মিসবাহকে জহির: ‘যেকোন একটা বেছে নাও’

মিসবাহ উল হক ও হায়দার আলি প্রসঙ্গে জহির আব্বাস

পাকিস্তানি কিংবদন্তী ক্রিকেটার জহির আব্বাস পাকিস্তানের প্রধান কোচ ও প্রধান নির্বাচক মিসবাহ উল হককে সফল হওয়ার জন্য যেকোন একটি পদ ছেড়ে দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

‘আমি কখনোই দুইটি গুরুত্বপূর্ণ পদকে একসাথে বেছে নিতাম না। কেননা এটি আপনার মধ্যে প্রচণ্ড চাপ বাড়াবে। পেশাদারি ক্রিকেট কখনোই সহজ খেলা নয়। আমার মতে মিসবাহর এখনই সঠিক সময় যেকোন একটি গুরুত্বপূর্ণ পদকে প্রাধান্য দিয়ে অপরটি ছেড়ে দেওয়ার। কেননা দিনশেষে আপনার কোন অজুহাত কেউ শুনবে না’, ক্রিকবাজকে বলেন কদিন আগেই আইসিসির হল অফ ফেমে অন্তর্ভূক্ত হওয়া জহির আব্বাস।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে লিড নেওয়া সত্ত্বেও টেস্ট হেরে যাওয়াকে খারাপ দলের পারফরম্যান্সের সাথে তুলনা করেছেন সাবেক এই কীর্তিমান ব্যাটসম্যান।

‘আমাদের দুর্বলতার জন্যই প্রথম টেস্ট এক অর্থে ইংল্যান্ডকে বিলিয়ে দিয়েছি আমরা। দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে সঠিক সংমিশ্রণ আনার জন্য আমাদের আরও পরিশ্রম করতে হবে।’

‘এটা বেশ ভালো যে শেষ ম্যাচ জিতে টি-টোয়েন্টি সিরিজে আমরা সমতা এনেছি। তবে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে প্রথম ইনিংসে ১৯৫ রান করা সত্বেও হেরে যাওয়ায় আমি বেশ অবাক হয়েছি। ইংল্যান্ড খুব সহজেই সে টার্গেট অতিক্রম করেছে।’

হায়দার আলির প্রশংসা

যদিও পাকিস্তানের তরুণ ব্যাটসম্যান হায়দার আলির ব্যাটিংয়ের ভূয়সী প্রশংসা করেন জহির আব্বাস। সাথে এও বলেন যে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে পাকিস্তান একটি আদর্শ।

‘আমাদের বোলিং একটি সমস্যা কেননা তারা ম্যাচ জয়ের জন্য ভালো বোলিং করছে না এবং ঠিক এই জায়গাতে মিসবাহ বাহিনীকে ভালোভাবে কাজ করতে হবে।’

তিনি বলেন হায়দার আলির মধ্যে তিনি বেশ সাহসী ও সম্ভাবনাময় ক্যারিয়ার দেখতে পাচ্ছেন যদিও অন্য গ্রেটদের সাথে তাঁকে কোন প্রকার তুলনা করতে নারাজ তিনি।

‘তার (হায়দার আলি) সাথে কারও তুলনা করাটা অনেক বড় ভুল হবে, কেননা তার সামনে লম্বা পথ আছে। বাবর আজমের সাথে অন্য কারও তুলনাও আমি চাই না। প্রত্যেককে প্রত্যেকের স্বকীয়তা অনুযায়ী খেলতে দেওয়া উচিত।’

ভারত থেকে শিক্ষা

প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ১০০ সেঞ্চুরি করা জহির আব্বাসের মতে বাবর আজম তার দলের অন্যান্য ব্যাটসম্যানের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা পাচ্ছে না। তিনি বলেন যে দুই তিন দশক পূর্বে পাকিস্তানের অবস্থাও এমন ছিল। ভারতের কাছ থেকে শেখার পরামর্শ দেন তিনি।

‘আমাদের খেলোয়াড়দের উচিত ভারতের থেকে শিক্ষা অর্জন করা এবং খেলায় নিজেদের উন্নতি করা। ভারতীয় দল থেকে শিক্ষা নেওয়াটা আমার কাছে কখনোই ভুল মনে হয় না। তবে একটা সময় ছিল যখন আমরা তাদের উপর প্রভাব বিস্তার করতাম।’

ভারতীয় ক্রিকেটে শক্তিশালী আর্থিক নিরাপত্তা বজায় রাখাকে উন্নতির ধারক বলে মনে করেন জহির আব্বাস।

‘ভারতীয় ক্রিকেটাররা নিজেদের বেশ নিরাপদ মনে করতে পারে। কিন্তু পাকিস্তানে এ ব্যাপারটিকে বেশ তাচ্ছিল্যভাবে দেখা হয় যা পাকিস্তানের ক্রিকেটে বেশ ক্ষতিকর প্রভাব ফেলছে।’

বিশ্বের অন্যান্য সফল ক্রিকেটারদের দেখে পাকিস্তানের খেলোয়াড়দের ভালো করার পরামর্শ দেন জহির আব্বাস। একইসাথে তিনি রোহিত শর্মার দারুণ প্রশংসা করেন।

‘সে (রোহিত) খুবই ভালো এবং সে জানে কীভাবে বোলারদের উপর প্রভাব বিস্তার করতে হয়।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

সেমির লড়াই: ওয়ারিয়র্সের ব্যাটিং বনাম জুকসের বোলিং

Read Next

করোনা টেস্টে পজিটিভ ওপেনার সাইফ হাসান

Total
3
Share