বিসিবির সুযোগ-সুবিধা ব্যবহার করতে পারবেন সাকিব, তবে…

সাকিব আল হাসান বিকেএসপি

তথ্য গোপনের অভিযোগে বর্তমানে এক বছরের নিষেধাজ্ঞায় কাটছে টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের। নিষিদ্ধ হওয়ার পরই গণমাধ্যমে একটা বিষয় জানানো হয় যে এই সময়টায় বিসিবির কোন সুযোগ সুবিধা ব্যবহার করতে পারবেনা সাকিব। তবে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হওয়ার দ্বারপ্রান্তে এসে জানা গেল ভিন্ন তথ্য, কেবল গণমাধ্যমে সাকিব ইস্যুতে কোন কিছু প্রকাশ হোক এমনটি চায়নি বলেই এই তথ্য দেওয়া হয়েছিল।

আদৌতে নির্দিষ্ট নিয়মের মধ্যে থেকে বিসিবির সকল সুযোগ সুবিধাই নিতে পারবেন সাকিব। তবে আইসিসির দুর্নীতি দমন ইউনিটের (আকসু) কড়া নির্দেশ এসব জানতে পারবেনা বাইরের কেউ। একদম ক্লোজ ডোর অনুশীলনেই ঘাম ঝরাতে পারবেন এই অলরাউন্ডার। তবে মিরপুর কিংবা বিসিবির অন্য কোন ভেন্যুতে সাকিব এই সুযোগ নিলে অবশ্যই বাইরে প্রকাশ হওয়ার একটা ঝুঁকি থাকতো। যে কারণে সাকিবও বেছে নিয়েছেন নিজের সাবেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিকেএসপিকে।

গত ৫ সেপ্টেম্বর থেকে সেখানেই নিরবে নিভৃতে অনুশীলন করছেন সাকিব। আগামী ২৯ অক্টোবর শেষ হচ্ছে তার নিষেধাজ্ঞা। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিন ম্যাচ টেস্ট সিরিজের শেষ দুই ম্যাচে খেলাটাও অনেকোটা নিশ্চিত।

সাকিবের বিসিবির সুযোগ সুবিধা ব্যবহার সম্পর্কে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী সুজন ক্রীড়া সাংবাদিক নোমান মোহাম্মদের সাথে আলাপে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। ‘নট আউট নোমান’ ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত সেই ফোনালাপে নিজাম উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘বিসিবির সুযোগ সুবিধা সে ব্যবহার করতে পারবে। অনেকসময় কনফিউশন থাকে এ কারণে আমরা লিখিত নিয়ে এসেছি। মানে সে কী কী পারবে নিয়মকানুনগুলো বলে দিয়েছে আকসু।’

গণমাধ্যম থেকে দূরে থাকতেই মিরপুর নয় বিকেএসপিতে নিবিড় অনুশীলন চলছে সাকিবের। এ প্রসঙ্গে বিসিবি প্রধান নির্বাহী যগ করেন, ‘সে পাবলিকলি কিছু করতে পারবে না। দলের সঙ্গে অনুশীলন করতে পারবে না। তার যেটা করতে হবে সেটা হল সে একক অনুশীলন করতে পারবে, বিসিবির কোচদের সাহায্য নিতে পারবে। কিন্তু এসব যতটা নিভৃতে করা যায় ততটাই ভালো।’

‘এখানে মিডিয়ার একটা বিষয় রয়েছে। সে সেটা করতে পারবে না। যেমন ধরেন আমাদের মাঠে অনুশীলন করলে আপনারা ১০ জন গিয়ে এটা ওটা জানতে চাইবেন। নিষেধাজ্ঞা শেষ হবার আগ পর্যন্ত আকসুও অনুমতি দেবে না। এই কারণে আমরাও চাই না যে ওর কোনো সমস্যা হোক। সাকিব তো নিজেও জানে কি করা উচিত কিংবা কি করতে হবে।’

‘সে সেভাবেই করবে, এরপরে যদি ওর কোনো সাপোর্টের দরকার হয় তাহলে তো আমরা দিবোই। সাকিব যদি চায় তাহলে সে অবশ্যই মিরপুর স্টেডিয়ামে অনুশীলন করতে পারবে। কিন্তু সেক্ষেত্রে আমরা হয়তো অকে আলাদা করে করাতাম যাতে এক্সপোজারটা না হয়ে যায়। মানে ক্লোজ ডোর ট্রেনিং করতে পারবে সে। একজন কোচ কিংবা একজন ট্রেনার থাকতে পারবে ওর সঙ্গে।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

বিগব্যাশে খেলতে উন্মুখ মালান-রয়-বেয়ারস্টোরা

Read Next

বাবরকে টপকে শীর্ষে মালান, উডের লম্বা লাফ

Total
4
Share