‘ক্যাপ্টেন্সির প্রেশার আসলে আপনাদের বানানো’

ক্যাপ্টেন্সির প্রেশার আসলে আপনাদের বানানো-তামিম ইকবাল

চলতি বছরের ৮ মার্চ বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক হন তামিম ইকবাল। মাশরাফি বিন মর্তুজার রেখে যাওয়া চেয়ারে বসে এখনো দলকে নেতৃত্ব দেওয়া হয়নি তামিমের।

দায়িত্ব পাবার পরদিনই তামিম জানিয়েছিলেন সবার সমর্থন চান তিনি। বলেছিলেন, ‘যে যাত্রাটা শুরু হলো সেখানে উচু নিচু থাকবে। আমরা সবাই চাই বাংলাদেশ ওয়ানডে দলকে সফল হতে দেখতে। যখন আমরা বিজয়ী হই তখন সেটা গোটা জাতির জন্য উদযাপনের কারণ হয়। আমি আশা করবো বোর্ড, মিডিয়া, সমর্থকরা আমাকে ভালো সময়ের পাশাপাশি কঠিন সময়েও সমর্থন করে যাবেন।’

তার কদিন বাদে বলেছিলেন সবাইকে ধৈর্য রাখতে হবে, ‘একটা নরমাল কথা যে কেউ অধিনায়কত্ব নিলে আসে যে অধিনায়ক হলে ব্যাটিং পারফরম্যান্স খারাপ হয়ে যায়। আমি নিজেও জানিনা ৬ মাস বা ১ বছর পর আমার ব্যাটিং পারফরম্যান্স কেমন হবে। আপনাদের (সাংবাদিক) একটু ধৈর্য রাখতে হবে, আমাদের দর্শক যারা আছেন তাদেরকেও ধৈর্য রাখতে হবে।’

তবে দেশের হয়ে পুর্ণ মেয়াদে অধিনায়কত্ব পাবার পর কোন অ্যাসাইনমেন্ট না পেলেও ‘ক্যাপ্টেন্সির প্রেশার’ টার্ম টি তামিমকে শুনতে হয়েছে একাধিকবার। বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে তামিম একাদশকে নেতৃত্ব দেওয়া তামিম বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে ফরচুন বরিশালের অধিনায়ক। এদফাতেও একই কথা শুনতে হয়েছে তামিমকে।

আজ গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে ফরচুন বরিশালের অধিনায়ক বলেন, ‘ক্যাপ্টেন্সির প্রেশার! আমি তো এখনো ওরকম প্রেশারের ম্যাচই খেলিনি ভাই, যে ক্যাপ্টেন্সির প্রেশার হবে। ক্যাপ্টেন্সির প্রেশার আসলে আপনাদের বানানো। এটা আপনাদেরই বানানো, আমি এখনো কোন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট (অধিনায়কত্ব পাবার পর) খেলি নি। আমি যেদিন প্রথম অধিনায়কত্ব পেয়েছিলাম, ওদিনই বলে দিয়েছিলাম- ক্যাপ্টেন্সি আপনি জাজ করবেন ৬ মাস-১ বছর পর।’

‘এটা বিশ্বের যত বড় নেতা হোক না কেন, আর যত ছোট নেতা হোক না কেনো। দুই ম্যাচ, তিন ম্যাচ পর আপনারা শুরু করে দেন ক্যাপ্টেন্সির প্রেশার! এটা শুধু আমার জন্য না, এটা অন্য সবার জন্যই। দুই ম্যাচ, তিন ম্যাচে একটা মানুষ কোন কিছু শিখতে পারে না। একটা বাচ্চা হাটতে কিন্তু নয় মাস সময় নেয়। একদিনে যদি ও না হাঁটে, তাহলে আপনি বলতে পারেন না যে ও হাঁটতে পারে না। সময় লাগবে। আর ক্যাপ্টেন্সির প্রেশার আমার খেলাকে কতটা ইমপ্যাক্ট ফেলছে সেটা জাজ করতে আপনার অন্তত ২০ ম্যাচ লাগবে বা ১০-১৫ ম্যাচ। ২-৩ ম্যাচ পর আপনি জাজ করতে পারেন না।’

‘আমার কোন সমস্যা হয় না, আমি এটা নিয়ে চিন্তাও করি না। ক্যাপ্টেন্সি নিয়ে আমি আপনাদের অনেকবারই বলেছি। এটা এমন কিছু না যেটা আমি ছোটবেলা থেকে স্বপ্ন দেখেছি। এটা একটা সুযোগ (বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক) যা আমার কাছে এসেছে। এটা আমি চেষ্টা করবো পুরোপুরি ভাবে ফুলফিল করার। ভালো হবে নাকি খারাপ হবে তা সময় বলে দেবে।’

তামিমের মতে লিডার হতে গেলে ক্যাপ্টেন হওয়া জরুরি না। দলের কেউই লিডারের ভূমিকা পালন করতে পারে।

‘একজন লিডার হতে গেলে আপনার ক্যাপ্টেন হওয়া জরুরি না। আপনি অন্য দেশে দেখেন, আমাদের দেশেও অনেক প্লেয়ার আছে। লিডার কেউ যেকোন সময় হতে পারে। লিডার হতে হলে সেটা আপনাকে কাজ দিয়ে দেখাতে হবে, কথা দিয়ে না।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

তামিমের কম রিসোর্সের আক্ষেপ, খেলবেন ‘আউট অব দ্য বক্স’ ক্রিকেট

Read Next

পিএসএলে নিজের খেলার ধরণে খুশি তামিম

Total
2
Share