সাকিবের জন্য যেভাবে প্রস্তুত হচ্ছে বিকেএসপি

সাকিব আল হাসান বিকেএসপি
Vinkmag ad

ক্রিকেটের বদলৌতে সাকিব আল হাসান চষে বেড়িয়েছেন বিশ্বের নানা প্রান্তে। অবসরে পরিবার নিয়ে ভ্রমণে গিয়েছেন কত জায়গাতেই। তবে সব ছাপিয়ে সাভারে অবস্থিত বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানই (বিকেএসপি) তার অন্যতম প্রিয় ঠিকানা জানিয়েছেন সবসময়। তথ্য গোপনের অভিযোগে আইসিসির এক বছরের নিষেধাজ্ঞা উঠতে যাচ্ছে আগামী ২৯ অক্টোবর। তার আগে নিজেকে ফিরে পাওয়ার মিশন শুরু করবেন এই বিকেএসপিতেই।

নিষেধাজ্ঞার কারণে নিতে পারবেন না বিসিবির সুযোগ সুবিধা, যদিও ব্যক্তিগতভাবে জাতীয় দলের কোচ, ট্রেনার ও অন্য কোন সাহায্য ঠিকই পাবেন টাইগার অলরাউন্ডার। আগামী ২-৩ দিনের মধ্যে আমেরিকায় স্ত্রী-সন্তান রেখে দেশে ফেরার কথা সাকিবের। এরপরই বিকেএসপিতে ঘাম ঝরাবেন প্রিয় দুই কোচ নাজমুল আবেদীন ফাহিম ও মোহাম্মদ সালাউদ্দিন কে নিয়ে।

এদিকে নিজের প্রিয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে লম্বা একটা সময় কাটাতে যাচ্ছে সাকিব। তারকা হওয়ার পর এভাবে বিকেএসপিতে যাচ্ছেন প্রথমবার। যেন শৈশবের দিনগুলোতে ফিরে যাওয়ার মত। তাকে সাদরে গ্রহণ করতে বিকেএসপিও প্রস্তুত তার সবটুকু নিয়ে।

প্রতিষ্ঠানটির মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ রাশীদুল হাসান বলেন, ‘সাকিব আল হাসান অনেক দিন খেলায় ছিলেন না। তিনি আমাদের জানিয়েছেন এখানে অনুশীলন করতে চান। তার পুরনো কোচরাও আছেন। আর বিকেএসপি করোনার সময়টাতে সবচেয়ে নিরাপদ।’

‘এখানে বাইরের কেউ প্রবেশ করতে পারে না। আমরাও চেয়েছি আমাদের প্রতিষ্ঠানের ছাত্র এখান থেকেই আবার নিজেকে সাজিয়ে ক্রিকেটে ফিরে আসুক। সেজন্যই বিকেএসপি তাকে সব রকম সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত রয়েছে।’

দেশে ফিরে অনুশীলন শুরুর অন্তত সপ্তাহ খানেক আগেই সাকিব জানাবেন কবে থেকে শুরু করছেন। এ প্রসঙ্গে রাশীদুল হাসান বলেন, ‘কিছুদিন আগে সাকিব আমাকে ফোন করে এখানে অনুশীলনের আগ্রহের কথা জানায়। যেহেতু এখানকার পরিবেশ খুব ভালো। আমরা তাকে বলেছি করতে। সে জানিয়েছে বিকেএসপিতে অনুশীলন শুরুর অন্তত এক সপ্তাহ আগে আমাদের জানাবে।’

বিকেএসপির সাকিব এখন বিশ্বতারকা, ব্যাটে-বলে সমান তালে পারফর্ম করে হচ্ছে সমাদৃত। দেশের ক্রিকেটের একজন নক্ষত্র, নিজেদের পুরোনো ছাত্র ফলে তাকে এভাবে কাছে পেয়ে প্রতিষ্ঠানের সামগ্রিক উন্নতিতে পরামর্শও চাইবেন বলে জানান রাশীদুল হাসান। বর্তমান ছাত্রদের সামনে সাকিবের সাফল্য, ব্যর্থতা ও ভুল ত্রুটির গল্প তুলে ধরার ব্যবস্থাও করতে চান তারা।

বিকেএসপি মহাপরিচালক যোগ করেন, ‘ সাকিবের দেশে ও বাইরে খেলা থাকায় অতীতে বিকেএসপিতে তেমন সময় দিতে পারেনি। এবার তাকে আমরা পাচ্ছি। এখানকার সার্বিক উন্নয়নে কি করলে ভালো হয় সে মতামত আমরা তার কাছ থেকে নেবো। এ ছাড়াও তার জীবনে সাফল্যের গল্প যেন এখনকার ক্রিকেটাররা শুনতে পারে সে চিন্তা আমাদের অনেক দিনের।’

‘শুধু সাফল্য নয়, যে ভুলটা হয়েছে সেটি যেন বিকেএসপির এই প্রজন্মের ক্রিকেটাররা শুনে শিক্ষা নিতে পারে সেটি আমরা চাই। আমরা চেষ্টা করবো একটি সেমিনার আয়োজনের। যদি তার থাকার সময়টাতে বিকেএসপির শিক্ষার্থীরা চলে আসে তাহলে এমন কিছু আয়োজন করার চেষ্টা করবো।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সেন্ট কিটসকে হেসেখেলে হারাল জ্যামাইকা

Read Next

‘টি-টোয়েন্টির জন্য উপযুক্ত ছিলেন না গাঙ্গুলি’

Total
27
Share