শঙ্কিত নয় বিসিবি, সরগরম আলোচনার টেবিল

বিসিবি ও শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের লোগো

টাইগারদের শ্রীলঙ্কা সফর যতই কাছে আসছে শঙ্কাটাও যেন ততই বাড়ছে। মূলত লঙ্কান সরকারের কড়া স্বাস্থ্যবিধিই জটিলতা তৈরি করে। লঙ্কান বোর্ডের নীতিমালা ইতোমধ্যে বিসিবির কাছে পাঠানোও হয়েছে। শর্তমতে বিসিবির চাওয়া পূরণ হচ্ছেনা অনেক ক্ষেত্রেই। কঠিন এসব শর্ত জেনে বিসিবি কোন পথে হাঁটে সেটা দেখার অপেক্ষায় শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট। বিসিবি অবশ্য বলছে সবকিছুই আলোচনার টেবিলে।

লঙ্কা সফরে জাতীয় দলের সাথে হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) ইউনিট মিলিয়ে প্রায় ৬৫ সদস্যের যাওয়ার কথা ছিল। শ্রীলঙ্কায় পৌঁছেই কোয়ারেন্টাইনে না থেকে কিংবা সর্বোচ্চ ৭ দিন কোয়ারেন্টাইনে থেকে অনুশীলন শুরু করতে চেয়েছিল বিসিবি। দুই ক্ষেত্রেই শর্ত মতে বিসিবির চাওয়া পূরণ করতে পারছেনা শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট।

দেশটির সরকারি নির্দেশনা মতে লঙ্কায় পৌঁছে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনেই থাকতে হবে টাইগারদের। এমনকি খেলোয়াড় ও কোচ-কর্মকর্তা সহ ৩০ সদস্যের বেশি যাওয়ার অনুমতিও থাকছেনা। ফলে জাতীয় দলে যেতে রাজি থাকলেও এইচপিকে নেওয়া সম্ভব হবেনা।

লঙ্কান বোর্ডের নীতিমালা পাওয়ার পর আজ (১৩ সেপ্টেম্বর) বিসিবিতে বৈঠকে বসে বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান আকরাম খান, প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু ও এইচপি ইউনিট চেয়ারম্যান নাইমুর রহমান দুর্জয়।

বৈঠক শেষে গণমাধ্যমকে দুর্জয় জানালেন নীতিমালা পেয়েই বেশকিছু বিষয়ে ভাবতে হচ্ছে তাদের। পর্যাপ্ত প্রস্তুতি ও খেলার উপযুক্ত পরিবেশ পেতেই দুই বোর্ডের আলোচনা চলছে দফায় দফায়। দুর্জয় বলেন, ‘জাতীয় দল এবং এইচপির শ্রীলঙ্কাতে একসাথে খেলার যে প্ল্যান সেটা এখনো আছে। শ্রীলঙ্কা বোর্ড ও আমাদের বোর্ড অনেক ক্ষেত্রে একমত ছিল সেখানে শ্রীলঙ্কান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কিছু পর্যবেক্ষণ দিয়েছে। যার কারণে আমাদের একটু ধীরে এগোতে হচ্ছে, যোগাযোগটা আরও বাড়াতে হচ্ছে।’

‘আজকেও আমরা বসেছিলাম। আজকের আলাপে কোন সিদ্ধান্ত নেওয়ার জায়গায় যাওয়া যায়নি। আমরা দুটো বোর্ডই পর্যবেক্ষণগুলো দিচ্ছি। যেহেতু এখানে শ্রীলঙ্কান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা সুতরাং তাদের আদেশের বাইরেতো যাওয়া যাবেনা। সেই আলাপ আলোচনাটাই চলছে। শ্রীলঙ্কান বোর্ড তাদের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে আলোচনা করে আমাদেরকে ফিডব্যাক দিবে।’

১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন বাধ্যবাধকতা সহ অন্যান্য নির্দেশনা মতে বাংলাদেশের শ্রীলঙ্কা সফর অনেকটাই ধোঁয়াশা তৈরি করেছে। তবে নাইমুর রহমান দুর্জয় অবশ্য তেমনটা ভাবছেন না, ‘শঙ্কা না, আসলে আপনি খেলতে চাচ্ছেন কিন্তু খেলার পরিবেশটাতো থাকতে হবে। সেই পরিবেশটা তৈরি এবং সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিয়ে যেন আমরা খেলতে পারি। ৬-৭ মাস খেলার বাইরে সেক্ষেত্রে টেস্ট ম্যাচ খেলাটা, সেই টেস্টের প্রস্তুতিটাও ঠিকঠাক আমরা করতে না পারি সেটাতো কঠিন হবে। আমরা দুই বোর্ডই আন্তরিক আছি সবকিছু ঠিকঠাক করে যেন মাঠে নামতে পারি।’

আরো পড়ুনঃ বাংলাদেশ চেয়েছিল ‘৬৫’, শ্রীলঙ্কা বলছে ‘৩০’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে আজ আগে ব্যাটিংয়ে স্বাগতিকরা

Read Next

বাংলাদেশ চেয়েছিল ‘৬৫’, শ্রীলঙ্কা বলছে ‘৩০’

Total
35
Share