দ্রুতগতির বল, ম্যাচ শেষে জানতে পারেন নরকিয়া

দ্রুতগতির বল, ম্যাচ শেষে জানতে পারেন নরকিয়া
Vinkmag ad

বোলিংয়ে ক্রমশ ধার বাড়ছে দক্ষিণ আফ্রিকা এবং দিল্লি ক্যাপিটালসের গতি তারকা আনরিখ নরকিয়ার। রাজস্থান রয়্যালসের বিপক্ষে ম্যাচে করেন আইপিএলের সবচেয়ে দ্রুততম ডেলিভারি, ১৫৬.২২ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টায়। এতে অবাকই হয়েছেন নরকিয়া।

‘ম্যাচের পর আমি শুনেছি (গতিময় বল সম্পর্কে), তবে এ সম্পর্কে আমি কিছু জানতাম না’, আইপিএলে টি-টোয়েন্টি ডট কমে শিখর ধাওয়ানের সাথে ভিডিও আলাপচারিতায় এসব বলেন নরকিয়া।

‘আমি আমার গতিকে ঠিক রাখার জন্য অনেক পরিশ্রম করেছি। পা এবং সামনের বাহু নিয়ে কাজ করেছি। গতির ব্যাপারে সতর্ক আছি। তবে জায়গামত বল করার ক্ষেত্রে এখনও অনেক কিছু বাকি।’

দ্রুতগতির বলটিকে জস বাটলার স্কুপ করে ফাইন লেগ দিয়ে চার হাকান। ২য় বলটি একই রকম করেন নরকিয়া এবং একইভাবে আবারও চার মারেন বাটলার। তবে পরের বলেই চমৎকার ইনসুইংগারে বোল্ড হন বাটলার।

‘বাটলারের সাথে লড়াইটা দারুণ ছিল। আমি জানি সে স্কুপ খেলতে জানে। কিন্তু প্রথমে স্কুপ করাতে আমি কিছুটা বিস্মিত হয়েছিলাম। আমি ভাবতে পারিনি সে আবার একই শট খেলে চার হাকাবে। সে ভালো খেলেছে এবং আমি তাকে পরাভূত করতে পেরেছি। আমি উইকেটকে কাজে লাগিয়ে ভালো গতিতে বল করেছিলাম এবং বলের ভ্যারিয়েশনও পাচ্ছিলাম।’

 

View this post on Instagram

 

Look who is impressed with Anrich Nortje’s speed #DCvRR #Dream11IPL #IPL2020

A post shared by cricket97 (@cricket97bd) on

নরকিয়ার দ্রুততম ডেলিভারিতে একটুও বিস্মিত নন অবশ্য সতীর্থ পেসার কাগিসো রাবাদা।

‘প্রতি ম্যাচে এমনটা করে সে। আমি তাকে নিয়ে অনেক আনন্দিত। আমরা যখন বোলিং করি, তখন বল জায়গামত পড়ছে কীনা, সেটা দেখি, গতিটা এখানে আপেক্ষিক। পরস্পরের কাছ থেকে অনেক কিছু শিখি,জানি। সে খুব ভালো গতিসম্পন্ন বোলার এবং আমি তার কাছে টেকনিকাল খুটিনাটি সম্পর্কে অবগত আছি। তার সাথে আমার ভালো অভিজ্ঞতা আছে। তার সাথে আলোচনা করতেও ভালো লাগে’, রাবাদা জানান।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

গেইল-রাহুলের ব্যাটে চড়ে পাঞ্জাবের জয়

Read Next

মেহেদী-তাইজুলের প্রশংসা, দায় স্বীকার করছেন তামিম

Total
3
Share