মনোবিদের ক্লাসে তামিম-মুমিনুলরা যখন যুবাদের অনুপ্রেরণা

আকবর আলি শামীম হোসেন তানজিম হাসান সাকিব বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯
Vinkmag ad

করোনায় টানা চার মাস গৃহবন্দী কেটেছে ক্রিকেটারদের। সম্প্রতি অনেকেই ঘর ছেড়ে বের হচ্ছেন। নিজ উদ্যোগে ফিটনেসের সাথে স্কিলেও দিচ্ছেন মনযোগ। বিসিবির অনুমতি সাপেক্ষে ৯ ক্রিকেটার তো ১৯ জুলাই থেকে আন্তর্জাতিক ভেন্যুতেই অনুশীলন শুরু করেছেন। তবে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ী ক্রিকেটাররা স্বপ্নযাত্রা থামিয়ে এখনো ঘরেই আঁটকে আছেন। ফিটনেস, স্কিলের সাথে তাদের মনোবলেও চিড় ধরার সম্ভাবনা রয়েছে।

আর এ কারণেই বিসিবি আকবর আলি, রাকিবুল, তানজিম হাসান সাকিবদের জন্য মনোবিদের শরণাপন্ন হয়েছে। ১৮ জুলাই লাইভ সেশনে ক্লাস নেন বিসিবির সাথে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করা আলি খান। কানাডা প্রবাসী এই মনোবিদ কাজ করবেন নারী দলের ক্রিকেটারদের নিয়েও। যুব দলের সাথে মোট তিন সেশনের প্রথমটি শেষ হয়েছে।

যুব দলের পেসার তানজিম হাসান সাকিব ‘ক্রিকেট৯৭’ কে তুলে ধরেন মনোবিদের লাইভ সেশনের অভিজ্ঞতা।

ক্যারিয়ারের যে কোন সময় মানসিক অবসাদ ভর করতে পারে

‘দুই ঘন্টার মত সময় দিয়েছেন প্রথম দিন। মূলত মানসিকভাবে কীভাবে নিজেকে ঠিক রাখতে হয় সেসব নিয়ে কথা বলেছেন। শুধু করোনা পরিস্থিতি নয় ক্যারিয়ারের বিভিন্ন সময়ে মানসিক অবসাদ ভর করতে পারে। ঐ সময়গুলোতে শক্ত থাকার কৌশল, মনোবল ধরে রাখার উপায় নিয়ে বলেছেন। উনি আমাদের বিভিন্ন ক্রিকেটারের সাথে অনেক আগে থেকেই কাজ করেন।’

‘অন্যনা অঙ্গনের ক্রীড়াবিদদের উদাহরণ দিয়ে বুঝিয়েছেন। একজন টেনিস খেলোয়াড়ের কথা বলেছেন যাকে স্যার (আলি খান) থেরাপি দিতেন। চোটে পড়ে উনার কাছে এসে খুব ভেঙে পড়েছিল। ঐ সময়টা স্যার তাকে মানসিকভাবে সমর্থন দেন যা কাজে দেয়। তাকে বুঝিয়েছেন আগে ফিট হয়ে ওঠ, এরপর আবার শুরু কর। তোমাকে ভাবতে হবেনা তুমি আগের চাইতে ভালো নাকি খারাপ করছো। তুমি তোমার সেরাটা দিয়ে লড়াইয়ে নামবে।’

তামিম ইকবাল, মুমিনুল হকদের উদাহরণ

‘পুরো আলোচনাতেই উনি তুলে এনেছেন ক্রিকেট তিনটি জিনিসের সমন্বয়ে খেলতে হয়। বডি ফিটনেস, স্কিল ও মেনটাল ফিটনেস তিন বিভাগেই সমানভাবে এগিয়ে থাকতে হবে। আমাদের সাকিব ভাই, মুশফিক ভাইদের অনেক উদাহরণ দিয়েছেন। তারা কীভাবে চাপ সামলান, চ্যালেঞ্জ নেন এসব ভিডিও পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে দেখিয়েছেন।’

‘তামিম ভাই ২০১৫ বিশ্বকাপে খারাপ খেলার পর উনার সাথে কাজ করেছেন। ফিটনেস, স্কিল সব ঠিক থাকার পরেও কেন ভালো হচ্ছেনা তা নিয়ে দুইজনে অনেক সময় কাটিয়েছেন, কথা বলেছেন। মুমিনুল ভাইও মাঝে মানসিকভাবে পিছিয়ে পড়েছিলেন, উনিও তার সাথে কাজ করেছেন।’

‘এছাড়া এর আগের অনূর্ধে-১৯ দলের একজন ক্রিকেটারও এরকম হয়েছে সবকিছু ঠিক থাকার পরেও লিগে ভালো খেলতে পারছিলনা। তারা সবাই মানসিক দৃঢ়তা নিয়ে কাজ করেছেন এবং ফল পেয়েছেন। আমাদের এই জায়গায় কীভাবে উন্নতি করতে হবে এগুলোই দেখানো হচ্ছে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

স্মিথ-ওয়ার্নারদের কোচ হলেন হাথুরুসিংহে

Read Next

লন্ডন যাবার পরিকল্পনা করছেন তামিম

Total
10
Share