বিসিবির শক্ত অবস্থান, সুর নরম লঙ্কান ক্রীড়ামন্ত্রীর

বিসিবির শক্ত অবস্থান, সুর নরম লঙ্কান ক্রীড়ামন্ত্রী নমল রাজাপাকশের

শ্রীলঙ্কান বোর্ডের পাঠানো কঠিন শর্তের নীতিমালা মেনে সফর করা সম্ভব নয় স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। আজ (১৪ সেপ্টেম্বর) মিরপুরে গণমাধ্যমের উদ্দেশ্যে পাপনের দেওয়া বিবৃতির পর অবশ্য নমনীয় সুরে কথা বলছে লঙ্কান ক্রীড়া মন্ত্রী নমল রাজাপাকশে। ইতোমধ্যে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটকে নির্দেশ দিয়েছেন দেশটির কোভিড-১৯ টাস্ক ফোর্সের সাথে আলোচনা করতে এবং বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের দাবি দাওয়া পুনর্বিবেচনা করতে।

শ্রীলঙ্কা সফরে তিন ম্যাচ টেস্ট সিরিজ খেলতে ২৭ সেপ্টেম্বর দেশ ছাড়ার কথা ছিল বাংলাদেশ দলের। যেখানে একই সাথে শ্রীলঙ্কা যাওয়ার কথা হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) ইউনিটের। মূলত পর্যাপ্ত অনুশীলনের লক্ষ্যেই এইচপি, জাতীয় দলের বড় বহর নিয়ে লঙ্কা সফরে যেতে চেয়েছে বিসিবি। এছাড়া ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনের পরিবর্তে ৭ দিনের কোয়ারেন্টাইন ও শুরু থেকেই নিজের মত করে অনুশীলনের কথা ছিল।

কিন্তু সফরের সময় ঘনিয়ে আসতেই শ্রীলঙ্কান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ অনুসারে বেশ কড়া কিছু শর্ত জুড়ে দিয়ে নীতিমালা পাঠায় শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট। ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক উল্লেখ করে শুরু থেকেই টাইগাররা অনুশীলনের সুযোগ পাবেনা বলে জানানো হয়। ৩০ সদস্যের বেশি সফর করতে পারবেনা বলেও নীতিমালায় উল্লেখ ছিল। এমনকি নেট বোলার সরবরাহ করতে পারবেনা বলেও সাফ জানিয়ে দেয় শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট। বাংলাদেশ থেকেও বাড়তি নেট বোলার না নেওয়ার নির্দেশনাও রয়েছে।

ফলে এমন কঠিন সব শর্ত মেনে এই সফর সম্ভব নয় বল জানান বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। বিসিবির এমন সিদ্ধান্তের পর নড়েচড়ে বসেছে শ্রীলঙ্কান ক্রীড়ামন্ত্রী। নিজের টুইটারে তিনি লিখেন, ‘যেহেতু আমরা জানি কোভিড-১৯ মহামারীটি এখনও বিশ্বব্যাপী বৃহত্তর একটা ইস্যু তাই প্রতিরোধ ব্যবস্থা অবশ্যই অগ্রাধিকার বেশি পাবে। তবে এই অঞ্চলে ক্রিকেট তাতপর্য বিবেচনা করে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটকে (এসএলসি) কোভিড টাস্ক ফোর্সের সাথে পরামর্শ ও বিসিবির বিষয়গুলো পুনর্বিবেচনা করতে বলেছি।’

উল্লেখ্য, আজ (১৪ সেপ্টেম্বর) শ্রীলঙ্কা সফর ইস্যুতে নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘আমাদের বলা হয়েছিল তাদের ওখানে করোনা নাই বলতে গেলে। তারপর দেখলাম ওদের ওখানে লিগ-টিগ হচ্ছে। পরে আমরা ওদের জানালাম যে আমরা বড় স্কোয়াড নিয়ে যাব। তাদের ওখানে আমরা অনুশীলন করবো।’

‘ওরা এখন অনুশীলনেরও সুযোগ দিচ্ছে না। কোনো অনুশীলন ছাড়া, যেখানে আমাদের খেলোয়াদের ৭ মাস ধরে খেলা নেই সেখানে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপতো হতেই পারে না। ওখানে গিয়েও আমরা অনুশীলন করতে পারবো না, সেটা তো সম্ভব না। কাজেই এই মুহূর্তে এটা হওয়া সম্ভব না।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

লম্বা বিরতির পর গ্যালারিতে ফিরছে দর্শক

Read Next

কর্পোরেট ক্রিকেট লিগ আয়োজনের ভাবনায় বিসিবি

Total
8
Share