অভিমানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলছেন আমির

মোহাম্মদ আমির
Vinkmag ad

পাকিস্তান টিম ম্যানেজমেন্টের ওপর অভিমান করে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলতে চলেছেন পাকিস্তানের তারকা পেসার মোহাম্মদ আমির।

নিউজিল্যান্ড সফরে দলে জায়গা না পাওয়ার পর সামাজিক মাধ্যমে হতাশা প্রকাশ করেন আমির। সম্প্রতি টুইটারে প্রধান কোচ মিসবাহ উল হক এবং বোলিং কোচ ওয়াকার ইউনুসের স্বল্প জ্ঞানেরও সমালোচনা করেন তিনি।

খেলার ব্যস্ততা কমাতে ২০১৯ সালের জুলাইয়ে টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর নেন আমির। তবে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে নিজেকে সচল রেখেছিলেন তিনি।

এ পাকিস্তানি পেসার ৩৬ টেস্টে ১১৯ উইকেট নিয়েছেন। ২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে অভিষেকের পর ক্যারিয়ারে অনেক চড়াই উৎড়াই গিয়েছে তার। ৬১ ওয়ানডেতে ৮১ উইকেটের পাশাপাশি ৫০টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ৫৯ উইকেটও নিয়েছেন এ বামহাতি ফাস্ট বোলার।

পাকিস্তানের স্থানীয় এক গণমাধ্যমকে দেওয়া এক ভিডিও বার্তায় অভিমানী আমির বিভিন্ন দিক সামনে আনেন।

আমির বলেন, ‘লোকেরা আমার বয়স এবং অবসর (টেস্টে) নিয়ে কথা বলে। তারা বুঝতে পারে না আমি ৫ বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলিনি (নিষেধাজ্ঞার কারণে)। আপনি যদি আপনার গাড়ি এক সপ্তাহ না চালান, তাহলে আপনি তেল পরিবর্তন করেও আগের মত গতিতে চালাতে পারবেন না,’ আমির বলেন।

‘ম্যানেজমেন্ট (পাকিস্তান) আমাকে সবসময় টেনশনে রাখছিল,মানসিক অশান্তি দিচ্ছিলো। তারা বলছে আমার উপর অনেক খরচ করছে। তারা বুঝতে পারছে না আমি ৫ বছর ক্রিকেট থেকে বাইরে ছিলাম,জেল খেটেছি। জেল বের হওয়ার পর আমার উপর শুধুমাত্র শেঠি সাহেব এবং শহীদ আফ্রিদি ভরসা রেখেছিল। এই দুইজনের প্রতি আমি চিরকৃতজ্ঞ। অন্যরা তো আমার সাথে খেলতেই চায়নি।’

‘কে না চায় নিজের দেশে হয়ে খেলতে। আমি তো অবশ্যই নিজের দেশের হয়ে খেলতে চাই। লোকেরা বলে আমি শুধু লিগ খেলতে চাই। আমি ফর্মেই এসেছি লিগ থেকে। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) ভালো খেলেই তো দলে জায়গা পেলাম। আমি তো সাদা বলে পাকিস্তানের জন্য সর্বাত্নক চেষ্টা করছিলাম।’

‘কিন্তু ১,২ মাস আমাকে নিয়ে কড়া কথা বলছিল ম্যানেজমেন্ট। স্বাধীনভাবে খেলার সুযোগ পাচ্ছিলাম না। মনে হচ্ছিল আমি কারাগারেই আছি। তারা বলে আমি তাদের ভবিষ্যতের পরিকল্পনায় নেই। এসব ভেবে আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এক দুই দিন পরে আমি পাকিস্তানে গিয়ে পরিবারের সাথে সময় কাটাবো। তখন আপনাদের বিস্তারিত জানাবো (অবসর প্রসঙ্গে)। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানাব।’

এর আগে ২০১৯ সালে টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসরের সময় ক্রিকেট পাকিস্তানকে আমির জানিয়েছিলেন, ‘অনেক ম্যাচের ঝক্কি ঝামেলা কমাতে আমি এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছিলাম। ফিটনেস সমস্যায় ভুগছিলাম। আমাদের ফিজিও থেরাপিস্ট ক্লিফ ডিকন বলেছে আমার চিকিৎসা নেওয়াটা সর্বপ্রথম দরকার। ২০১৮ সালের ইংল্যান্ড ট্যুরে সে আমাকে জানিয়েছিল। যদি আমি সব ধরণের ক্রিকেট খেলি, তাহলে আমাকে দ্রুতই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরে যেতে হবে।’

সম্প্রতি লঙ্কা প্রিমিয়ার লিগের রানার আপ গল গ্ল্যাডিয়েটর্সের হয়ে ১০ ম্যাচে ১১ উইকেট নিয়েছেন আমির।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

হতাশ ওয়ার্নার ফিরবেন বক্সিং ডে টেস্টে

Read Next

দেশী কোচদের পারিশ্রমিক নিয়ে লজ্জিত সালাউদ্দিন

Total
297
Share