দশের মধ্যে নয়বার যা দেখবেন তা দিয়েই ব্যাটিং অর্ডার সাজাবেন সিমন্স

দশের মধ্যে নয়বার যা দেখবেন তা দিয়েই ব্যাটিং অর্ডার সাজাবেন সিমন্স

বাংলাদেশ সফরের আগে করোনা শঙ্কা ও ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট ও ওয়ানডে দলের নিয়মিত অধিনায়ক সহ বেশিরভাগ সিনিয়র ক্রিকেটার নাম সরিয়ে নেন। কাইরন পোলার্ড, জেসন হোল্ডারদের সাথে নিকোলাস পুরান, ড্যারেন ব্রাভো, শাই হোপ, এভিন লুইসদের জায়গায় অনভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের নিয়ে বাংলাদেশে এসেছে ক্যারিবিয়ানরা। ফলে ব্যাটিং অর্ডার সাজানোর ক্ষেত্রে বেশ বিপাকে পড়ার কথা টিম ম্যানেজমেন্টের। কোচ ফিল সিমন্স অবশ্য খুঁজে নিয়েছেন উপায়।

সিনিয়র ও নিয়মিত ক্রিকেটারদের অনপুস্থিতিতে ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট, জার্মেইন ব্ল্যাকউড, রুমাহ বোনার, জন ক্যাম্পবেল, জশুয়া ডা সিলভা, জামার হ্যামিল্টন, আকিল হোসেনরা সামলাবেন দায়িত্ব। এদের বেশিরভাগই অনভিজ্ঞ বলে খুব কাছ থেকে দেখার সুযোগ কমই ছিল কোচ ফিল সিমন্সের। সেক্ষেত্রে নিয়মিত স্কোয়াডের বাইরে ব্যাটিং অর্ডার সাজানোর জন্য সিরিজ শুরুর আগে অনুশীলন সেশনই ভরসা সিমন্সের।

তার মতে অনুশীলনে ১০ বারে ৯ বার যা দেখবেন তার ভিত্তিতেই সাজাবেন ব্যাটিং অর্ডার। গত ১০ জানুয়ারি বাংলাদেশে পৌঁছানো ওয়েস্ট ইন্ডিজ বর্তমানে আছে কোয়ারেন্টাইনে। আজ (১২ জানুয়ারি) এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন ক্যারিবিয়ান কোচ।

অনভিজ্ঞ স্কোয়াডের ব্যাটিং অর্ডার সাজানো প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘দশের মধ্যে নয়বারই অনুশীলনে কি দেখছি সেটার ভিত্তিতে সাজানো হবে। অধিনায়ক আছে মিডল অর্ডার অথবা লেট মিডল অর্ডারে। আমরা তাঁর আশেপাশেই দলের ভারসাম্য দাঁড় করাতে চাইব। নির্ভর করছে আমরা অনুশীলনে কেমন করছি। এখানকার কন্ডিশনে কে কেমন থাকে সেটিও দেখা হবে। আমরা মূল মাঠের পাশের মাঠেই অনুশীলন করব। কন্ডিশন কেমন থাকে সেটাও দেখা হবে। দেখি শুরুটা কেমন হয়।’

মূল ক্রিকেটাররা না থাকলেও তরুণ ও নতুন সুযোগ পাওয়া ক্রিকেটারদের মধ্যে ভারসাম্য রক্ষা করা হয়েছে বলে জানান ফিল সিমন্স। এমনকি কন্ডিশন বিবেচনায় বাড়তি পেসার ও স্পিনার খেলার মত খেলোয়াড়ও স্কোয়াডে আছে বলছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ কোচ।

৫৭ বছর বয়সী সিমন্স যোগ করেন, ‘আমার মনে হয় আমরা ভারসাম্যপূর্ণ দল নিয়ে এসেছি। তিন স্পিনার, তিন ফাস্ট বোলার আছে আমাদের। একজন পেস বোলিং অলরাউন্ডার আছে। আমাদের দলে সব দিক থেকেই ভারসাম্য আছে। এখন আমরা তিন ফাস্ট বোলার, দুই স্পিনার নাকি দুই ফাস্ট বোলার, তিন স্পিনার নিয়ে যাই, এই সিদ্ধান্তটা এখনো নেওয়া হয়নি। ম্যাচের আরও কিছুদিন আগে আমরা এসব নিয়ে ভাবব।’

দলের নতুন সদস্যদের কাছে কোচের চাওয়া মানসিকতা ও দল জেতানো পারফরম্যান্স, ‘প্রথমত পারফরম্যান্স। হয়তো একটা ম্যাচ জয়ের জন্য শুধু ফিফটি দরকার। এটাই হয়তো বড় সাহায্য করবে। কারণ দল জিতেছে আর আপনি জেতায় বড় ভূমিকা রেখেছেন। মানসিকতা ও পারফরম্যান্স, আপনি এটাই দেখতে চান যখন দলে নতুন কেউ আসে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজ দিয়ে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি শুরু করবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ

Read Next

অবসর ভেঙে অস্ট্রেলিয়ায় যেতে প্রস্তুত শেবাগ

Total
5
Share