কঠিন সিদ্ধান্ত নেবার কারণ বিশদে জানালেন আমির

কঠিন সিদ্ধান্ত নেবার কারণ বিশদে জানালেন আমির

পাকিস্তানের ২৮ বছর বয়সী তারকা পেসার মোহাম্মদ আমির অবসরের সিদ্ধান্ত নেওয়ার ৩ দিন পরে জানালেন কেন তিনি এত দ্রুত এমন গুরুতর সিদ্ধান্ত নিলেন।

দিনকয়েক আগে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়, যেখানে আমিরকে বলতে দেখা যায় কীভাবে তিনি পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড দ্বারা মানসিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। পরবর্তীতে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডও আমিরের অবসরের সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

নিউজিল্যান্ড সিরিজ থেকে বাদ পড়ার জন্য অবসর নয়, বরং টেস্ট না খেলাকে কেন্দ্র করে পিসিবি ম্যানেজমেন্টের কিছু লোকের অনবরত কটূক্তিকে তিনি দায়ী করেছেন।

‘টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর নেওয়ার পর থেকে ইস্যু শুরু হয়। ২০১৯ বিশ্বকাপের পরও সবকিছু ঠিকভাবে চলছিল। কোচ মিকি আর্থারও আমার সিদ্ধান্তকে মেনে নিয়েছিলেন। তবে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে আমাকে দলে নেওয়ায় পিসিবির কিছু লোক বিভিন্নভাবে সমস্যা সৃষ্টি করছিল। অস্ট্রেলিয়ায় গিয়ে পাকিস্তান টেস্ট সিরিজ হারলো, প্রধান কোচ ও বোলিং কোচ আমার টেস্ট না খেলার বোর্ডের কাছে আমার বিরুদ্ধে বিবৃতি দিলো। এমনকি কিছু পিসিবি ব্যবস্থাপক বললো আমি নাকি তাদেরকে ফাঁকি দিচ্ছি। তারা বললো টি-টোয়েন্টি লিগ খেলার জন্য আমি টেস্ট ছেড়ে দিয়েছি। এই বিষয়টা আমি এক বছর ধরে সহ্য করছিলাম,’ নিজের ইউটিউব চ্যানেলে আমির জানান।

‘আমি কখনোই বলিনি যে টি-টোয়েন্টি লিগের জন্য পাকিস্তানের হয়ে ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি খেলবো না। পিসিবির এসব সদস্যরা বারবার এমন মিথ্যা কথা সবার কাছে ছড়াচ্ছিল। তারা সবার কাছে আমার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করছিল এবং লোকেরাও তা বিশ্বাস করে কথা বলছিল। আমি দুর্বল নই। ২০১০ এ আমার ক্যারিয়ারে অমন দুর্দশার পরও আমি ভেঙে পড়িনি। ওয়াসিম খান এবং এহসান মানির বিপক্ষে আমার কোন অভিযোগ নেই। আমার শুধু সমস্যা পিসিবি ম্যানেজমেন্টের সেসব লোকদের নিয়ে, যারা খেলোয়াড়দের সাথে বিভিন্নভাবে জড়িত।’

‘যখন আমাকে নিউজিল্যান্ড সিরিজ থেকে বাদ দেওয়া হলো, লঙ্কা প্রিমিয়ার লিগে গল গ্ল্যাডিয়েটরসের হয়ে আমি আমার কার্যক্ষমতা প্রদর্শন করতে চেয়েছিলাম। বিগ ব্যাশ লিগ থেকে হারিস রউফ পাকিস্তান দলে সুযোগ পেয়েছে। একজন খেলোয়াড় হিসেবে আমিও তা করতে চেয়েছিলাম। পারফর্ম করে দলে আমাদের জায়গা করে নিতে হয়। বর্তমান নীতিতে সামাজিক মাধ্যমের আমি জানতে পারি যে পাকিস্তান দল থেকে আমাকে বাদ দেওয়া হয়েছে। আপনারা বলতে পারতেন কেন আমাকে বাদ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আপনারা শুধুই টেস্ট ক্রিকেট নিয়ে বকবক করছেন,’ আমির বলেন।

‘পিসিবি যদি বুঝতো কেন আমি টেস্ট ক্রিকেট থেকে সরে দাঁড়িয়েছিলাম। টি-টোয়েন্টি লিগের জন্য আমি তা করিনি। পিসিবি ম্যানেজমেন্টের ঐ লোকগুলোর বারবার কটূক্তিমূলক কথা আমাকে হতাশ করছিল। আমি সবসময় পাকিস্তানের জন্য খেলতে চেয়েছি, আমি সীমিত ওভারের দুই ফরম্যাটে খেলতে চেয়েছিলাম,’ তিনি যোগ করেন।

২০০৯ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছিলেন আমির। ২০১০ সালে স্পট ফিক্সিংয়ে ৫ বছর নিষিদ্ধ হওয়ার পর ২০১৫ সালে আবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরে আসেন। গত বছর টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছিলেন এ তারকা পেসার। ৩৬ টেস্টে ১১৯ উইকেট নিয়েছিলেন। ক্যারিয়ারে ৩৬ টেস্টের পাশাপাশি ৬১ ওয়ানডে এবং ৫০টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে ২৫৯ উইকেট নিয়েছেন। নভেম্বরে নিউজিল্যান্ড সিরিজ থেকে বাদ পড়ার পর সর্বশেষ লঙ্কা প্রিমিয়ার লিগের রানার্সআপ গল গ্ল্যাডিয়েটরসের হয়ে তাকে খেলতে দেখা যায়।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ফরহাদ রেজার ফোন, প্রথম শ্রেণির অভিষেক ও মুশফিকের সেরা প্রাপ্তি

Read Next

র‍্যাংকিংয়ে শীর্ষ পাঁচে ফিরলেন জশ হ্যাজেলউড

Total
4
Share