সিনিয়র-জুনিয়র ব্যালেন্স ঠিক রাখতে নির্বাচকদের প্রয়াস

সিনিয়র-জুনিয়র ব্যালেন্স ঠিক রাখতে নির্বাচকদের প্রয়াস

বাংলাদেশ ক্রিকেটের ভবিষ্যত ভাবনা মাথায় রেখেই দল গুছাতে শুরু করেছে নির্বাচকরা। বিশেষ করে দলের সিনিয়র ক্রিকেটারদের অবর্তমানে হাল ধরার মত তরুণ ক্রিকেটার প্রস্তুতের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে কাজও শুরু হয়েছে। আসন্ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের প্রাথমিক স্কোয়াড ঘোষণা হল এমন চিন্তা থেকেই।

আজ (৪ জানুয়ারি) ঘোষিত ওয়ানডের জন্য ২৪ সদস্যের প্রাথমিক দলে জায়গা হয়নি মাশরাফি বিন মর্তুজার। অন্যদিকে টেস্ট স্কোয়াড থেকে জায়গা হারিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। এদিকে ওয়ানডে স্কোয়াডে বেশ কিছু তরুণের সাথে সুযোগ হয়েছে যুব বিশ্বকাপ জয়ী দলে শরিফুল ইসলাম ও পারভেজ হোসেন ইমনের।

যুব বিশ্বকাপ জয়ী দলের বেশিরভাগ সদস্যই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবির) হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) ইউনিটে সুযোগ পেয়েছেন আগেই। মূলত বর্তমান জাতীয় দলের সিনিয়রদের জায়গা দখলের লড়াই হবে এদের মধ্য থেকেই। নির্বাচকরাও বিভিন্ন স্কোয়াড ঘোষণায় তাই ভারসাম্য রাখার চেষ্টা করছেন।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের স্কোয়াড ঘোষণা শেষে আজ মিরপুরে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমন বলেন, ‘সেরা পাঁচ (মাশরাফি, সাকিব, তামিম, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ) যে সিনিয়র প্লেয়ার আছে তারা তো যতদিন সার্ভিস দিতে পারে খুব ভালো। এই সালের পরে তো আমাদের চিন্তা করতে হবে।’

‘নতুনদের আমরা গড়ে দিচ্ছি এদের ছত্রছায়ায়। আমরা চাই না ওরা যখন আসবে তখন যেন সিনিয়র প্লেয়াররা না থাকে। এই জন্য আমরা ছোট ছোট করে একটা একটা করে টিমে অন্তর্ভূক্ত করছি যাতে ব্যালেন্সটা ঠিক থাকে। আর যদি সবকিছু ঠিকঠাক থাকে তাহলে হয়ত আমরা সামনে অনেক খেলা পাবো ন্যাশনাল টিমের বাইরে এইচপি, এ দলের খেলা পাবো।’

তবে গড়ে তোলার এই মিশনে সবার আগে সুযোগটা এলো বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলাম ও বাঁহাতি ব্যাটসম্যান পারভেজ হোসেন ইমনের। কিন্তু সাম্প্রতিক কোন টুর্নামেন্ট নয় বেশ কয়েক বছর ধরেই ধারাবাহিকতা বজায় রেখে নজর কেড়েছেন নির্বাচকদের।

হাবিবুল বাশার বলেন, ‘এখন যে আন্তভূক্তিটা হয়েছে তা গত ২/৩ বছরের উপর শুধু এই টুর্নামেন্টের উপর নির্ভর করে না। শুধু এই (বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ ও বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ) ম্যাচগুলো না, আমরা কিন্তু এদের অনেকদিন ধরে ফলো করছি। হাই পারফম্যান্সের যে প্লেয়ারগুলো দেখছেন তারা কিন্তু দুই বছর ধরে আছে।’

‘অনুর্ধ্ব ১৯ থেকে নতুন একটা ইউনিট যুক্ত হয়েছে। ওরা এখানে সুযোগ পেয়েছে ওদেরকে সামনে দেখব। আর যারা এই দলে আছে আপনারা দেখেন তারা কিন্তু কম বেশি তিন চার বছর ধরে আমাদের পাইপলাইনে আছেন। তাদেরকে আমরা ধীরে ধীরে গড়ে তুলছি।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের প্রস্তুতি ক্যাম্প শুরু হবে ১০ জানুয়ারি। করোনা পরীক্ষা শেষে জৈব সুরক্ষা বলয়ে প্রবেশ করবে ৭ জানুয়ারি থেকে।

স্কোয়াডে শরিফুল ইসলাম ও পারভেজ হোসেন ইমনের অন্তর্ভূক্তি প্রসঙ্গে বাশার যোগ করেন, ‘শরিফুল কিন্তু অনেক বছর ধরে ভালো খেলছে। এমনকি শরিফুল কিন্তু আমাদের ‘এ’ দলেও খেলে এসেছে। এরা কিন্তু আমাদের পাইপলাইনে আছে অনেকদিন ধরে।’

‘ইমন আমার দেখা এক্সসাইটিং ট্যালেন্ট। ওকে আমরা সুযোগ দিচ্ছি যাতে আরো দ্রুত রেডি করা যায়। ফিউচারে যেন ওকে আমরা কাজে লাগাতে পারি।’

‘আমরা যে দুটো প্রাকটিস ম্যাচ খেলব ১৪ আর ১৬ জানুয়ারি সেখানেও আমাদের একটা দল গঠন করতে হবে। এই ছেলেদের আমরা সুযোগ দিচ্ছি যাতে এদের সাথে খেলে ওরা নিজেদের প্রস্তুত করতে পারে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

যে ভাবনায় জাতীয় দলের স্কোয়াডে শরিফুল-ইমনরা

Read Next

অধিনায়কের ব্যাটে স্বপ্ন দেখছে শ্রীলঙ্কা

Total
10
Share