শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে শেষ হাসি চট্টগ্রামের

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে শেষ হাসি চট্টগ্রামের
Vinkmag ad

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে মঙ্গলবার দিনের প্রথম খেলায় ফরচুন বরিশাল বনাম মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীর মধ্যকার যতটা রোমাঞ্চ, উত্তেজনা আর রেকর্ড ভাঙা গড়ার ম্যাচ ছিল ততটাই ম্যাড়ম্যাড়ে হওয়ার আভাস দিয়েও শেষ ওভারের রোমাঞ্চ দেখা গেল দ্বিতীয় ম্যাচেও। লম্বা বিরতির পর মাশরাফি বিন মর্তুজার ফেরার দিনে তার দল জেমকন খুলনা গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের কাছে হেরেছে ৩ উইকেটে।

টানা চার জয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করা গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম এক ম্যাচ বিরতি দিয়ে আবারও ফিরেছে জয়ের ধারায়। খুলনার দেওয়া ১৫৮ রানের লক্ষ্য তাড়ায় ম্যাচ গড়িয়েছে শেষ ওভারে। শামসুর রহমানের ব্যাটে চড়ে পঞ্চম জয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে মোহাম্মদ মিঠুনের দল।

টুর্নামেন্টে ধারাবাহিকভাবে রান করা চট্টগ্রাম ওপেনার লিটন দাস এদিন ফিরে গেছেন সাকিব আল হাসানের শিকার হয়ে মাত্র ৪ রান করে। দারুণ শুরু করেও ইনিংস বড় করতে পারেননি মাহমুদুল হাসান জয়। ১৪ বলে ২৪ রান করে শামীম পাটোয়ারিকে ক্যাচ দিয়েছেন শুভাগত হোমের বলে।

তবে দলের বিপর্যয় কাটানোর চেষ্টা অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুন ও সৌম্য সরকারের। তবে ক্রিজে থিতু হয়েও খেলতে পারেননি বড় কোন ইনিংস। সাকিব আল হাসানের দ্বিতীয় শিকার হয়ে সৌম্য (১৯) ও হাসান মাহমুদের বলে ফিরেছেন মিঠুন (২৩)।

কিন্তু শামসুর রহমান এক পাশ আগলে রেখে শেষ পর্যন্ত জিইয়ে রাখেন জয়ের আশা। শেষ ৫ ওভারে প্রয়োজন ছিল ৫৩, শেষ দুই ওভারে যে সমীকরণ দাঁড়ায় ২৫ রানে। শুভাগত হোমের করা ১৯তম ওভারের প্রথম বলে ব্যক্তিগত ২ রানে জীবন পান নাহিদুল ইসলাম। কাভার অঞ্চলে তার ক্যাচ ছাড়েন মাহমুদউল্লাহ, আর সেখান থেকেই ম্যাচের মোড় বদলে দেওয়া ১০ বলে ১৮ রানের ইনিংস খেলে ফিরেন নাহিদুল।

শেষ ওভারে ওভারে ৯ রান প্রয়োজন চট্টগ্রামের, প্রথম বলে ডট দেন আল আমিন যেটি উইকেট কিপার জাকির হোসেন ঠিকঠাক স্টাম্পে লাগাতে পারলে ফিরতে হত নতুন ব্যাটসম্যান মুস্তাফিজুর রহমানকে। দ্বিতীয় বলেই বাউন্ডারি হাঁকান মুস্তাফিজ। পরের দুই বলে আসে সিঙ্গেল। ফলে শেষ দুই বলে ৩ রান দরকার পড়ে। পঞ্চম বলে আবারও রান আউটের সহজ সুযোগ মিস করেন জাকির। আর সেই সুযোগে শেষ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে চট্টগ্রামকে কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছে দেন শামসুর রহমান ।

শামসুর শেষ পর্যন্ত অপরাজিত ছিলেন ৩০ বলে ৫ চার ১ ছক্কায় ৪৫ রানে। প্রায় ৯ মাস পর প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ফিরে ২ ওভারের প্রথম স্পেলে মাশরাফি খরচ করেন মাত্র ১০ রান। পরের দুই ওভারে ১৮ রান খরচায় তুলে নেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের (১২) উইকেট।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে কয়েকটি মাঝারি ইনিংসে ভর করে ৯ উইকেটে স্কোরবোর্ডে ১৫৭ রান তোলে জেমকন খুলনা। জহরুল ইসলাম (২৬) ও জাকির হোসেনের (১৫) উদ্বোধনী জুটি টিকেছে ৩৩ রান পর্যন্ত। তিন নম্বরে নামা সাকিব আল হাসান এদিনও করতে পারেননি ১৫ রানের বেশি। চমক হিসেবে চারে নেমে রান আউটে কাটা পড়ে মাশরাফি থেমেছেন এক রানে।

৬৬ রানে ৪ উইকেট হারানো জেমকন খুলনাকে শেষদিকে ১৫০ পেরোনো স্কোর এনে দেন শুভাগত হোম। ১৪ বলে ৬ চার ১ ছক্কায় অপরাজিত ছিলেন ৩২ রানে। পরে বল হাতেও নিয়েছেন ২ উইকেটে। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ব্যাট থেকে আসে ২৬ রান। ইমরুল কায়েস করেছেন ২৪ রান। চট্টগ্রামের হয়ে সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট নেন শরিফুল ইসলাম।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

জেমকন খুলনা ১৫৭/৯ (২০), জহুরুল ২৬, জাকির ১৫, সাকিব ১৫, মাশরাফি ১, ইমরুল ২৪, মাহমুদউল্লাহ ২৬, আরিফুল ৬, শামীম ৫, শুভাগত ৩২*, হাসান ০। আল আমিন ০*; শরিফুল ৪-০-৩৪-৩, মোসাদ্দেক ৩-০-২৩-১, মুস্তাফিজ ৪-০-৩৬-২, জিয়া ২-০-১৮-১

গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম ১৬২/৭ (২০), লিটন ৪, সৌম্য ১৯, জয় ২৪, মিঠুন ২৩, শামসুর ৪৫*, মোসাদ্দেক ১২, জিয়া ৬, নাহিদুল ১৮, মুস্তাফিজ ৫*; মাশরাফি ৪-০-২৮-১, সাকিব ৪-০-৩০-২, শুভাগত ৪-০-৩৪-২, আল আমিন ৪-০-৩৮-১, হাসান ৪-০-৩০-১

ফলাফলঃ গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম ৩ উইকেটে জয়ী

ম্যাচসেরাঃ শামসুর রহমান শুভ (গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম)।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বাবা হারালেন বেন স্টোকস

Read Next

দেশে ফিরলেন রোচ-ডওরিচ, দলে এক নতুন মুখ

Total
11
Share