মিঠুনের অধিনায়কত্ব নিয়ে ভুল ভাঙালেন সালাউদ্দিন

মোহাম্মদ মিঠুন- গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম
Vinkmag ad

মোহাম্মদ মিঠুনের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের ফাইনালে উঠেছে গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম। বেশ দাপটের সাথে খেলেই শিরোপা জয়ের লড়াইয়ে আগামীকাল জেমকন খুলনার মুখোমুখি হচ্ছে তারা। লিগ পর্বের ৮ ম্যাচে ৭ জয় দলটির, একমাত্র হার সঙ্গী হয় ৬ষ্ঠ ম্যাচে এসে। প্রথম কোয়ালিফায়ারে হেরে অবশ্য কেবল অপেক্ষাটাই বেড়েছিল, দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে বেক্সিমকো ঢাকার বিপক্ষে পেয়েছে সহজ।

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহিম, তামিম ইকবাল, নাজমুল হোসেন শান্তদের ভীড়ে অধিনায়ক হিসেবে মিঠুনের নাম দেখে টুর্নামেন্টের শুরুতে অবাক হয়েছিল অনেকেই। তার অধিনায়কত্ব নিয়ে জাগা সংশয় কেটেছে টুর্নামেন্ট মাঠে গড়ানোর পরই। দারুণ সাফল্য পাওয়া মিঠুন অবশ্য একদমই অধিনায়কত্বে আনকোরা এমনটা ভুল ধারণা বলছেন দলটির কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন।

মিঠুনের অধিনায়কত্বের মাথা ভালো বলেও অবিহিত করেন সালাউদ্দিন। মিঠুনের সাথে লিটন দসের দারুণ বোঝাপড়া দলকে সাফল্য পেতে সাহায্য করেছে বলে জানান চট্টগ্রাম কোচ।

মিরপুরে আজ (১৭ ডিসেম্বর) গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে সালাউদ্দিন বলেন,

‘আমার মনে হয় এটা ভুল ধারণা যে মিঠুন আগে অধিনায়কত্ব করেনি। মিঠুন কিন্তু আমার মনে হয় ঘরোয়া ক্রিকেটে অনেকগুলো ম্যাচে অধিনায়কত্ব করেছে, ভালো গ্রুপেও করেছে, আবাহনীতেও করেছে। তো আমার মনে হয় এটা সবারই একটা ভুল ধারণা যে মিঠুন আগে কখনো অধিনায়কত্ব করেনি। আমার মনে হয় যে মিঠুনের মাথা খুবই ভালো এবং খুব ভালো সিদ্ধান্ত নিতে পারে।’

‘আমার প্লেয়াররাও বুঝতে পেরেছে যে মিঠুনের মাথা খুবই ভালো। সেদিক দিয়ে লিটনেরও অনেক প্রশংসা করতে হবে। তারা দুইজন মাঠে ছিল বলে আমাদের ছেলেদের জন্য অনেক সুবিধা হয়েছে, অনেক সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুবিধা হয়েছে।। সবদিক দিয়ে বলবো অধিনায়কত্ব করার মত উপকরণ তার আছে। সে যদি ভালো ক্রিকেট খেলে, তাহলে তার অধিনায়ক হওয়ার মত যোগ্যতা আছে।’

এদিকে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএলে) দুইবার শিরোপা জয়ী কোচ সালাউদ্দিন ফাইনালের চাপ সামলানোর মন্ত্র ভালো করেই জানেন। তবে মাঠে ক্রিকেটাররাই খেলবেন বলে নিজের অতীত অভিজ্ঞতার চাইতে ফাইনালে জেমকন খুলনার বিপক্ষে মাঠের ক্রিকেটকেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন এই কোচ।

তিনি বলেন,

‘আমি যতবারই চ্যাম্পিয়ন হই, সেটা কিন্তু কোন লাভ নাই আসলে। কারণ টুর্নামেন্ট চ্যাম্পিয়ন হতে গেলে কতগুলো বিষয় নির্ভর করে। যারা ফাইনালে আসছে, দুই দলেই কিন্তু বেশিরভাগই অভিজ্ঞ খেলোয়াড়। এখানে কিন্তু খুব বেশি তরুণ খেলোয়াড় পাবেন না। আমি মনে করি টি-টোয়েন্টি হচ্ছে অভিজ্ঞ খেলোয়াড়ের খেলা।’

‘মাঠের ভিতরে যাদের যত ভালো মাথা থাকবে, তারাই ম্যাচ জিতবে। সেদিক দিয়ে খুলনা অনেক এগিয়ে আছে। কারণ তাদের অনেকগুলো বড় বড় ক্রিকেটার আছে। আমাদের ছেলেদের হয়তো ঐ অভিজ্ঞতা নাই, খুব বেশি ফাইনাল ম্যাচও তারা খেলেনি।’

মাঠে দর্শক না থাকাটা তার দলকে চাপ সামলাতে সাহায্য করবে উল্লেখ করে যোগ করেন,

‘যেহেতু দর্শক নাই, এটা একটা বড় ধরণের সুবিধা। দর্শক থাকলে হয়তো একটু চিন্তার বিষয় ছিল। কারণ ঐ চাপটা নেওয়া ছেলেদের জন্য অনেক কঠিন হয়ে যেত। দর্শক না থাকায় একটু শান্তিতে আছি। পুরা টুর্নামেন্টে আমাদের একটা ধারাবাহিকতা ছিল, এ ম্যাচটাও সেভাবে খেলতে পারলে আমাদের একটা ভালো সুবিধা থাকবে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

রাহানের ভুল কলে অ্যাডিলেডে ১ম দিন অস্ট্রেলিয়ার

Read Next

দুই সিরিজের জন্য শ্রীলঙ্কার টেস্ট দল ঘোষণা

Total
18
Share