১৮ সদস্যের ওয়ানডে স্কোয়াড ও নির্বাচকের ব্যাখ্যা

১৮ সদস্যের ওয়ানডে স্কোয়াড ও নির্বাচকের ব্যাখ্যা

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের ২৪ সদস্যের স্কোয়াড ছোট হয়ে ১৮ জনে থেমেছে। করোনা পরিস্থিতিতে জৈব সুরক্ষিত বলয়ে পর্যাপ্ত বিকল্প ক্রিকেটার রাখতেই স্কোয়াডে সদস্য সংখ্যা বাড়িয়ে রাখা হয়েছে। ২০২৩ বিশ্বকাপ সামনে রেখেই তরুণ ও অভিজ্ঞদের মিশেলে দল গড়েছে নির্বাচকরা। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু জানিয়েছেন ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার প্রথম ধাপ শুরু এই সিরিজ থেকেই।

প্রথমবারের মত ওয়ানডে দলে সুযোগ হয়েছে শরিফুল ইসলাম, শেখ মেহেদী হাসান ও হাসান মাহমুদের। শরিফুল ইসলাম অবশ্য জাতীয় দলের স্কোয়াডেই ডাক পেলেন প্রথমবার। নির্বাচকদের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনায় ভালো করেই আছেন এই তিনজন। যে কারণে টিম ম্যানেজমেন্টের সাথে রেখে তাদের নিয়ে কাজ করার সুবিধার্থেই দলে জায়গা দেওয়া।

আজ (১৬ জানুয়ারি) চূড়ান্ত ওয়ানডে স্কোয়াড ঘোষণার পর গণমাধ্যমের উদ্দেশ্যে দেওয়া এক ভিডিও বার্তায় প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু বলেন, ‘আমরা তিনজন আনক্যাপড দিয়েছি, এটা পরিকল্পনার অংশ। এ সিরিজ থেকেই আমরা শুরু করছি। ওদের তৈরি করা এবং টিম ম্যানেজমেন্টের সাথে রেখে কাজ করানোর জন্যই এই তিনজন আনক্যাপড রাখা হয়েছে।’

১৮ জনের বড় স্কোয়াডের ব্যাখায় তিনি যোগ করেন, ‘১৮ জনের স্কোয়াড, কোভিড পরিস্থিতি মাথায় রেখেই আমরা স্কোয়াডটা বড় করেছি। দরকার আছে কারণ কে কখন অসুস্থ হয়, আসলে এ চিন্তা করেই স্কোয়াডটা বড় করেছি। সবকিছু মিলিয়ে আমি মনে করি আমাদের পরিকল্পনার প্রথম ধাপ শুরু হল এই সিরিজ থেকে। আশা করছি এই সিরিজে ইতিবাচক ক্রিকেট খেলে ভালো ক্রিকেটটা দেখতে পারবো।’

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

বড় পরিকল্পনার শুরুটা হচ্ছে ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। ভালো একটা সিরিজের প্রত্যাশা প্রধান নির্বাচকের, ‘২০২৩ বিশ্বকাপ আছে ওয়ানডে, সেটার একটা পরিকল্পনা আছে। এখন আমরা চিন্তা করছি সিরিজ বাই সিরিজ যাবো। যেহেতু আমরা ওয়েস্ট ইন্ডিজকে পেয়েছি প্রথমেই ঘরের মাঠে আমরা চাই ভালো ক্রিকেটটা খেলে সিরিজটা শুরু করতে।’

দলে সব বিভাগেই ভারসাম্য রাখা হয়েছে উল্লেখ করে মিনহাজুল আবেদিন নান্নু আরও বলেন, ‘এখানে সব ধরণের কম্বিনেশন রাখা হয়েছে, পেস বোলিং, স্পিন যখন যে প্ল্যানটা দরকার হবে যে ম্যাচটায় দরকার হবে তখনই রিপ্লেস করা হবে। টিমের কম্বিনেশন যথেষ্ট ভালো। ব্যাটিং, বোলিং সব দিক দিয়ে একটা ভারসাম্য রাখা হয়েছে। আমি বিশ্বাস করি এই দল আমাদের ভালো একটা সিরিজ উপহার দিবে।’

লম্বা বিরতির পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরা এবং ঘরের মাঠে বলেই প্রত্যাশার চাপ থাকবে ক্রিকেটার এমনটাই মনে করেন প্রধান নির্বাচক। তবে তরুণ ও অভিজ্ঞদের সমন্বয়ে গড়া দল নিয়ে বেশ আশাবাদী মিনহাজুল আবেদিন নান্নু।

তার মতে, ‘আমাদের জন্য একটা ফ্রেশ শুরু করা। কারণ একটা লম্বা বিরতি গিয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এত বড় গ্যাপ মানে নতুন করে শুরু করার অর্থ শূন্য থেকে শুরু করা। সে হিসেবে প্লেয়ারদের উপর একটা চাপ অবশ্যই থাকবে, চ্যালেঞ্জ নিয়ে খেলতে হবে।’

‘যেহেতু আমরা ঘরের মাথে খেলছি আরও বেশি চ্যালেঞ্জের। প্রত্যাশা থাকবে ভালো ক্রিকেট খেলা। আমার বিশ্বাস আমাদের প্লেয়াররা যথেষ্ট অভিজ্ঞ আছে। নতুন এবং পুরাতন মিলিয়ে অভিজ্ঞতার দিক দিয়ে ভালো একটা দল হয়েছে। আমি আশা করছি এই সিরিজে আমরা ভালো ক্রিকেট উপহার দিতে পারবো।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

তামিমদের কাছে পাত্তা পেল না মাহমুদউল্লাহ একাদশ

Read Next

ভ্যাকসিন অগ্রাধিকার তালিকায় ক্রিকেটাররা

Total
8
Share