নিজের ধীরগতির ইনিংসের ব্যাখ্যা দিলেন তামিম

নিজের ধীরগতির ইনিংসের ব্যাখ্যা দিলেন তামিম
Vinkmag ad

তামিম ইকবাল এক কথায় ফরচুন বরিশালের সেরা খেলোয়াড়। তামিমের ব্যাটের দিকে তাকিয়ে ছিল ফরচুন বরিশাল। কিন্তু দলের প্রয়োজনে নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি এই তারকা ব্যাটসম্যান। তামিমের ধীরগতির ইনিংস অনেক ম্যাচে চাপে থাকা বরিশালকে আরও চাপে ফেলেছে। আজ গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে বরাবরের মতোই থিতু হতে গিয়ে ধীরলয়ে শুরু; ২৮ বল খেলে ২২ রান করে তামিম আউট। ধীরগতির ইনিংসের ব্যাখ্যা দিয়েছেন অধিনায়ক; বাউন্ডারি হাঁকানোর আফসোস তামিমের কন্ঠেই।

সোমবার বেক্সিমকো ঢাকার বিরুদ্ধে ম্যাচটি ছিল তামিমদের জন্য বাঁচা–মরার। ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে থাকতে হলে জিততেই হতো তাঁদের। এমন ম্যাচে টপ-অর্ডার ব্যাটসম্যানদের বিপর্যয়। শুধু আজ নয় পুরো টুর্নামেন্ট জুড়েই মোটামুটি মানের খেলা খেলেছে ফরচুন বরিশাল। বোলাররা শেষদিকের ম্যাচে ভালো করলেও ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতার ছাপ ছিল প্রায় ম্যাচেই। টি–টোয়েন্টির ব্যাটিং হলো না দলের সেরা খেলোয়াড় তামিম ইকবালেরও।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

দলের বিদায়ের পর সংবাদ সম্মেলনে নিজের ধীরগতির ইনিংসের ব্যাখাও দিয়েছেন বরিশাল অধিনায়ক,

‘সত্য বললে পুরো টুর্নামেন্টে আমাদের যে মানের খেলার প্রত্যাশা ছিলো সেই অনুযায়ী খেলতে পারিনি। আজ ও গতদিন আমরা ভালো খেলেছি। আমার মনে হয় বিশেষত আজ আমরা দুর্দান্ত বোলিং করেছি। তাঁদের ১৫০ এর নিচে বেঁধে ফেলেছি। আমরা ভালো একটি শুরু পাইনি। আমি শুরুতে ধীর গতিতে শুরু করেছিলাম। কারণ আমাদের দ্রুত ২ উইকেটের পতন হয়েছিলো। আমি আরো একটি উইকেট দিতে চাইনি। আমার মনে হচ্ছে আমি যদিও আরো ১ বা ২ টি বাউন্ডারি মারতে পারতাম তাহলে শেষে এসে এতটা চাপে পরতে হতো না।’

নিজেদের প্রতিভার প্রমাণ দিতে নাজমুল হোসেন শান্ত, পারভেজ হোসেন ইমন এর পর মোহাম্মদ নাইম শেখ সেঞ্চুরির দেখা পেলেন এই বঙ্গবন্ধু কাপে। তরুণ পারভেজ হোসেন তো ৪২ বলে সেঞ্চুরি করে দ্রুততম সেঞ্চুরির নতুন বাংলাদেশি রেকর্ডও গড়েছেন। সেঞ্চুরিয়ান তরুণদের পরের ধাপে এগিয়ে যাবার উপায় বাতলে দিলেন দেশের সবচেয়ে অভিজ্ঞ ওপেনার তামিম ইকবাল। এক, দুই ম্যাচেই নয় ধারাবাহিকভাবে রান করে যেতে তাঁদের বলেন তামিম,

‘এটি অবশ্যই ভালো যে তরুণরা সেঞ্চুরি পাচ্ছে। কিন্তু পরবর্তী ধাপে যেতে তাদের অবশ্যই নিয়মিত রান করতে হবে। সে (ইমন) যে সেঞ্চুরি করেছিলো সেটি দুর্দান্ত ছিলো। তার প্রতীভা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। ভালো মানের একজন খেলোয়াড় সে। কিন্তু আমি যদি কিছুটা কঠোরভাবে বলি তাহলে বলতে হবে সকল খেলোয়াড় যারা রান পাচ্ছে তাদেরকে ধারাবাহিক হতে হবে।’

ধারাবাহিকভাবে রান করা সব ব্যাটসম্যানের কাছেই সোনার হরিণের মতন। কেউ একটা ভালো ইনিংস খেলে দলকে জিতিয়ে পরের কয়েক ম্যাচে একেবারেই ব্যাট হাতে নিরব। এভাবে পারফর্ম করলে সামনের পথ কঠিন হবে। তামিম নিজেকে টেনে এনেও এই উদাহরণ পরিষ্কার করলেন,

‘যদি একটি বড় ইনিংসের পরের কয়েক ম্যাচ রান না করতে পারেন সেটা তার অগ্রযাত্রায় সহায়তা করবেনা। কারণ কেউ যদি বড় রানের পরের কিছু ম্যাচ খারাপ করে আবারো বড় রান করে সেটা দলকে …। আমি শুধুমাত্র তাঁকে উদ্দেশ্য করে বলছিনা, বরং এখানে আমি সহ অন্যান্য খেলোয়াড়দের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

মাশরাফির ক্যারিয়ার সেরা বোলিং, ফাইনালে খুলনা

Read Next

কঠিন সময় পার করা মাশরাফির সাফল্যে কোন রহস্য নেই

Total
8
Share