য একটা বিশেষ বছর যেহেতু স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি। এটা উদযাপন করতে আমরা জার্সির ব্যাপারটা মাথায় রেখেছি। জার্সির ডিজাইনটাও বাংলাদেশের পতাকার মতই করেছি, পুরো সবুজ এবং লাল দিয়ে করানো।’

‘এখানে অন্য কোন রঙ নেই। আমাদের পতাকায় যেমন লাল সূর্যটা আছে সেটাও আমরা তুলে ধরেছি। আমরা তুলে ধরেছি মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের পর আমাদের মুক্তিযোদ্ধা ভাইয়েরা যেভাবে উদযাপন করেছিল সেটা। এর সাথে আমাদের যে স্মৃতিসৌধ আছে সেটাও তুলে ধরা হয়েছে। আশা করি সবার এটা ভালো লাগবে।’

এই বিশেষ জার্সির ডিজাইন করেছেন আহমেদ স্বপন। ক্রিকেট৯৭ এর কার্যালয়ে এসে জার্সির ডিজাইনার জানিয়েছেন এই জার্সি ডিজাইন করার পেছনের গল্প।

আলোচিত জার্সির ডিজাইনার আহমেদ স্বপন শোনালেন পেছনের গল্প
ক্রিকেট৯৭ এর কার্যালয়ে ডিজাইনার আহমেদ স্বপন, ছবিঃ মামুন উর রশিদ

আহমেদ স্বপন বলেন, ‘এক বেসরকারি টিভি চ্যানেলে এক প্রতিবেদনে দেখি একজন ডিজাইনার বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে একটি জার্সির ডিজাইন করছে। তখনই আমার মাথায় আসে যে আমিও একটি ডিজাইন করব।’

স্বপন যোগ করেন, ‘ডিজাইন করার শুরুতে ভাবলাম কিভাবে করা যায়। সেক্ষেত্রে মুক্তিযুদ্ধকে ফোকাস করি আমি। এই জার্সিতে আমি মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নিয়েই কাজ করেছি।’

নিজ উদ্যোগে একাধিক (৮ টি) ডিজাইন করে বিসিবির কাছে পাঠিয়েছিলেন আহমেদ স্বপন। যেখানে বিসিবি ও স্বপনের মাঝে সেতু হিসাবে ছিলেন জার্সি প্রস্তুতকারক মহতাব উদ্দিন সেন্টু। স্বপনের পাঠানো ডিজাইন থেকে বিসিবি একটি ডিজাইন চূড়ান্ত করে।

মুক্তিযুদ্ধকে মাথায় রেখে প্রচলিত জার্সির চেয়ে বাইরে যেয়ে ডিজাইন করাটা সহজ ছিল না বলে জানান স্বপন। নিজে যে ৮ টি ডিজাইন করেন তার সর্বশেষটিকে বিসিবি সবুজ সংকেত দেয়।

জার্সি দেখে বিসিবি ও সাধারণ ভক্ত-সমর্থকদের প্রতিক্রিয়ায় আপ্লুত স্বপন। তিনি বলেন, ‘বিসিবি এটা পছন্দ করেছে। আর দেশের মানুষ জার্সিটা পছন্দ করেছে। এটা আমরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেই দেখতে পারছি। ৯০ শতাংশ লোকের কাছেই ভাল লেগেছে জার্সিটি। অনেকে অনেক রকম সমালোচনা করছে বটে, তবে মূল ডিজাইন নিয়ে সমালোচনার জায়গা নেই। ডিজাইনে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ফুটে উঠেছে, আমি কোন নেগেটিভ ফিডব্যাক পাইনি।’

২০১৫ সালে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) এক জার্সি ডিজাইন প্রতিযোগিতায় অংশ নেন আহমেদ স্বপন। সেদফায় স্বীকৃতি না পেলেও হাল ছাড়েননি তিনি। ২০১৮ সালে এসে বসুন্ধরা কিংসের জার্সি ডিজাইন প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়ে ১ লাখ টাকা পান তিনি। সেখান থেকে আত্মবিশ্বাস পাওয়া স্বপন বাংলাদেশ ফুটবল দলের একাধিক অনুশীলন জার্সির ডিজাইনার হয়েছেন। সর্বশেষ তো বাজিমাত করলেন সাকিব-তামিমদের জার্সির ডিজাইন করে। এই যাত্রা অব্যাহত রাখতে চান স্বপন।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের শুরুতে ডিআরএস নিয়ে সংশয়

Read Next

সাকিবকে যেকারণে তিন নম্বরে খেলাবেন না ডোমিঙ্গো

Total
7
Share