‘টি-টোয়েন্টিতে ২০-৩০ রানে আউট হয়ে যাওয়া পাপের মত’

তামিমের বিশ্বাস বাকি সিনিয়ররাও জ্বলে উঠবে

গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের কাছে ১০ রানে হেরে তিন ম্যাচে দুই পরাজয়ের স্বাদ পেল ফরচুন বরিশাল। তবে দুইটি হারা ম্যাচেই জয়ের বেশ ভালো সম্ভাবনা ছিল তামিম ইকবালের নেতৃত্বাধীন দলটির। সোমবার গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামকে ১৫১ রানে আঁটকে দিয়েও লক্ষ্য তাড়া করতে না পারার পর অধিনায়ক তামিম সন্দেহ প্রকাশ করেছেন দলের ক্রিকেটাদের খেলা উপভোগ নিয়ে।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে তামিম আউট হয়েছেন দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩২ রান করে। আফিফ হোসেন ধ্রুব ২৪ ও তৌহিদ হৃদয় করেছেন ১৭ রান। ক্রিজে টিকে গিয়েও ইনিংস বড় করতে না পারার দায় নিচ্ছেন অধিনায়ক তামিম নিজে। টি-টোয়েন্টিতে ২০-৩০ রান করে আউট হওয়াকে পাপ বলে মনে করেন ফরচুন বরিশাল অধিনায়ক।

ম্যাচ শেষে পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘টি-টোয়েন্টিতে ২০-৩০ রানে আউট হয়ে যাওয়া পাপের মত। কারণ আমরা যথেষ্ট বল খেলতে পারি, উইকেটের আচরণ যাচাই করতে পারি। আমি আর আফিফ যেহেতু উইকেটে অনেকক্ষণ থেকেছি, আমাদের অন্তত একজনের উচিৎ ছিল ম্যাচ শেষ করে আসা।’

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

‘আমরা দুইজনই অভিজ্ঞ, আমাদের দায়িত্ব নেওয়া উচিৎ ছিল। তারা ব্যাট হাতে ভালো শুরু করেছিল, এরপর আমরাও ম্যাচে ফিরেছিলাম। উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য এত ভালো ছিল না। আমরা ১৫ রানের মত অতিরিক্ত দিয়ে ফেলেছি।’

গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম মাঝপথে খেই হারানোর পরও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও সৈকত আলির ব্যাটে ১৫০ পার করে। ১১ বলে ২৭ রান করা সৈকত আলি অবশ্য ফিরতে পারতেন ব্যক্তিগত ৭ রানেই। আবু জায়েদ রাহির বলে ১৯তম ওভারের প্রথম বলে ক্যাচ ছাড়েন তাসকিন আহমেদ।

এরপরের ৬ বলে সৈকত আলি নেন ২০ রান যেখানে সুমন খানের এক ওভারের হাকিয়েছেন তিন ছক্কা। ঐ ক্যাচ মিসও দলের পরাজয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে বলে জানান তামিম। তবে খেলার অংশ বলে এটাকে অজুহাত করতেও রাজি নন ফরচুন বরিশাল অধিনায়ক।

তামিম বলেন, ‘গুরুত্বপূর্ণ সময়ে একটি ক্যাচ হাতছাড়া করেছি। এক ওভারে তিনটি ছক্কা হজম করতে হয়েছে। তবে খেলোয়াড়দের দোষ দেওয়ার কিছু নেই, এটা খেলারই অংশ। ব্যাট হাতে আমরাও ভালো শুরু পেয়েছিলাম। কিন্তু একপর্যায়ে উইকেট হারাতে থাকি। হৃদয় আর ইরফানের উইকেট বেশি মূল্যবান ছিল, কারণ তখন আমরা ম্যাচে টিকে ছিলাম।’

তবে সব ছাপিয়ে ফলাফলকে মূখ্য না ভেবে সতীর্থরা খেলা উপভোগ করছেন কিনা সেদিকেই মনযোগ তামিম ইকবালের, ‘মূল বিষয় হল আমরা খেলা উপভোগ করছি কি না। ফলাফল বড় কথা নয়। প্রথম ম্যাচে অনেক রোমাঞ্চকর ছিল। পরের ম্যাচে ঘুরে দাঁড়িয়েছি। আজকে আবার হারলাম। আমরা এই ম্যাচ থেকে কিছু শিক্ষা নিতে পারি। কারণ জয় কখনোই অসম্ভব ছিল না। ঐ দুই উইকেটই পার্থক্য গড়ে দিয়েছে। ঐ সময়ে ভালো ব্যাট করলে ম্যাচ আমাদের নিয়ন্ত্রণে থাকতো।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

খুলনার সাথে পেরে উঠল না ঢাকা

Read Next

হতাশার কিছু দেখছেন না নান্নু, বললেন ধৈর্য ধরতে

Total
2
Share