কঠিন সময় পার করা মাশরাফির সাফল্যে কোন রহস্য নেই

কঠিন সময় পার করা মাশরাফির সাফল্যে কোন রহস্য নেই
Vinkmag ad

সোমবার বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের প্রথম কোয়ালিফায়ারে ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে জেমকন খুলনাকে ফাইনালে তুলতে ভূমিকা রেখেছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। তার ৫ উইকেট শিকারের দিনে গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামকে ৪৭ রানে হারিয়েছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল। ম্যাচ শেষে মাশরাফি জানিয়েছেন আত্ববিশ্বাস জুগিয়েছে দলের অন্য সিনিয়র ক্রিকেটাররা। বোলিংয়ের ক্ষেত্রে জোর দিয়েছেন ঠিক জায়গায় বল করে যাওয়ার দিকে।

করোনার দীর্ঘ বিরতি শেষে মাশরাফি বিন মর্তুজার মাঠের ক্রিকেটে প্রত্যাবর্তন ছিল বেশ নাটকীয়। তবে টুর্নামেন্টের মাঝপথে জেমকন খুলনায় অন্তর্ভূক্ত হওয়া দেশের অন্যতম সফল এই অধিনায়ক বল হাতে ছিলেন দারুণ ধারাবাহিক। লিগ পর্বে সুযোগ পাওয়া দুই ম্যাচে উইকেট মাত্র দুইটি, কিন্তু গতির সাথে আপোশ করে নেওয়া মাশরাফির ইকোনোমি ছিল টি-টোয়েন্টি বিবেচনায় বেশ প্রশংসনীয়।

আর সোমবার তো গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের পাঁচ ব্যাটসম্যানকে বোকা বানিয়ে পথ দেখিয়েছেন সাজঘরের। ৩৫ রানে ৫ উইকেট শিকার করে পেছনে ফেলেছেন স্বীকৃত টি-টোয়েন্টিতে নিজের আগের সেরা বোলিং ফিগারকে (১১ রানে ৪ উইকেট)। তবে এই টুর্নামেন্টে মাশরাফির খেলা নিয়েই সংশয় তৈরি হয়েছিল। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে করোনা পজিটিভ হওয়া দেশের অন্যতম সেরা এই পেসার অনুশীলন শুরু করতে গিয়েই পড়েন হ্যামস্ট্রিং চোটে।

চোটের কারণে ছিলেন না প্লেয়ার্স ড্রাফটে। তবে চোট কাটিয়ে অনুশীলন শুরু করতেই দলগুলো আগ্রহ দেখানোর শুরু করে। ড্রাফটে নাম না থাকলেও ফিট হলে যেকেউই তাকে নিতে পারবে বলে জানিয়েছিল প্রধান নির্বাচক। একাধিক আগ্রহ প্রকাশ করলে হবে লটারি। লটারিতেই মাশরাফির ভাগ্য নির্ধারণ হয় সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের জেমকন খুলনায়।

সোমবার ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতা পারফরম্যান্সের পর মাশরাফি জানিয়েছেন যাত্রাটা সহজ ছিলনা। তিনি বলেন, ‘ক্রিকেট মানসিকতার কথা। তবে সময়টা কঠিন ছিল। করোনা পজেটিভ হওয়া সহজ ছিল না। আমি ফিট হওয়ার চেষ্টা করছিলাম। এরপর আমি হ্যামস্ট্রিং চোটে পড়ি। সহজ ছিল না। আমি লেগে ছিলাম। আত্মবিশ্বাস ছিল এই টুর্নামেন্টটা খেলতে পারব। আল্লাহর কাছে শুকরিয়া এটাই হয়েছে। এরপর কিছু উইকেট পাওয়ায় নিজে আত্মবিশ্বাস পেয়েছি।’

এদিকে ৩৭ বছর বয়সেও বল হাতে মিতব্যয়ী হওয়া এবং পরিস্থিতি বিবেচনায় ব্রেক থ্রু দেওয়ার রহস্য জানাতে গিয়ে মাশরাফি যোগ করেন, ‘কোনো রহস্য নেই সাফল্যের। শুধু ভালো জায়গায় বল করে যাওয়া, এটাই। গত আট-নয় মাস ক্রিকেট খেলা সহজ ছিল না। আমার জন্য আদর্শ ছিল না।’

‘তবে দলের সিনিয়র ক্রিকেটাররা আমাকে অনেক আত্মবিশ্বাস দিয়েছে। শুধু নিজের জায়গাটায় বল করে যাওয়া, এটাই আমি অনেক বছর ধরে করে আসছি। এটাই আত্মবিশ্বাসের একমাত্র কারণ বলা যায়। আমি ঠিক জায়গায় বল করে যেতে পারি। বাকি যা হওয়ার তা তো হবেই।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

নিজের ধীরগতির ইনিংসের ব্যাখ্যা দিলেন তামিম

Read Next

ফাইনালের আগেই হোটেল ছাড়তে হল সাকিবকে

Total
16
Share