মুশফিকের কম কথাতেও অনুপ্রাণিত শুক্কুর

ইরফান শুক্কুরের ঝড়ো ইনিংস, নাজমুল একাদশের বড় সংগ্রহ
Vinkmag ad

বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে যে কয়জন ক্রিকেটার আলাদা করে নজর কেড়েছে তাদের মধ্যে একজন নাজমুল একাদশের বাঁহাতি ব্যাটসম্যান ইরফান শুক্কুর। তিন ম্যাচে ১ ফিফটিতে রান করেছেন ১২৮ গড়ে ১২৮ রান। সীমিত ওভারের ফরম্যাটে বেশ কার্যকর এই ব্যাটসম্যান সামর্থ্যের জানান দিচ্ছিলেন ঘরোয়া ক্রিকেটে। এবার মুশফিকুর রহিমের সাথে ড্রেসিং রুম ভাগাভাগি করে বাড়তি অনুপ্রেরণা নিচ্ছেন এই ব্যাটসম্যান। ইতোমধ্যে তার দেওয়া পরামর্শ মেনে চলারও চেষ্টা করছেন শুক্কুর।

৩ ম্যাচে ২ জয়ে ফাইনাল অনেকটাই নিশ্চিত নাজমুল একাদশের। আগামীকাল (২১ অক্টোবর) তামিম একাদশের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে মাঠে নামবে তারা। যে ম্যাচটি নাজমুল একাদশের চাইতে তামিম একাদশের কাছেই বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

আজ (২০ অক্টোবর) অনুশীলন শেষে নাজমুল একাদশের বাঁহাতি ব্যাটসম্যান ইরফান শুক্কুর জানিয়েছেন দলে মুশফিকুর রহিমকে পেয়ে কীভাবে অনুপ্রাণিত হচ্ছেন। এক ভিডিও বার্তায় শুক্কুর বলেন, ‘মুশফিক ভাই, সৌম্য আমার সতীর্থ অনূর্ধ্ব-১৯ থেকে। ওরা জাতীয় দলকে অনেক বছর ধরে প্রতিনিধিত্ব করে আসছে। তাদের সঙ্গে ড্রেসিং রুম শেয়ার করতে অনেক বেশি ভালো লাগছে। মুশফিক ভাই বলছে নিজের বৈশিষ্ঠ তুলে ধরতে।’

‘আমি উনার কথাগুলো শুনতে চেষ্টা করছি। উনি কথা কম বললেও কিন্তু খুবই অনুপ্রেরণা দায়ী কথা বলে। উনি বলছে নিজের চরিত্র আর মাঠের ভেতরের এপ্রোচ যাতে এক রাখি। ওটাই আমি চালিয়ে যেতে চাচ্ছি।’

টুর্নামেন্টে নিজের ব্যাটিং লক্ষ্যের কথা জানিয়ে ২৭ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান যোগ করেন, ‘ চাচ্ছি প্রোডাক্টিভ কিছু যাতে দলের জন্য করতে পারি। আমি সাধারণত টপ-অর্ডারে ব্যাটিং করি, এখানে যখন সাতে সুযোগ পেয়েছি। আমার লক্ষ্য হচ্ছে শেষ পর্যন্ত যাতে অপরাজিত থাকি দলের জন্য কিছু প্রোডাক্টিভ কিছু করতে পারি।’

‘এই টুর্নামেন্টটা আমার জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল। আমি আউট অব ট্র্যাক ছিলাম দুই বছর। এর আগে হাই পারফরম্যান্স ক্যাম্পে ছিলাম তিন বছর। এখন এই টুর্নামেন্টে আমি চাচ্ছি দলের যা দরকার ওই অনুযায়ী খেলার।’

লম্বা সময় পর জাতীয় দল ও পাইপলাইনে ইরফান শুক্কুর, নাইম হাসান, ইয়াসির আলি রাব্বি, মিনহাজুল আবেদিন আফ্রিদি সহ চট্টগ্রাম থেকে উঠে আসা ক্রিকেটারের সংখ্যা বাড়ছে। আর এর নৈপথ্যে কাজ করেছে তামিম ইকবাল, মুমিনুল হক সৌরভের মানসিকতা বদলে দেওয়া পরামর্শ।

শুক্কুর বলেন, ‘এখন সাত-আটজন ক্রিকেটার আছে চট্টগ্রাম থেকে। আমাদের মাঝখানে অনেক বড় গ্যাপ পড়ে গিয়েছিল। সাম্প্রতিক সময়ে এইচপিতে, অনুর্ধ-১৯ দলে আর এখন জাতীয় দলে নাঈম আছে, রাব্বি। আমাদের এখন মানসিকভাবে পরিবর্তন হয়েছে সবাই অনেক পরিশ্রম করা শুরু করছে।’

‘তামিম ভাই, সৌরভ ভাই উনারা জাতীয় দলে যখন ছিল তখন আমাদের বলছে কঠোর পরিশ্রম আর এপ্রোচটা যাতে ইতিবাচক থাকে। আর ফিটনেসে যাতে জোর দেয়। আমার মনে হয় এই জন্য সবাই প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ভালো করছে। সিনিয়র ক্রিকেটারদের সঙ্গে।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

পাকিস্তান সফরে যেতে পারেননি জিম্বাবুয়ের ভারতীয় কোচ

Read Next

আইপিএল নিয়ে প্রত্যাশার কথা জানালেন সালমা-জাহানারা

Total
22
Share