দুর্বল ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল নিয়ে নয়, নিজেদের নিয়ে ভাবনা বিসিবির

বাংলাদেশ সফরের জন্য ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্কোয়াড ঘোষণা

করোনা পরবর্তী দীর্ঘ বিরতি শেষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। তবে প্রত্যাবর্তনের সিরিজেই বাংলাদেশ পাচ্ছে খর্ব শক্তির ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলকে। করোনা আশঙ্কা ও ব্যক্তিগত কারণে সফর থেকে নাম সরিয়ে নিয়েছেন নিয়মিত টেস্ট ও ওয়ানডে অধিনায়ক সহ বেশিরভাগ গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটার। কিন্তু খর্ব শক্তির দল হলেও সেটা নিয়ে না ভেবে নিজেদের খেলায় মনযোগ দিতে চায় বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবির) ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান আকরাম খান মনে করেন কেমন দলের বিপক্ষে খেলছে তার চাইতে কিভাবে খেলবে সেটাতেই নজর তাদের। আবার প্রতিপক্ষ দুর্বল বলে অতি আত্মবিশ্বাসীও হতে নারাজ বিসিবির এই পরিচালক।

আজ (৬ জানুয়ারি) গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, ‘এখানে হয়তো ওদের কিছু নামকরা খেলোয়াড় আসছে না, হয়তো প্রতিষ্ঠিত ক্রিকেটার আসছে না। তার মানে এটা না যে ওয়েস্ট ইন্ডিজের অন্য প্লেয়াররা ওই পর্যায়ের না। ওদের স্ট্যান্ডার্ড কিন্তু অনেক ভালো। গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে আপনি কিভাবে খেলছেন, আপনার দলের খেলোয়াড়েরা কিভাবে খেলছে, ওদের অ্যাপ্রোচ কেমন, ওরা ফর্মে আছে কিনা এটা হলো গুরুত্বপূর্ণ।’

‘সুতরাং এদিক থেকে আমরা অনেকদিন থেকেই চিন্তা করছি, আপনাদের বঙ্গবন্ধুতে (বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ) কোচও ছিল, আমরা আলাপ আলোচনা করছি। সবার শেষ হলো যে মাঠের ভেতরে যারা থাকবে তাদের পারফরম্যান্সটা গুরুত্বপূর্ণ। আশা করি বাংলাদেশ ভালো করবে।’

‘ওয়েস্ট ইন্ডিজের ভালো টিমের সঙ্গেও আমরা জিতেছি। কিন্তু খারাপ দলের সঙ্গে যে জিতবো এমন কোন কথা নেই। জরুরি হচ্ছে আমাদেরকে ভালো খেলতে হবে। সেদিকেই আমরা মনযোগ দিচ্ছি। যেন আমরা বোলিং ব্যাটিং ফিল্ডিং তিন বিভাগেই আমরা যেন ভালো ভাবে খেলতে পারি এবং এটাও আমাদের মাথায় রাখতে হবে যে অনেকদিন পর আমরা টেস্ট এবং ওয়ানডে খেলবো।’

ক্যারিবিয়ান দলে সুযোগ পাওয়া নতুন ক্রিকেটাররা নিজেদের প্রমাণের লক্ষ্যে টাইগারদের বিপক্ষে সেরাটা দিতে চাইবে। যে কারণে চ্যালেঞ্জটা দুই পক্ষের জন্যই সমানে সমান হবে বলে মত আকরাম খানের। করোনা ভাইরাস প্রভাবে খেলোয়ায়ড়দের পারফরম্যান্সের সাথে জৈব সুরক্ষিত বলয় নিয়েও ভাবতে হচ্ছে বলে কাজটা কঠিন বলেই মনে করেন ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান।

তিনি বলেন, ‘দুই পক্ষের জন্যই বিষয়টি চ্যালেঞ্জিং। ওদের জন্যও যেমন চ্যালেঞ্জ নতুন খেলোয়াড়রা সুযোগ পেয়েছে ওরা নিজেদের শতভাগের চেয়েও বেশি দিবে। সেটা আমাদের জন্য আরো বড় একটা চ্যালেঞ্জ।’

‘আরেকটি জরুরি বিষয় যে আগে আমরা খেলোয়াড়দের খেলার পারফরম্যান্সের দিকে বেশি নজর দিতাম। কিন্তু এখন কোভিডের কারণে যে জৈব সুরক্ষা বলয় তৈরি করা হচ্ছে তা আল্লাহর রহমতে সফলভাবে যেন করতে পারি। কারণ আপনারা জানেন দক্ষিণ আফ্রিকা-ইংল্যান্ডের সিরিজ কিন্তু পুরোপুরি শেষ করতে পারেনি। তো সেটাও আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

যেকারণে বাংলাদেশে আসতে পারছেন না ‘বেচারা’ ভেট্টোরি

Read Next

টেস্ট র‍্যাংকিংয়ে আফগানদের চেয়ে পিছিয়ে পড়েও চিন্তিত নয় বিসিবি

Total
1
Share