মাঠে ফিরেই ডি ভিলিয়ার্সের ব্যাটে ঝড়, স্বর্ণ জেতালেন দলকে

থ্রি টিম ক্রিকেট

তিন দলের বিশেষ ‘থ্রিটিসি’ (থ্রি টিম ক্রিকেট) ম্যাচ দিয়ে ক্রিকেট ফিরেছে দক্ষিণ আফ্রিকায়। নেলসন মেন্ডেলা দিবসে আজ (১৮ জুলাই) সেঞ্চুরিয়নের সুপার স্পোর্টস পার্কে করোনা পরবর্তী মাঠে ফিরেই বিধ্বংসী ইনিংস খেললেন এবি ডি ভিলিয়ার্স। সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েই স্বর্ণ জেতালেন ঈগলসকে।

ম্যাচটি ভিন্ন একটি কারণেও বাড়তি গুরুত্ব পেয়েছে। এই ম্যাচের উদ্দেশ্য ছিল করোনার প্রভাবে দক্ষিণ আফ্রিকায় ক্ষতিগ্রস্থ ক্রিকেট সংশ্লিষ্টদের সাহায্যার্থে তহবিল গঠন।

এইডেন মার্করামের সাথে শত রানের জুটিতে দলের সংগ্রহ বড় করেন ভিলিয়ার্স। ৩৬ ওভারের ম্যাচটিতে ৬ ওভার করে দুই দফায় ব্যাটিংয়ের সুযোগ পেয়েছে প্রতিটি দল। দুই ভাগে বিভক্ত ম্যাচটিতে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংস খেলেন এইডেন মার্করাম।

Image

৩৩ বলে তার ব্যাট থেকে আসে ৭০ রান। অন্যদিকে ৩৬০ ডিগ্রি খ্যাত ডি ভিলিয়ার্স খেলেন ২৪ বলে ৬১ রানের ইনিংস। ফলে দুই দফায় ১২ ওভার শেষে ঈগলসের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৪ উইকেটে ১৬০, যা রৌপ্য পদক জয়ী কাইটসের চেয়ে ২২ রান বেশি।

দুই দফায় ১২ ওভার ব্যাটিং করে কাইটসের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১৩৮। অন্যদিকে তৃতীয় স্থান বা ব্রোঞ্জ নিয়ে শেষ করা কিংফিশার্সের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১১৩ রান।

ম্যাচ চলাকালীন দক্ষিণ আফ্রিকায় ক্রিকেট ফেরার দিনেও ব র্ণ বা  দের বিরুদ্ধে হয়েছে প্রতিবাদ। চলমান ‘ব্ল্যা ক লা ই ভ ম্যা টা র স’ আন্দোলনকে সমর্থন করে তিন দলের ২৪ জন ক্রিকেটারই পরেছেন কালো আর্ম ব্যান্ড। ইংল্যান্ড – ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচের মত হাঁটু গেড়ে বসেও প্রতিবাদ জানানো হয়।

 

View this post on Instagram

 

#BLM #BlackLivesMatter #SolidarityCup #3TC

A post shared by cricket97 (@cricket97bd) on

ম্যাচের প্রথম অর্ধে শুরুতেই ব্যাট করে কিংফিশার্স। নির্ধারিত ৬ ওভারে তুলতে পারে ২ উইকেটে ৫৬ রান। যেখানে ঈগলস ১ উইকেট হারিয়ে ৬৬ ও কাইটস ১ উইকেটে ৫৮ রান তুলতে সক্ষম হয়।

প্রথম অর্ধের শেষ ইনিংসে ব্যাট করা ঈগলস পরের অর্ধে শুরুতেই ব্যাট করে। প্রথম ইনিংসে অপরাজিত থাকা দুই ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্স ও এইডেন মার্করামই ইনিংস শুরু করেন। ২৭ বলে ফিফটিতে পৌঁছান মার্করাম, অন্যদিকে ভিলিয়ার্স ফিফটি তুলে নেন মাত্র ২১ বলে।

দিনের সবচেয়ে দ্রুত ফিফটি আসে কাইটসের ডোয়াইন প্রিটোরিয়াসের ব্যাট থেকে। ১৭ বলে ৫ চার ৩ ছক্কায় ফিফটি হাঁকান কিংফিশার্সের বিপক্ষে। দুই ইনিংসে একই দলের জন জন স্মাটসের ব্যাট থেকে আসে ৪৮ রান। কিংফিশার্সের প্রথম ইনিংসে ইয়ানেমান মালান খেলেন ১৬ বলে ৩১ রানের ইনিংস। সম পরিমাণ বল খেলে রেজা হেনড্রিক্সের ব্যাট থেকে আসে ২০ রান।

বোলারদের মধ্যে সফল বলতে হয় ঈগলসের অ্যান্ডিলে ফেলুকওয়ায়োকে, ম্যাচে ২৪ রানে নেন দুই উইকেট। কিংফিশার্সের গ্লেটন স্টুরম্যান ২৬ রানে শিকার করেন দুটি। কাইটসের অ্যানরিচ নর্টজে সমান সংখ্যক উইকেট নিতে খরচ করেন ২৭ রান।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

জরিমানার সাথে আর্চার পেলেন লিখিত সতর্কবার্তা

Read Next

নাসিম শাহের ‘৫’, রিজওয়ান-আসাদের ফিফটি

Total
54
Share