শান্তকে সান্ত্বনা দেওয়ার ভাষা ছিলনা সাইফউদ্দিনের

শান্ত'র সেঞ্চুরিতে রাজশাহীর রানের পাহাড়
Vinkmag ad

ঝড়ের বিপরীতে টর্নেডোর দেখা মিলেছিল মঙ্গলবার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীর দেওয়া টুর্নামেন্ট সর্বোচ্চ ২২১ রান তাড়া করে জিতেছিল ফরচুন বরিশাল। ৪৪১ রানের ম্যাচে এসেছিল দুই সেঞ্চুরি। রাজশাহী অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্তের ১০৯ রানের বিপরীতে বরিশালের পারভেজ হোসেন ইমন ম্যাচ জিতিয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন ঠিক ১০০ রান করে।

যে ম্যাচে হারের পর অধিনায়ক শান্তকে সান্ত্বনা দেওয়ার ভাষা ছিলনা সতীর্থ অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের কাছে। এখনো পর্যন্ত টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক শান্ত ব্যাট হাতে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন দলকে। ফরচুন বরিশালের বিপক্ষে মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী তার ৫৫ বলে ৪ চার ১১ ছক্কায় ১০৯ রানের ইনিংসে ভর করে পায় ২২০ রানের পুঁজি। যা বোলারদের ব্যর্থতা ও পারভেজ হোসেন ইমনের ৪২ বলে ১০০ রানের টর্নেডোতে ১১ বল হাতে রেখেই টপকে যায় বরিশাল।

অধিনায়কের সেঞ্চুরির পরও দল না জেতায় বেশ আক্ষেপ আছে মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী অলরাউন্ডার সাইফউদ্দিনের। বল হাতে নিজেও ছিলেন খরুচে, এক উইকেট তুলে নিলেও ৪ ওভারে রান দিয়েছেন ৪০। শুক্রবার মিরপুরে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে সাইফউদ্দিন বলছেন দারুণ এক ইনিংস খেলা শান্তকে জয় উপহার দিতে না পারায় সান্ত্বনা দেওয়ার ভাষাও ছিলনা তার কাছে। তবে অধিনায়ক শান্ত নিজে ছিলেন স্বাভাবিক।

সাইফউদ্দিন জানান, ‘ও (শান্ত) স্বাভাবিক ছিল। আমি আর মেহেদী (শেখ মেহেদী হাসান) রাজশাহীর মূল বোলার। আমরা যখন ৮ ওভারে ৮০ রান দেই। আসলে স্বাভাবিক একটা অসাধারণ ইনিংস খেলা ক্রিকেটারকে জয় উপহার দিতে পারিনি। এই জিনিসটা ওর কেমন খারাপ লেগেছে জানি না কিন্তু আমার নিজের কাছে খুব খারাপ লাগছিল।’

‘যদি আরেকটু ইকোনমিক্যাল হতে পারতাম। পাওয়ার-প্লে’তে একটা দুইটা উইকেট বের করে দিতে পারতাম। ও যেই ইনিংসটা খেলেছে জয় প্রাপ্য ছিল। ইমন অসাধারণ ব্যাটিং করেছে। তারপরও অনেক খারাপ লাগছিল, সান্ত্বনা দেওয়ার ভাষা ছিল না। যদি সুযোগ আসে চেষ্টা করবো এই ভুলগুলো যেন আর না করি।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

‘৪-৫ বছর পর শান্ত বাংলাদেশের অধিনায়ক হবে’

Read Next

দক্ষিণ আফ্রিকার টেস্ট দলে ‘৩’ নতুন মুখ, অধিনায়ক ডি কক

Total
3
Share