ভারতের অস্ট্রেলিয়া বধ, জয়ের নায়ক কনকাশন সাব

ভারতের অস্ট্রেলিয়া বধ, জয়ের নায়ক কনকাশন সাব

ওয়ানডে সিরিজে ২-১ ব্যবধানে পরাজিত হলেও ১ম টি-টোয়েন্টিতে জিতে শুভসূচনা করেছে সফরকারী ভারত। স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়াকে ১১ রানে পরাজিত করে ৩ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল ভিরাট কোহলির দল। এ নিয়ে টি-টোয়েন্টিতে টানা নয় ম্যাচ জিতলো নীল শিবির।

ক্যানবেরার মানুকা ওভালে টসে জিতে প্রথমে অবশ্য ফিল্ডিং নেন অজি অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। রোহিত শর্মার অনুপস্থিতে লোকেশ রাহুল এবং শিখর ধাওয়ান ওপেনিংয়ে আসেন। তবে ইনিংসের ২য় ওভারে ধাওয়ানকে সরাসরি বোল্ড করে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে প্রথম ব্রেকথ্রু এনে দেন বামহাতি ফাস্ট বোলার মিচেল স্টার্ক।

২য় উইকেটে অধিনায়ক ভিরাট কোহলির সাথে ৩৭ রানের জুটি গড়েন রাহুল। মাত্র ৯ রান করে মিচেল সুইপসনের কাছে কট অ্যান্ড বোল্ড হন কোহলি। রাহুল তার রানের ধারাবাহিকতা ধরে রেখে অর্ধশতরান আদায় করে নেন। অন্যদিকে রাহুলকে ভালো সহযোগিতা করছিলেন সাঞ্জু স্যামসন। তবে অস্ট্রেলিয়দের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে মাত্র ৬ রানের ব্যবধানে স্যামসন, মনীশ পাণ্ডে এবং রাহুলকে হারিয়ে চাপে পড়ে যায় ভারত।

৯২ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর হার্দিক পান্ডিয়া এবং রবীন্দ্র জাদেজা ইনিংস মেরামতের চেষ্টা করেন। পান্ডিয়া ১৬ রানের বেশি করতে না পারলেও জাদেজা ঝড়ো গতিতে ব্যাটিং করতে থাকেন। মাত্র ২৩ বলে জাদেজার অপরাজিত ৪৪ রানের কল্যাণে ভারত নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৬১ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে।

অজিদের পক্ষে ময়সেস হেনরিকস ৩টি এবং স্টার্ক ২ উইকেট পান।

ব্যাটিং করার সময় মিচেল স্টার্কের বলে মাথায় আঘাত পেয়ে কনকাশন ইনজুরিতে পড়েন জাদেজা। পরবর্তীতে বোলিং করার সময় তার পরিবর্তে যুজবেন্দ্র চাহালকে একাদশে অন্তর্ভুক্ত করে ভারত। এ নিয়ে ম্যাচ রেফারি ডেভিড বুনের সাথে বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েন অজি দলের কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার।

১৬২ রানের টার্গেটে অজি দল ব্যাট করতে নেমে শুরুটা বেশ ভালোই করেন দুই ওপেনার ডি’অর্চি শর্ট এবং অধিনায়ক ফিঞ্চ। এ দুইজন উদ্বোধনী জুটিতে ৫৬ রান তোলেন। জাদেজার ইনজুরিতে বোলিংয়ে সুযোগ পাওয়া চাহাল এরপরই নিজের ভেল্কি দেখাতে শুরু করেন। ব্যক্তিগত ১ম ওভারে ফিঞ্চকে বিদায় করেন চাহাল।

এরপর নিজের ২য় ওভারে ওয়ানডেতে ম্যান অফ দ্য সিরিজ হওয়া স্টিভ স্মিথকেও সাজঘরের পথ দেখিয়ে ভারতকে ন্যাচে ফিরিয়ে আনেন। পরের ওভারে গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন অভিষিক্ত থাঙ্গারাসু নটরাজন। ৭৫ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর শর্ট এবং হেনরিকস দলের ব্যাটিংয়ের দায়িত্ব নেন। ধীরগতিতে ব্যাটিং করা শর্ট ৩৪ রান করে নটরাজনের ২য় শিকারে পরিণত হন।

নিজের শেষ ওভারে ম্যাথু ওয়েডকে আউট করে ব্যক্তিগত ৩য় উইকেট তুলে নেন চাহাল। এরপর নটরাজনের বলে হেনরিকসের বিদায়ের পর অজিদের জয়ের আশা নস্যাৎ হয়ে যায়। শেষদিকে শন অ্যাবট এবং সুইপসনের ব্যাটিংয়ে হারের ব্যবধান কিছুটা কমায় অস্ট্রেলিয়া। শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেটে ১৫০ রানে অস্ট্রেলিয়া থামলে ১১ রানের জয় পায় ভারত।

ভারতের চাহাল ও নটরাজন ৩টি করে উইকেট পান।

চমৎকার বোলিং পারফরম্যান্সের জন্য ম্যাচ সেরা হন কনকাশন সাব যুজবেন্দ্র চাহাল।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

ভারতঃ ১৬১/৭ (২০), রাহুল ৫১, জাদেজা ৪৪, স্যামসন ২৩; হেনরিকস ৪-০-২২-৩, স্টার্ক ৪-০-৩৪-২

অস্ট্রেলিয়াঃ ১৫০/৭ (২০), ফিঞ্চ ৩৫, শর্ট ৩৪, হেনরিকস ৩০; চাহাল ৪-০-২৫-৩, নটরাজন ৪-০-৩০-৩

ফলাফলঃ ভারত ১১ রানে জয়ী।

ম্যাচ সেরাঃ যুজবেন্দ্র চাহাল (ভারত)।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ফরচুন বরিশাল দলে যে জিনিস মিস করছে তামিমরা

Read Next

লো স্কোরিং ম্যাচে সবুজ দলের জয়

Total
1
Share