১ রানে ম্যাচ জিতল চট্টগ্রাম

লিটনের ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস, চট্টগ্রামের বড় সংগ্রহ

৫ দলের মোট ৮০ জন বাংলাদেশি ক্রিকেটার নিয়ে ২৪ নভেম্বর থেকে শুরু হয়েছে বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ। টুর্নামেন্টের পঞ্চম দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয়েছে গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম ও মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী। এই ম্যাচের খুটিনাটি আপডেট এই লাইভ রিপোর্টে।

১ রানে ম্যাচ জিতল চট্টগ্রামঃ

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে মুস্তাফিজুর রহমান বল হাতে সবচেয়ে সফল বোলার। টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী মুস্তাফিজ ম্যাচে নিজের শেষ ওভারের প্রথম বলে ফেরান নুরুল হাসান সোহানকে। শেষ ওভারে মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীর দরকার ছিল ১৪ রান। মুস্তাফিজের করা ওভারে রাজশাহী নিতে পারে ১২ রান। ১ টি করে চার ও ছক্কায় ১০ রান করে ১২ রান করে অপরাজিত থাকেন রনি তালুকদার। ১ রানের ব্যবধানে ম্যাচ জিতে নেয় চট্টগ্রাম।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামঃ ১৭৬/৫ (২০), লিটন ৭৮* , সৌম্য ৩৪, মিথুন ১১, শামসুর ১ , মোসাদ্দেক ৪২, সৈকত আলি ০; মেহেদি ২-০-১৯-০, এবাদত ৪-০-৪৩-০, ফরহাদ ৪-০-৪৪-১, সানি ৩-০-১৮-০, মুগ্ধ ৪-০-৩০-৩, ইমন ৩-০-২২-১।

মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীঃ ১৭৫/৭(২০), ইমন ৫৮, শান্ত ২৫, আশরাফুল ২০, রাব্বি ১১, মেহেদি ২৫, সোহান ৮, ফরহাদ ১২, রনি ১২*, মুগ্ধ ০*; নাহিদুল ২-০-২৫-০, শরিফুল ৪-০-৪১-২, মোসাদ্দেক ৪-০-৩১-১, মুস্তাফিজ ৪-০-৩৭-৩, তাইজুল ২-০-১৭-০, সৌম্য ৩-০-১৯-০, জিয়া ১-০-৩-১

ফলাফলঃ গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম ১০ রানে জয়ী

ম্যাচসেরাঃ লিটন দাস (গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম)।

রেজাকে ফেরালেন শরিফুলঃ

ম্যাচে উত্তেজনা ফিরিয়ে আনার কাজটা করেছিলেন ফরহাদ রেজা। প্রথম ৪ বলে ১ টি করে চার ও ছক্কায় ১২ রান করা ফরহাদ আরো ছক্কা হাঁকানোর চেষ্টায় থামেন ৫ম বলে। শরিফুল ইসলামের দ্বিতীয় শিকার হওয়া ফরহাদ ধরা পড়েন লং অনে জিয়াউর রহমানের হাতে।

জোড়া উইকেট হারিয়ে বিপাকে রাজশাহীঃ

রিভিউ নিয়েও পার পেলেন না মেহেদী হাসান। শরিফুল ইসলামের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়ে সাজঘরে ফেরেন। ১৭ বলে ২ চার ও ১ ছয়ের সাহায্যে ২৫ রান করেন মেহেদী।

মেহেদীর বিদায়ের পরের বলেই মুস্তাফিজের দ্বিতীয় শিকার হয়ে সাজঘরের পথ ধরেন ফজলে রাব্বি (৯ বলে ১১)।

ইমনকে ফেরালেন জিয়াঃ

নিজের করা প্রথম ওভারেই রাজশাহীর সেট ব্যাটসম্যান আনিসুল ইসলাম ইমনকে ফেরান জিয়াউর রহমান। জিয়ার বলে বোল্ড হওয়ার আগে ৪৪ বলে ৬ চার ও ১ ছক্কার সাহায্যে ৫৮ রানের চমৎকার ইনিংস উপহার দেন ইমন।

ভাগ্যের পরশ পেয়েও বেশিক্ষণ টিকলেন না আশরাফুলঃ

মোসাদ্দেকের বলে জীবন পেয়েও ইনিংস লম্বা করতে পারেননি মোহাম্মদ আশরাফুল। একই ওভারেই (১২ তম) মোসাদ্দেকের বলে তুলে মারতে গিয়ে মুস্তাফিজকে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন। ১৯ বলে ১ চারের সাহায্যে ২০ রান করেন আশরাফুল।

ইমনের ফিফটিঃ

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে নিজের প্রথম অর্ধশত রান আদায় করে নিলেন মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীর ওপেনিং ব্যাটসম্যান আনিসুল ইসলাম ইমন। ৩৪ বলে ৬ চার ও ১ ছয়ের সহায়তায় হাফ সেঞ্চুরি পূরণ করেন তিনি।

ব্রেকথ্রু এনে দিলেন মুস্তাফিজঃ

বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দারুণ শুরু করেছিল মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী। নাজমুল হোসেন শান্ত ও আনিসুল ইসলাম ইমন মিলে পাওয়ার প্লের প্রথম ৫ওভারে তুলে ফেলেন ৫১ রান। পাওয়ার প্লের শেষ ওভারে প্রথমবার বল করতে এসেই চট্টগ্রামকে ব্রেকথ্রু এনে দেন মুস্তাফিজুর রহমান। ১৪ বলে ২ টি করে চার ও ছক্কায় ২৫ রান করা শান্তকে লিটন দাসের ক্যাচ বানিয়ে ফেরান দ্য ফিজ।

চট্টগ্রামের বড় সংগ্রহঃ

লিটন-মোসাদ্দেকের দাপুটে ব্যাটিংয়ে রাজশাহীকে বড় লক্ষ্য ছুড়ে দিয়েছে চট্টগ্রাম। ৯৬ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর লিটন-মোসাদ্দেক জুটিতে ৭২ রান আসে। শেষমেশ ৫ উইকেট হারিয়ে ১৭৬ রান স্কোরবোর্ডে জমা করে চট্টগ্রাম। টি-টোয়েন্টিতে নিজের ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলে ৭৮ রান করে অপরাজিত থাকেন লিটন দাস। ৫৩ বল খেলে ৯ চার ও ১ ছক্কা হাকান লিটন। ২৮ বলে ৪২ রান করে আউট হন মোসাদ্দেক।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (১ম ইনিংস শেষে):

গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামঃ ১৭৬/৫ (২০), লিটন ৭৮* , সৌম্য ৩৪, মিথুন ১১, শামসুর ১ , মোসাদ্দেক ৪২, সৈকত আলি ০; মেহেদি ২-০-১৯-০, এবাদত ৪-০-৪৩-০, ফরহাদ ৪-০-৪৪-১, সানি ৩-০-১৮-০, মুগ্ধ ৪-০-৩০-৩, ইমন ৩-০-২২-১।

ফিফটি করার পথে তামিমকে টপকালেন লিটনঃ

রানের ফোয়ারা ছুটছে লিটনের ব্যাটে। টুর্নামেন্টে নিজের ২য় অর্ধশতরান তুলে নিয়েছেন তিনি। ৩৫ বলে ৭টি চারের সহায়তায় ৫০ রান পুর্ণ করেন। ফিফটি করার পথে তামিমকে টপকে টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক এখন লিটন।

লিটনের ফিফটির পরই অবশ্য বিদায় নেন শামসুর রহমান শুভ। মাত্র ১ রান করে ফরহাদ রেজার বলে বোল্ড হন শুভ।

ফিরলেন মিঠুনঃ

৮ম ওভারের ২য় বলে সৌম্য সরকার বিদায় নেবার পর উইকেটে এসেছিলেন গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুন। ১২ তম ওভারের ৩য় বলে ফিরলেন সাজঘরে। আনিসুল ইসলাম ইমনের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন তিনি, ১২ বলে কোন বাউন্ডারি ছাড়া করেন ১১ রান। ৯৩ রানের মাথায় ২য় উইকেট হারাল চট্টগ্রাম।

দ্বিতীয় বলেই মুগ্ধর সাফল্যঃ

নিজের ১ম ওভারেই রাজশাহীর জন্য সাফল্য এনে দিলেন মুকিদুল ইসলাম মুগ্ধ। দুই দফা জীবন পেয়েও ইনিংস বড় করতে পারলেন না সৌম্য সরকার। মুগ্ধকে লং অনের উপর দিয়ে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে ইমনের হাতে ধরা পড়লেন। ২৫ বলে ৪ চার ও ২ ছক্কার সহায়তায় ৩৪ রান করেন তিনি।

পাওয়ার প্লে চট্টগ্রামেরঃ

টুর্নামেন্টের শুরু থেকে লিটন ও সৌম্য দারুণ ব্যাটিং করে চলেছেন। এক ম্যাচ বাদে প্রায় প্রতিটি ম্যাচে তাদের মধ্যকার জুটিও সাফল্য পাচ্ছে। আজও তার ব্যতিক্রম হয়নি। পাওয়ারপ্লের ৬ ওভারে বিনা উইকেটে ৫৪ রান তুলেছে গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম।

একাদশ আপডেটঃ

টস আপডেটঃ

মিরপুরে টসে জিতে আগে গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামকে ব্যাটিং করার আমন্ত্রণ জানিয়েছেন মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীর অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

লো স্কোরিং ম্যাচে বেক্সিমকো ঢাকার জয়

Read Next

পরিদর্শন শেষে যা বলল ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রতিনিধি দল

Total
17
Share