‘সেলিব্রাপিল’ করে শাস্তির ভয়ে আছেন ব্রড

স্টুয়ার্ট ব্রড
Vinkmag ad

চলমান ম্যানচেস্টার টেস্টে নিজের কার্যকারিতা প্রমাণ করে চলেছেন স্টুয়ার্ট ব্রড। লেজের দিকে ব্যাট করে ৪৫ বলে করেছেন মহামূল্যবান ৬২ রান। বল হাতে নিয়ে শুরুর ওভারেই ফিরিয়েছেন ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েটকে। পরে দারুণ এক ডেলিভারিতে ফিরিয়েছেন রস্টন চেজকে।

এমিরেটস ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে যে ইংলিশদের দাপট তার পেছনে বড় ভূমিকা ব্রডেরই। তবে চেজকে ফিরিয়ে ‘সেলিব্রাপিল’ (আবেদন ও উদযাপন একসাথে) করে শাস্তির ভয়ে ছিলেন তিনি।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইনিংসের তখন ৩৫ তম ওভার চলছে। দ্বিতীয় বলে ব্রডের করা দারুণ এক ডেলিভারি আঘাত হানে রস্টন চেজের প্যাডে। আবেদন না করেই উদযাপন শুরু করে দেন ব্রড। অনফিল্ড আম্পায়ার রিচার্ড কেটেলবরো আঙুল উচিয়ে জানিয়ে দেন চেজকে সাজঘরে ফিরতে হবে, চেজও নিশ্চিত আউট জেনে রিভিউ নেননি।

‘সেলিব্রাপিল’ স্টুয়ার্ট ব্রডের ট্রেডমার্ক হয়ে পড়লেও তা আইসিসির কোড অব কন্ডাক্ট বিরোধী। আইসিসির কোড অব কন্ডাক্টের ২.১ অনুচ্ছেদে এর উল্লেখ আছে।

এই ঘটনায় শাস্তি দেবার এখতিয়ার ম্যাচ রেফারির। লেভেল ১ কোড অব কন্ডাক্ট ভাঙার সর্বনিম্ন শাস্তি আনুষ্ঠানিক সতর্কীকরণ, সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ম্যাচ ফি কর্তন ও দুই ডিমেরিট পয়েন্ট। এই ম্যাচে ম্যাচ রেফারির দায়িত্ব পালন করছেন স্টুয়ার্ট ব্রডের পিতা ক্রিস ব্রড।

দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে ব্রড জানান তিনি নার্ভাস, ‘হ্যা, সত্যি বলতে কিছুটা নার্ভাস আমি।’

রস্টন চেজকে আউট করতে পরিকল্পনা সাজিয়েছিলেন ব্রড। আর সেটা সফল হবার পরে উদযাপনের মাত্রা বেশি ছিল। তিনি জানান তিনি এমনভাবে উদযাপন করেছিলেন যেন তাকে এলবিডব্লিউ না, বোল্ড করেছিলেন!

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

সিপিএল ও আইপিএলের মাঝে ওয়েস্ট ইন্ডিজ-দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ

Read Next

এলিস পেরির বিবাহ বিচ্ছেদ

Total
4
Share