চ্যাপেলের ‘অদ্ভুতুড়ে’ বিবৃতির সঙ্গে একমত নন স্মিথ

চ্যাপেলের 'অদ্ভুতুড়ে' বিবৃতির সঙ্গে একমত নন স্মিথ
Vinkmag ad

বিতর্কিত মন্তব্যে সাবেক অজি অধিনায়ক ইয়ান চ্যাপেলের আলোচনায় থাকা নতুন কিছু নয়। ওয়ানডে সিরিজের পর ভারত-অস্ট্রেলিয়া টেস্ট সিরিজ চলাকালীনও আলোচনায় এলেন। পেসারদের দেওয়া শর্ট বলে যত আপত্তি তার, এর আগে সুইচ হিট নিয়ে মন্তব্য করেও হয়েছেন সমালোচিত। সুইচ হিট ইস্যুতে জবাব দিয়েছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, শর্ট বল ইস্যুতে দিলে স্টিভ স্মিথ।

সাম্প্রতিক সময়ে পেসাররা বাউন্সার দেওয়ার ক্ষেত্রে টেল এন্ডার কিংবা টপ, মিডল অর্ডার বিবেচনায় নেন না। উইকেট শিকারের নেশায় আগ্রাসী বোলিং করতে গিয়ে ছাড় দেন না বাউন্সার খেলতে না পারা লেজের ব্যাটসম্যানদেরও।

অ্যাডিলেড টেস্টে প্যাট কামিন্সের বাউন্সারে হাতে আঘাত পেয়ে ম্যাচ তো বটেই, সিরিজ থেকেও ছিটকে যেতে হয়েছে ভারতীয় পেসার মোহাম্মদ শামিকে। এর আগে অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দল ও ভারতের মধ্যকার প্রস্তুতি ম্যাচেও বাউন্সারের আঘাতে মাঠ ছাড়তে হয়ে অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দলের পেসার হ্যারি কনওয়েকে।

এর বাইরে পেসারদের বাউন্সারে ব্যাটসম্যানের আঘাত পাওয়ার দৃশ্য বর্তমানে সাধারণ ব্যাপার হয়ে পড়েছে। যে কারণে অন্তত লেজের ব্যাটসম্যানদের বাউন্সার না দেওয়ার আর্জি ইয়ান চ্যাপেলের।

তিনি বলেন, ‘যদি কাউকে দেখে মনে হয় সে বাউন্সার খেলতেই পারে না, তাহলে তাকে একটু নিরাপত্তা দেওয়া উচিত। আম্পায়ারের বলা উচিত, একে আউট কর, খুন করার চেষ্টা করো না।’

কিন্তু ৭৭ বছর বয়সী ইয়ান চ্যাপেলে এমন মন্তব্য একদমই পছন্দ হয়নি অস্ট্রেলিয়া ব্যাটসম্যান স্টিভ স্মিথের। এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে স্মিথ তো বলেই বসলেন প্রতি ম্যাচ শেষে অদ্ভুত সব বিবৃতি দেওয়া চ্যাপেলের অভ্যাসে পরিণত হয়ে গেছে।

স্মিথ বলেন, ‘প্রতিটা ম্যাচের পরেই অদ্ভুত সব বিবৃতি দেওয়াটা ইয়ান চ্যাপেলের অভ্যাস হয়ে যাচ্ছে। আমার চোখে শর্ট বল খেলারই অংশ। বহু বছর ধরেই দারুণ সব লড়াই (বাউন্সারের বিপক্ষে ব্যাটসম্যানদের) দেখেছি এবং আমার মনে হয় না এটা নিষিদ্ধ করা ঠিক হবে।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

সেইফার্ট-সাউদির ক্যারিয়ার সেরা রেটিং, রিজওয়ানের লম্বা লাফ

Read Next

শাদাবের সর্বনাশে গোহারের পৌষমাস

Total
1
Share