মুশফিক জানালেন কেন অধিনায়ক হয়েছেন

উচ্ছ্বসিত মুশফিক, সমর্থকদের উদ্দেশ্যে দিলেন বার্তা

বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে একটি দলের অধিনায়ক করতে চাওয়া হলেও মুশফিকুর রহিমের অনাগ্রহে দলটির নেতৃত্ব দেওয়া হয় তরুণ নাজমুল হোসেন শান্তকে। তবে আসন্ন বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে মুশফিক নেতৃত্ব দিবেন বেক্সিমকো ঢাকাকে। মূলত বিসিবির অধীনস্থ টুর্নামেন্টে তরুণদের সুযোগ দেওয়ার ভাবনাকে সমর্থন করেন বলেই নেতৃত্ব দেননা বলে জানালেন মুশফিক। ভবিষ্যতে জাতীয় দলকে তার নেতৃত্ব দেওয়া সম্ভাবনা দেখেন না বলেই কেবল ফ্র্যাঞ্চাইজিদের চাওয়ায় অধিনায়কত্ব করেন।

তিন ফরম্যাটে বাংলাদেশকে ৯৪ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েছেন মুশফিকুর রহিম। টেস্ট ফরম্যাটেতো দেশের এখনো পর্যন্ত সফল অধিনায়কই। ২০১৪ সালে সীমিত ওভারের ক্রিকেট ও ২০১৭ সালে টেস্ট অধিনায়কত্ব হারানোর পর আর কখনো বাংলাদেশের অধিনায়কত্ব করবেন না জানিয়েছেন নিজেই। তবে ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে তাকে নেতৃত্ব দিতে দেখা যায়। সর্বশেষ বিপিএলে (বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে) নেতৃত্ব দেন খুলনা টাইগার্সকে। তার অধীনে দলটি অর্জন করে রানার আপের খেতাব।

বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ পুরোপুরি বিসিবির অধীনে ছিল। সেখানে অধিনায়কত্ব না করলে বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে আবারও মুশফিককে অধিনায়কত্ব করতে দেখা যাবে। অধিনায়কত্বের বিষয়টি অবশ্য খোলাসা করেছেন তিনি নিজেই।

অধিনায়ক ইস্যুতে দ্বৈত অবস্থান প্রসঙ্গে আজ (২৩ নভেম্বর) মিরপুরে গণমাধ্যমকে মুশফিক বলেন, ‘জাতীয় দল বা অন্যান্য টিমে হয় কী অনেক ইয়াং প্লেয়ার যারা আছে তাদের হয়তো ভবিষ্যতের জন্য চিন্তা করা হয়। যেহেতু আমার জাতীয় দলে করার (অধিনায়কত্ব) চান্স নাই, আমি ফিল করি। সেদিক থেকে মনে করি ভালো হয় যাদের চান্স আছে ন্যাশনাল টিমে।’

‘তাদের এই টুর্নামেন্টে অভিজ্ঞতা নেয়াটা ভালো হয়। তাদের জন্য সুযোগটা খুব ভালো হয় আমি মনে করি ইয়াং প্লেয়াররা যত দায়িত্ব নিবে তাদের দায়িত্ব বাড়বে। এখন যেহেতু এটা একটা ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক। তারা চেয়েছেন, আমি চেষ্টা করবো ব্যক্তি ও অধিনায়ক হিসেবে প্রতিদান দিতে।’

‘অধিনায়কত্বের ব্যাপারটা অনেক সময় নির্ভর করে ফ্র্যাঞ্চাইজিরা কী চায়। প্রেসিডেন্টস কাপ বা অন্যান্য সময় বোর্ডের অধীনে তারা মনে ইয়াং কিছু প্লেয়ার আছে তাদের সুযোগ দিলে ভবিষ্যতে ভালো হতে পারে। এখন তারা মনে করেছে যে আমি হয়তো সঠিক ব্যক্তি যে গাইড করতে পারে।’

প্রথমবারের মত ঢাকায় খেলাটাকে ভাগ্যের বলছেন মিস্টার ডিপেন্ডেবল খ্যাত এই ব্যাটসম্যান, ‘ঢাকাতে খেলার যেটা আমি অনেকবারই বলেছি এটাই ফার্স্ট টাইম। সবারই স্বপ্ন থাকে এমন বড় বড় টিমে খেলার স্বপ্ন থাকে বিশেষত ঢাকায়। আমি খুব ভাগ্যবান যে তারা এবার আমাকে নিয়েছে। আমি চেষ্টা করবো আমার অনুযায়ী প্রতিদান দেয়ার।’

আগামীকাল উদ্বোধনী ম্যাচেই বেক্সিমকো ঢাকা মুখোমুখি হবে মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীর। অধিনায়ক হিসেবে দলকে চ্যাম্পিয়ন করার চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত মুশফিক, ‘একটা চ্যালেঞ্জ ক্যাপ্টেন হিসেবে নাম্বার ওয়ান করা। ইন শা আল্লাহ সেই চ্যালেঞ্জ নেয়ার জন্য আমি প্রস্তুত। আমার টিমে যারা আছে তারা যদি সার্পোটটা করে, এটা অসম্ভব না।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সাকিবের ফেরা নিয়ে তিন অধিনায়কের ভাবনা

Read Next

সুর বদলে ফেললেন তামিম ইকবাল

Total
4
Share