৪৫০ মিলিয়ন ডলার ক্ষতির মুখে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া
Vinkmag ad

টিভি স্বত্ব বিক্রি সংক্রান্ত ঝামেলার কারণে বড় ধরণের আর্থিক সংকটের সামনে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। মূলত সেভেন নেটওয়ার্ক ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সাথে চলতি মৌসুমে চুক্তি বাতিল করতে চাওয়াতেই এই সমস্যার সৃষ্টি। যেখানে অন্তত ৪৫০ মিলিয়ন ডলারের চুক্তি বাতিল হতে যাচ্ছে।

অস্ট্রেলিয়ান গণমাধ্যমের সাথে আলাপে সেভেন নেটওয়ার্কে প্রধান জেমস ওয়ারবার্টন জানিয়েছে আসন্ন গ্রীষ্মে তারা ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে সমর্থন দিচ্ছেনা। সাথে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থাকে ধ্বংসস্তূপ, হোঁচট খাওয়া পথভ্রষ্ট ও অযোগ্য সংস্থা বলেও উল্লেখ করে।

অন্যদিকে আরেক টিভি স্বত্ব অংশীদার ফক্স স্পোর্টসও কঠোর অবস্থানে আছে। বিগ ব্যাশ লিগে তারকা ক্রিকেটার কমে যাওয়া নিয়ে ক্ষুব্ধ এবং প্রতি বছর যে ১২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার প্রদান করে তা নিয়েও চ্যালেঞ্জ জানাতে প্রস্তুত।

একই সময়ে আন্তর্জাতিক সিরিজ থাকায় বিগ ব্যাশ লিগে (বিবিএল) অস্ট্রেলিয়ান তারকাদের সংখ্যা আগের চেয়ে কমতে যাচ্ছে। ফলে বার্ষিক ১২০ মিলিয়ন ডলারের টিভি স্বত্ব অনেকটা চ্যালেঞ্জের মুখে। সেভেন নেটওয়ার্ক প্রধান জেমস ওয়ারবার্টন বলেন, ‘বিবিএলে শীর্ষ ১০ রান সংগ্রাহকের মাত্র দুইজন খেলবে এবারের আসরে। শীর্ষ ১০ উইকেট সংগ্রাহকের মাত্র একজনকে পাওয়া যাবে।’

‘সহজ কথায় এটা গ্রহণযোগ্য নয় এবং আমরা এই মৌসুমে সমর্থন দিচ্ছিনা। আগের চাইতে কম মানসম্পন্ন টুর্নামেন্ট দেওয়ার ক্ষেত্রে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার বাধ্যবাধকতা আছে। আমরা বড় অঙ্কের অর্থ দিয়েছি আর বিশ্বকে প্রতিশ্রুতিও দিয়েছি। সম্প্রচারকদের সেরা মানের কিছু দেওয়ার বাধ্যবাধকতা থাকে।’

ডিসেম্বরে শুরু হতে যাওয়া বিগ ব্যাশ লিগের সময়টাতেই ঘরের মাঠে ভারতকে আতিথেয়তা দিবে অস্ট্রেলিয়া। অন্যদিকে জানুয়ারিতে সিরিজ আছে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও। ফলে সেরা ক্রিকেটারদের বিগ ব্যাশে পুরোটা সময় কোনভাবেই পাওয়ার সম্ভাবনা থাকছেনা, অন্যদিকে সূচিও সাংঘর্ষিক।

এ প্রসঙ্গে ওয়ারবার্টন বলেন, ‘আপনি দেখতে পাচ্ছেন ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সাথে আমাদের ধারাবাহিক হতাশার বিষয়টি। এক নিঃশ্বাসে তারা বলে দিল এই গ্রীষ্মে ক্রিকেটের পুরো সূচি উপহার দিব। এরপরই আবার জানাচ্ছে বিবিএলে অস্ট্রেলিয়ার শীর্ষ খেলোয়াড়েরা থাকছেনা। রাজ্যের সেরা ক্রিকেটাররাই খেলুক, ভক্তরা মন খারাপ নিয়েই থাকুক। এটি স্রেফ বিশৃঙ্খলা।’

‘কি যে একটা হোঁচট খাওয়া পরিস্থিতিতে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রশাসন। কতটা বোকার মত কাজ এটা যে বিগ ব্যাশ ও আন্তর্জাতিক সিরিজ একই সময়ে আয়োজন? পুরো টুর্নামেন্টকে একটা চাপে ফেলে দিয়েছে। এটি এক প্রকার রসিকতা ও ভক্তদের আবেগ নিয়ে খেলা।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

‘৬’ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের স্কোয়াড চূড়ান্ত করল পিসিবি

Read Next

চেন্নাই শিবিরে করোনা, গোটা দল কোয়ারেন্টাইনে

Total
4
Share