কোহলির সঙ্গে লড়াই নিয়ে অ্যান্ডারসনের ভাষ্য

জিমি অ্যান্ডারসন ভিরাট কোহলি

ভিরাট কোহলির টেস্ট ক্যারিয়ারের অন্যতম বাজে এক সিরিজ ছিল ২০১৪ সালের ইংল্যান্ড সফর। সিরিজের পাঁচ ম্যাচে রান ১৩.৪০ গড়ে মাত্র ১৩৪! আউট হয়েছেন সবকটি ইনিংসে যার চারবারই শিকার জিমি অ্যান্ডারসনের। আবার উল্টো চিত্র ২০১৮ সালের সফরে, আউট হওয়া ১০ বারে একবারও বোলারের নাম জিমি অ্যান্ডারসন নয়। ২ সেঞ্চুরির সাথে ৩ ফিফটিতে ভারতীয় অধিনায়কের ব্যাট থেকে আসে ৫৯.৩০ গড়ে ৫৯৩ রান।

সময়ের সাথে সাথে কোহলি ব্যাট হয়েছে আরও ধারালো। এদিকে মাত্রই দিন কয়েক আগে প্রথম পেসার হিসেবে টেস্টে ৬০০ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করেন অ্যান্ডারসন। ৩৮ বছর বয়সেও প্রতিপক্ষের সেরা ব্যাটসম্যানের জন্য হুমকি হতে পারেন ইংলিশ এই পেসার। ফিটনেস ও বল হাতে পারফরম্যান্সই তার হয়ে কথা বলে। আগামী বছর ভারতের ইংল্যান্ড সফরে তাই কোহলির সাথে কঠিন লড়াইয়ের প্রত্যাশা তার।

ম্যাচ স্পেশাল পডকাস্টের সাথে আলাপে অ্যান্ডারসন বলেন, ‘তার (কোহলি) মানের ব্যাটসম্যানের বিপক্ষে বল করা সবসময়ই কঠিন। অবশ্যই ২০১৪ সালে তার বিপক্ষে আমার কিছু সাফল্য আছে কিন্তু ২০১৮ সালে যখন সে আবার আসে সম্পূর্ণ ভিন্ন রুপ দেখেছি, অবিশ্বাস্য। এটা সত্যি কঠিন লড়াই হতে যাচ্ছে তবে আমি সেরা ব্যাটসম্যানদের বিপক্ষে এমন কিছুই উপভোগ করি। বোলার হিসেবে আপনি চাইবেন সেরা ব্যাটসম্যানকেই আউট করতে।’

বছরের পর বছর কোহলি নিজের ধৈর্যশীলতা বাড়িয়ে চলেছেন আর এ কারণেই ২০১৮ সালের ইংল্যান্ড সফরের সফলতা এসেছে। এমনটাই বলছেন অ্যান্ডারসন, ‘আমি কেবল অনুভব করি সে কতটা দারুণভাবে বল ছাড়তে পারে। সে যখন প্রথম (২০১৪ সালে) এখানে আসে আমি আউট সুইঙ্গার করতাম আর সে সম্ভবত তাড়াতাড়ি মারতে চাইতো। যে কারণে এজ হয়ে বল স্লিপে ফিল্ডারের কাছে ধরা পড়তো।’

এই মুহূর্তে টেস্ট ক্রিকেটের চতুর্থ ও পেসারদের মধ্যে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি অ্যান্ডারসন আরও যোগ করেন, ‘২০১৮ সালে আবার সে অনেক বেশি ধৈর্যশীল ছিল এবং অনেক বল ছেড়েছে। সে অপেক্ষায় থাকতো আপনার জন্য, কারণ তার পা খুব শক্তিশালী, তার শটও বেড়েছিল। আর সে একবার ভালো শুরু পেলে বোলারের জন্য ব্যয়বহুল হয়ে উঠতো। তার টেকনিক ও মানসিক অ্যাপ্রোচ উন্নত হয়েছিল।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

পুনের এতিমখানা থেকে আইসিসির ‘হল অফ ফেম’

Read Next

ম্যানচেস্টারে আজ আগে ব্যাটিংয়ে পাকিস্তান

Total
4
Share