আইসিসির ‘দশকসেরা’ খেতাব পেলেন যারা

আইসিসির দশকসেরা খেতাব পেলেন যারা
Vinkmag ad

আইসিসি অ্যাওয়ার্ডস অব দ্য ডিকেড সিরিজে গতকাল দশক সেরা (২০১১-২০২০) দল ঘোষণা করা হয়েছিল। আজ (২৮ ডিসেম্বর) প্রকাশ করা হয়েছে দশক সেরা ক্রিকেটারদের নাম।

ভারতের তিন ফরম্যাটের অধিনায়ক ভিরাট কোহলি পেয়েছেন একাধিক খেতাব। আইসিসি দশকসেরা পুরুষ ক্রিকেটার হয়েছেন তিনি। এছাড়া আইসিসি দশকসেরা ওয়ানডে ক্রিকেটারও হয়েছেন তিনি।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

অস্ট্রেলিয়ার তারকা ব্যাটসম্যান স্টিভ স্মিথ হয়েছেন আইসিসি দশকসেরা টেস্ট ব্যাটসম্যান, আফগানিস্তানের রাশিদ খান হয়েছেন দশকসেরা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটার।

অস্ট্রেলিয়া নারী দলের তারকা অলরাউন্ডার এলিস পেরি পেয়েছেন নারীদের সম্ভাব্য সব খেতাব। আইসিসি দশক সেরা নারী ক্রিকেটার হওয়া পেরি নারীদের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে দশকসেরা হয়েছেন।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

স্কটল্যান্ডের কাইল কোয়েটজার হয়েছেন আইসিসি দশকসেরা অ্যাসোসিয়েট ক্রিকেটার। নারীদের ক্রিকেটে এই খেতাব পেয়েছেন কোয়েটজারের স্বদেশী ক্যাথরিন ব্রাইস।

দশকের যে সময়টা আমলে নেওয়া হয়েছে সেই সময়ে সব ফরম্যাট মিলে ২০৩৯৬ রান করেছেন কোহলি। ২০১১ বিশ্বকাপজয়ী দলের সদস্য কোহলি ছিলেন ভারতের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয়ী (২০১৩) দলেও। ২০১৭ ও ২০১৮ সালে আইসিসি বর্ষসেরা ক্রিকেটার হয়েছিলেন তিনি।

এই সময়ে নারীদের ক্রিকেটে পারফরম্যান্সের বিচারে সবার ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিলেন এলিস পেরি। ৪ সেঞ্চুরিতে ৪৩৪৯ রান করা পেরির আছে ২১৩ উইকেটও। ২০১৩ সালে নারীদের বিশ্বকাপজয়ী দলে ছিলেন পেরি। ২০১২, ২০১৪, ২০১৮ ও ২০২০ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জেতা দল অস্ট্রেলিয়ার হয়ে খেলেছেন তিনি। ২০১৭ ও ২০১৯ সালে আইসিসির বর্ষসেরা নারী ক্রিকেটার হয়েছিলেন তিনি।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

দশকসেরা টেস্ট ক্রিকেটার স্টিভ স্মিথ নির্ধারিত সময়ে ৬৯ টেস্টে করেছেন ৭০৪০ রান, সেঞ্চুরি ২৬ টি, গড় ৬৫.৭৯। ২০১৫ সালে বর্ষসেরা ক্রিকেটার হওয়া স্মিথ ২০১৫ ও ২০১৭ সালে বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটার হয়েছিলেন।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

১২.৬২ গড়ে ৮৯ উইকেট নিয়ে দশকসেরা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটার হয়েছেন রাশিদ খান। এই সময়ে রাশিদ খেলেছেন ৪৮ ম্যাচ। ২০১৫ সালে ক্যারিয়ার শুরু করলেও এই সময়ে তার চেয়ে বেশি টি-টোয়েন্টি উইকেট নেই আর কারো।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

রিজওয়ান-ফাহিমের ব্যাটে চড়ে ফলো অন এড়াল পাকিস্তান

Read Next

পায়ের ভাঙা আঙ্গুল নিয়ে ওয়াগনার বল করলেন ২১ ওভার

Total
4
Share