বাংলাদেশ চেয়েছিল ‘৬৫’, শ্রীলঙ্কা বলছে ‘৩০’

তাইজুল বাংলাদেশ

দীর্ঘ অপেক্ষা শেষে শ্রীলঙ্কা সফরের আনুষ্ঠানিক স্বাস্থ্য নীতিমালা বিসিবিকে পাঠিয়েছে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট (এসএলসি)। কঠিন সব শর্তের মধ্যে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন ছাড়াও আছে টাইগার বহরে সদস্য সংখ্যা কমিয়ে আনার কথা। জাতীয় দল ও হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) ইউনিটের একসাথে লঙ্কান বিমানে চড়ার কথা, সব মিলিয়ে ৬৫ জনের বহর।

লঙ্কান গণমাধ্যমের সূত্রমতে দেশোটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সংখ্যাটা ৩০ এর মধ্যে রাখার নির্দেশনা দিয়েছে। ফলে শেষ পর্যন্ত এই নীতিমালা মানতে হলে এইচপিকে ছাড়াই যেতে হবে জাতীয় দলকে। পর্যাপ্ত প্রস্তুতির লক্ষ্যেই একমাস আগে শ্রীলঙ্কায় যেতে চেয়েছিল জাতীয় দল ও এইচপি ইউনিট। যেখানে একসাথে অনুশীলনের পাশাপাশি নিজেদের মধ্যে ভাগ হয়ে প্রস্তুতি ম্যাচও খেলার কথা ছিল।

লঙ্কান বোর্ডের নির্দেশনা মেনে এখনই অবশ্য সবকিছু মেনে নিচ্ছেনা বিসিবি। দুই বোর্ডের মধ্যে আলোচনা চলছে দফায় দফায়। আবার লঙ্কান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ বলে এর বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই সেটিও স্বীকার করছেন এইচপি ইউনিটের চেয়ারম্যান নাইমুর রহমান দুর্জয়। এমনকি শেষ পর্যন্ত এই নীতিমালায় বহাল থাকলে জাতীয় দলের সফরই অগ্রাধিকার পাবে বলে জানিয়েছেন।

আজ (১৩ সেপ্টেম্বর) এ সংক্রান্ত বৈঠক শেষে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে নাইমুর রহমান দুর্জয় বলেন, ‘দুই বোর্ড এখনো পর্যন্ত একমত হয়েছে ৭ দিনের কোয়ারেন্টাইন। শ্রীলঙ্কান স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনা বলছে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন। একই সাথে আগে যেটা ছিল কোয়ারেন্টাইনে থাকা অবস্থায় আমরা অনুশীলন করতে পারবো কিন্তু এখন সেটাতেও নিষেধ আসছে। কাজেই আমরা আমাদের গুলো তাদের জানাচ্ছি।’

‘এটা শ্রীলঙ্কা বোর্ডের নিয়ন্ত্রণে না, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, আর্মি অনেক ব্যাপার আছে। সফরে সদস্য সংখ্যাও কমানোর চিন্তা ভাবনা করছে। সেটাও একটা ইস্যু। সেখানে আমরা আরও বাড়ানোর প্রস্তাব দিচ্ছি।’

শেষ পর্যন্ত শ্রীলঙ্কান বোর্ডের নির্দিষ্ট করে দেওয়া সদস্য সংখ্যা নিয়েই যদি সফরে যেতে হয় সেক্ষেত্রে সফর নিয়ে নতুন করে ভাববে বিসিবি নাকি কেবল জাতীয় দলকেই পাঠাবে?

এমন প্রশ্নে দুর্জয়ের সোজা উত্তর অগ্রাধিকার পাবে জাতীয় দলের সফরই। মূলত তিন ম্যাচ টেস্ট সিরিজটি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ বলে বিসিবির বাড়তি গুরুত্ব।

বিসিবির এই পরিচালক এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘এইচপির ক্যাম্পটাতো আলাদা, অগ্রাধিকার তো পাবে জাতীয় দলের সফর। কারণ আমাদের এইচপির যে ক্যাম্প সেটা আমরা এখন করতে পারবো পরেও করতে পারবো। কিন্তু জাতীয় দলের যে সফর সেখানে কিছুটা সীমাবদ্ধতা আছে। আপনারা জানেন টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ব্যাপার আছে। সেক্ষেত্রে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের সাথে যদি আমরা এই উইন্ডোটা মিস করি তাহলে নতুন স্লট বের করা কঠিন হবে। সুতরাং জাতীয় দলের টেস্ট সিরিজটা অগ্রাধিকার পাবে।’

আরো পড়ুনঃ শঙ্কিত নয় বিসিবি, সরগরম আলোচনার টেবিল

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

শঙ্কিত নয় বিসিবি, সরগরম আলোচনার টেবিল

Read Next

বিদেশে ভালো করতে ঘাটতির জায়গা নিয়ে কাজ করছেন মিরাজ

Total
5
Share