ক্ষুধার্ত ক্যারিবিয়ানরা পরাস্ত করতে চায় বাংলাদেশকে

ক্ষুধার্ত ক্যারিবিয়ানরা পরাস্ত করতে চায় বাংলাদেশকে

করোনা আশঙ্কা ও ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে বাংলাদেশ সফর থেকে নাম সরিয়ে নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজের টেস্ট ও ওয়ানডে অধিনায়ক সহ বেশিরভাগ সিনিয়র ক্রিকেটার। ফলে খর্ব শক্তির দল নিয়ে ঘরের মাঠে বাংলাদেশকে কতটা চ্যালেঞ্জ জানাতে পারবে ক্যারিবিয়ানরা তা নিয়ে ছিল সংশয়। তবে দলটির কোচ ফিল সিমন্স বলছেন তার দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে আছে জয়ের ক্ষুধা, তার মতে তীব্র জয়ের ক্ষুধা পরাস্ত করতে পারে অভিজ্ঞতাকেও।

দুর্বল দল নিয়েই ওয়ানডে সিরিজ জয়ের লক্ষ্যে বাংলাদেশে এসেছে ক্যারিবিয়ানরা। দলের তরুণ ক্রিকেটারদের মধ্যে সাফল্যের ক্ষুধা বেশি বলে তাদের অনুপ্রাণিত করা সহজ বলছেন ফিল সিমন্স। তবে বাংলাদেশকে স্পষ্টভাবে ফেভারিট উল্লেখ করে কাজটা কঠিন হবে মানছেন ক্যারিবিয়ান কোচ।

গত ১০ জানুয়ারি বাংলাদেশে আসা ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল বর্তমানে কোয়ারেন্টাইনে আছে হোটেলে। সরকারি অনুমতি সাপেক্ষে দিন কয়েকের মধ্যে অনুশীলন শুরু করার কথা সফরকারীদের। তার আগে আজ (১২ জানুয়ারি) এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে দলটির কোচ নিজেদের শক্তিমত্তা, উদ্দেশ্য ও তরুণ ক্রিকেটারদের নিয়ে কথা বলেন কোচ ফিল সিমন্স।

বাংলাদেশে ওয়ানডে সিরিজ জয়ের উদ্দেশ্যে এসেছেন উল্লেখ করে ফিল সিমন্স বলেন, ‘আমরা ওয়ানডে সিরিজ জয়ের উদ্দেশ্যেই ক্যারিবিয়ান ছেড়েছি। আপনারা হয়ত বলছেন আমাদের পুরো দল নেই কিন্তু আমাদের এমন একটি দল আছে যারা এই কন্ডিশনে জয়ের জন্য ক্ষুধার্ত।’

‘যে কোনো সিরিজ খেলার আগে উদ্দেশ্যটা থাকে সিরিজ জয়ের। প্রতিটি দল তাদের ঘরের মাঠে ভালো খেলে। সেদিক থেকে কাজটা সহজ হবে না। তবে প্রথম দায়িত্ব হচ্ছে সিরিজ জয় করা। দ্বিতীয়ত, আমাদের ক্রিকেটারদের প্রস্তুত হওয়ার সুযোগ করে দিতে হবে। আমরা যদি ভালো প্রস্তুতি নেই, তাহলে ঢাকা ও চট্টগ্রামে ভালো করার সুযোগ থাকবে।’

দলের বেশিরিভাগ ক্রিকেটারই অনভিজ্ঞ, তাদের সম্পর্কে কোচের মূল্যায়ণ, ‘এই ছেলেদের অনুপ্রাণিত করা কঠিন না। এখানে যারা আছে তাদের সবাই সাফল্যের জন্য ক্ষুধার্ত। তাঁরা জায়গা দখল করতে চায়। আগেও বলেছি, সামনে আমাদের অনেক খেলা আছে এই বছর। সবাই সেদিক থেকে বেশ অনুপ্রাণিত।’

অভিজ্ঞতার বিচারে বাংলাদেশ এগিয়ে থাকলেও ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটারদের সাফল্যের ক্ষুধাকে পুঁজি হিসেবে দেখছেন ফিল সিমন্স, ‘বাংলাদেশ স্পষ্ট ফেভারিট কারণ তারা ঘরের মাঠে ভালো খেলে। আমরা এটির সাথে দ্বিমত করতে পারি না। অভিজ্ঞতা গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু কিছু কিছু সময় উৎসাহ এবং জয়ের ক্ষুধা অভিজ্ঞতাকে পরাস্ত করে। আমাদের কিছু অভিজ্ঞ ক্রিকেটার রয়েছে।’

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ সফরে তিনটি ওয়ানডে ও দুইটি টেস্ট খেলবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আগামী ২০ জানুয়ারি মাঠে গড়াবে ওয়ানডে সিরিজ। ২০ ও ২২ জানুয়ারি যথাক্রমে প্রথম ও দ্বিতীয় ওয়ানডে অনুষ্ঠিত হবে মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। সিরিজের শেষ ওয়ানডে ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ২৫ জানুয়ারি চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে।

৩ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া প্রথম টেস্টের ভেন্যুও জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম। তবে ১১ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচ মাঠে গড়াবে মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

পেসারদের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা, দলে সুযোগ পাওয়া হবে কষ্টকর

Read Next

হোল্ডার-পোলার্ডদের সিদ্ধান্তে ভুল দেখছেন না ক্যারিবিয়ান কোচ

Total
5
Share