উড়তে থাকা রাজশাহীকে মাটিতে নামাল বরিশাল

উড়তে থাকা রাজশাহীকে মাটিতে নামাল বরিশাল

টানা দুই জয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করা মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীকে প্রথম পরাজয়ের স্বাদ দিল ফরচুন বরিশাল। অধিনায়ক তামিম ইকবালের অপরাজিত ৭৭ রানের ইনিংসে ভর করে নিজেদের প্রথম জয় পেল দলটি।

১৩৩ রানের ছোট লক্ষ্য তাড়ায় শুরুতেই অবশ্য ফরচুন বরিশাল হারিয়েছেন ওপেনার মেহেদী হাসান মিরাজকে। আগের ম্যাচে খালি হাতে ফেরা মিরাজ আজ (২৮ নভেম্বর) করতে পারেননি ১ রানের বেশি। এরপর পারভেজ হোসেন ইমনকে নিয়ে অবশ্য বিপর্যয় সামাল দেন তামিম ইকবাল।

দুজনে জুটিতে যোগ করেন ৬১ রান। ইমন অবশ্য ফিরতে পারতেন চতুর্থ ওভারে ব্যক্তিগত ১ রানেই। শর্ট ফাইন লেগে দলীয় ১১ ও ব্যক্তিগত ১ রানে শর্ট ফাইন লেগে তার ক্যাচ মিস করেন রেজাউর রহমান রাজা। এরপর পঞ্চম ওভারে মেহেদী হাসানকে তামিম-ইমন মিলে নেন ২৩ রান। যেখানে ২ চার ১ ছক্কায় ইমনের ব্যাট থেকে আসে ১৪ রান।

যদিও এরপর ইমন খোলস বন্দী হয়ে পড়েন। তাকে এক পাশে রেখে মিনিস্টার রাজশাহীর বোলারদের উপর চড়াও হন তামিম ইকবাল। রেজাউর রহমান রাজার করা ৬ষ্ঠ ওভারে হাঁকান টানা তিন চার। পাওয়ার প্লের ৬ ওভারে স্কোরবোর্ডে যোগ হয় ৫১ রান।

৯ম ওভারে শেখ মেহেদী হাসানের বলে ইমন বোল্ড হলে ভাঙে জুটি। আউট হওয়ার আগে করেছেন ১৭ বলে ৩ চার ১ ছক্কায় ২৩ রান। তার বিদায়ের পর তৌহিদ হৃদয়কে নিয়ে তামিম জয়ের পথে দূরত্ব কমিয়ে আনেন। দুজনে মিলে জুটিতে যোগ করে ৫৬ রান। ততক্ষণে ফিফটি তুলে নেন অধিনায়ক তামিম ইকবাল। দলীয় ১১২ রানে ১৭ রান করে ফিরে যান তৌহিদ হৃদয়।

ক্রিজে আসা নতুন ব্যাটসম্যান আফিফ হোসেন উপহার দিয়েছেন গোল্ডেন ডাক (০)। মিনিস্টার গ্রুপ অধিনায়ক শান্তর দারুণ এক থ্রোতে রান আউটে কাটা পড়েন ইরফান শুক্কুরও (৩)। তবে তামিম ইকবালের অধিনায়কোচিত ইনিংসে ৬ বল ও ৫ উইকেট হাতে রেখেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় ফরচুন বরিশাল। ৬১বলে ১০ চার ২ ছক্কায় ৭৭ রানে অপরাজিত ছিলেন তামিম। মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীর হয়ে সর্বোচ্চ দুই উইকেট নেন মুকিদুল ইসলাম মুগ্ধ। একটি করে শিকার এবাদত হোসেন ও শেখ মেহেদী হাসানের।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে বেশ ধীর লয়ে শুরু করে মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী। পাওয়ার প্লের ৬ ওভারে কোন উইকেট না হারিয়ে ৩৯ রান তোলে ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত ও আনিসুল ইসলাম ইমন। কিন্তু এরপরই ছন্দ পতন হয় তাদের, শুরুটা হয় অধিনায়ক শান্তকে দিয়ে। ২৪ রান করা শান্তের বিদায়ের পর বেশিক্ষণ টিকেনি রনি তালুকদার (৬) ও মোহাম্মদ আশরাফুল (৬)। দ্রুত বিদায় নেন যান আনিসুল ইসলাম ইমন (২৪) ও নুরুল হাসান সোহানও (০)।

৬৩ রানে ৫ উইকেট হারানো মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী প্রতিরোধ গড়ে শেখ মেহেদী হাসান ও ফজলে মাহমুদ রাব্বির ৬৫ রানের জুটিতে। ১২৮ রানে তাসকিন আহমেদের একমাত্র শিকার হয়ে ফজলে ফিরে গেলে ভাঙে জুটি। ৩২ বলে ৩ চারে খেলেছেন ৩১ রানের ইনিংস। তার বিদায়ের পর হুড়মুড় করে ভেঙে পড়ে মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীর লোয়ার অর্ডার। ৪ রানের ব্যবধানে হারায় শেষ ৫ উইকেট, থামে ১৩২ রানে।

সর্বোচ্চ ৩৪ রান আসে শেখ মেহেদী হাসানের ব্যাট থেকে। ২৩ বলে ৩ ছক্কায় সাজিয়েছেন ইনিংসটি। শেষ ওভারে তিন উইকেট নেওয়া কামরুল ইসলাম রাব্বি ফরচুন বরিশালের হয়ে নেন সর্বোচ্চ ৪ উইকেট। দুইটি শিকার মেহেদী হাসান মিরাজের, একটি করে নেন তাসকিন আহমেদ ও আবু জায়েদ রাহি।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীঃ ১৩২/৯ (২০ ওভার), শান্ত ২৪, ইমন ২৪, রনি ৬, আশরাফুল ৬ , ফজলে মাহমুদ রাব্বি ৩১ , সোহান ০, মেহেদী ৩৪ , ফরহাদ রেজা ১, রেজাউর ২, মুকিদুল ১*; তাসকিন ৪-০-১৯-১, সুমন ৩-০-৩৩-০, আবু জায়েদ ৪-০-২৯-১, মিরাজ ৪-০-১৮-২, রাব্বি ৪-০-২১-৪, আফিফ ১-০-১১-০

ফরচুন বরিশালঃ ১৩৬/৫ (১৯ ওভার), তামিম ৭৭*, মিরাজ ১, ইমন ২৩, হৃদয় ১৭, আফিফ ০, ইরফান ৩, মাহিদুল ৪*; রেজাউর ২-০-১৭-০, এবাদত ৩-০-১৯-১, মেহেদী ৪-০-৩২-১, মুকিদুল ৪-০-২৭-২।

ফলাফলঃ ফরচুন বরিশাল ৫ উইকেটে জয়ী।

ম্যাচসেরাঃ তামিম ইকবাল (ফরচুন বরিশাল)।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সৌম্যের সাথে রসায়ন জমে যাওয়ার কারণ জানালেন লিটন

Read Next

তামিমের বিশ্বাস বাকি সিনিয়ররাও জ্বলে উঠবে

Total
21
Share