ইফতিখার-বাবরে পাকিস্তানের সহজ জয়

ইফতিখার-বাবরে পাকিস্তানের সহজ জয়
Vinkmag ad

আগের ম্যাচে জয়ের দ্বারপ্রান্তে গিয়ে হারা জিম্বাবুয়ে আজ (১ নভেম্বর) পাকিস্তানের সামনে লড়াইও করতে পারেনি। পাকিস্তানি অফ স্পিনার ইফতেখার আহমেদের প্রথম পাঁচ উইকেট শিকারে শন উইলিয়ামসের ৭৫ রানের ইনিংসের পরও ২০৬ রানেই অলআউট হয় সফরকারীরা। বাবর আজমের ৭৭ রানে ভর করে ৬ উইকেটের জয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিশ্চিত করে পাকিস্তান।

২০৭ রানের লক্ষ্য তাড়ায় নেমে দারুণ শুরু এনে দেন পাকিস্তানি দুই ওপেনার ইমাম উল হক ও আবিদ আলি। দুজনের ৬৮ রানের জুটি ভাঙ্গে আবিদ আলি (২২) টেন্ডাই চিসোরোর বলে ক্রেইগ আরভিনকে ক্যাচ দিলে। আবিদ ফিরে গেলেও বায়ক টু ব্যাক ফিফটির পথেই ছুটছিলেন ইমাম উল হক। তবে চিসোরোর দ্বিতীয় শিকার হয়ে তাকে ফিরতে হয় ৬১ বলে ৫ চারে ৪৯ রান করে।

এরপর এক প্রান্তে অধিনায়ক বাবর আজমকে রেখে ঝড়ো ইনিংসের ইঙ্গিত দিচ্ছিলেন অভিষিক্ত হায়দার আলি। ২৪ বলে ১ চার ২ ছক্কায় ২৯ রান করে ফিরলে দু পরিণত হয় ১৩৭ রানে তিন উইকেটে। দলীয় ১৬২ রানে সিকান্দার রাজার বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন মোহাম্মদ রিজওয়ান (১)। তবে বাকি পথ পাড়ি দিতে কোন সমস্যা হয়নি কাপ্তান বাবর আজমের।

 

View this post on Instagram

 

Captain’s knock from Babar Azam #PAKvZIM

A post shared by cricket97 (@cricket97bd) on

৭৪ বলে ৭ চার ২ ছক্কায় ৭৭ রানের অপরাজিত ইনিংসে ৮৮ বল হাতে রেখে দলকে এনে দেন ৬ উইকেটের জয়। তাকে সঙ্গ দেওয়া ইফতেখার আহমেদ অপরাজিত ছিলেন ১৬ রানে। এই জয়ে তিন ম্যাচ সিরিজটি ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল পাকিস্তান।

এর আগে রাওয়ালপিন্ডি ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে আগে ব্যাট করা জিম্বাবুয়ের শুরুটা ভালো হয়নি। আগের ম্যাচে ওয়ানডে অভিষেক হওয়া পাকিস্তানি পেসার হারিস রউফের প্রথম ওয়ানডে শিকার হয়ে দলীয় ১৮ রানে ফিরে যান ওপেনার চামু চিবাবা (৬)। তিন নম্বরে নামা ক্রেইগ আরভিনকে (৩) ফিরিয়ে অভিষিক্ত মুহাম্মদ মুসা নিজের দ্বিতীয় বলেই প্রথম আন্তর্জাতিক উইকেটের দেখা পান।

মাঝে কিছুটা দায়িত্ব নেওয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন ওপেনার ব্রায়ান চারি (২৫)। ফাহিম আশরাফের বলে হায়দার আলিকে ক্যাচ দিয়ে ফিরলে ৫৯ রানে তিন উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। এরপর ৬১ রানের জুটিতে দলের বিপর্যয় কাটান আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান ব্রেন্ডন টেইলর ও শন উইলিয়ামস।

কিন্তু এরপরই ইফতেখার আহমেদের আঘাত, ব্রেন্ডন টেইলরকে ইমাম উল হকের ক্যাচে পরিণত করে শুরু। ক্যারিয়ারের আগের ৫ ম্যাচে মাত্র এক উইকেট শিকার করা এই অফ স্পিনার তুলে নেন টানা ৫ উইকেট। ৩৬ রান করা টেইলরের পর ফিরিয়েছেন মাধেব্রে (১০), সিকান্দার রাজা (২), টেন্ডাই চিসোরো (৭) ও শন উইলিয়ামসকে (৭৫)। তার স্পিন ঘূর্ণিতে ৩ উইকেটে ১২০ থেকে ৮ উইকেতে ১৭১ রানে পরিণত হয় জিম্বাবুয়ে।

 

View this post on Instagram

 

Top knock from Sean Williams #PAKvZIM

A post shared by cricket97 (@cricket97bd) on

অন্য প্রান্তে আসা যাওয়ার মিছিলে লড়াই করেছেন অলরাউন্ডার শন উইলিয়ামস। ৭০ বলে ১০ চার ১ ছক্কায় ৭৫ রানের ইনিংসটি থামে ইফতেখার আহমেদকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে শাহীন শাহ আফ্রদির হাতে ধরা পড়লে। ৮ম ব্যাটসম্যান হিসেবে তার বিদায়ের পর জিম্বাবুয়ে ইনিংসও টিকেনি বেশিক্ষণ, অল আউট হওয়ার আগে স্কোরবোর্ডে যোগ হয় ২০৬ রান। ইফতেখার আহমেদের ৪০ রানে ৫ উইকেটের পাশাপাশি মুহাম্মদ মুসা দুইটি ও হারিস রউফ, ফাহিম আশরাফ এবং ইমাদ ওয়াসিমের শিকার একটি করে উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

জিম্বাবুয়েঃ ২০৬/১০ (৪৫.১ ওভার), চারি ২৫, চিবাবা ৬, আরভিন ৩, টেইলর ৩৬, উইলিয়ামস ৭৫, মাধেব্রে ১০, রাজা ২, চিসোরো ৭, মুম্বা ১১, মুজারাবানি ১৭, নাগারাভা ১*; আফ্রিদি ১০-১-৩৬-০, রউফ ৭-০-৩১-১, মুসা ৬.১-১-২১-২, ফাহিম ৭-১-৩–১, ইমাদ ৫-০-৪৩-১, ইফতেখার ১০-২-৪০-৫।

পাকিস্তানঃ ২০৮/৪ (৩৫.২ ওভার), ইমাম ৪৯, আবিদ ২২, বাবর ৭৭*, হায়দার ২৯, রিজওয়ান ১, ইফতেখার ১৬*; নাগারাভা ৪-০-২৫-০, মুজারাবানি ৮-০-৪৮-০, মুম্বা ১-০-১২-০, চিসোরো ১০-০-৪৯-২, মাধেব্রে ২.২-০-১৪-০, উইলিয়ামস ৫-০-৩১-১, রাজা ৫-১-২৩-১।

ফলাফলঃ পাকিস্তান ৬ উইকেটে জয়ী

ম্যাচসেরাঃ ইফতিখার আহমেদ (পাকিস্তান)।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ভেঙ্কটেশকে যুবরাজের কথা মনে করান দেবদূত

Read Next

পাঞ্জাবকে ডোবাল আগেই ডুবে যাওয়া চেন্নাই

Total
7
Share