ক্যানেরিয়া-মালিক ইস্যুতে পিসিবির বিবৃতি

ক্যানেরিয়া সেলিম মালিক
Vinkmag ad

ফিক্সিং কেলেঙ্কারিতে আজীবন নিষিদ্ধ পাকিস্তানের দুই সাবেক ক্রিকেটার দানিশ ক্যানেরিয়া ও সেলিম মালিক। দুজনেই নিজেদের অপরাধের স্বীকার করে ক্রিকেটে ফিরতে মরিয়া। খেলোয়াড় হিসেবে সম্ভব নয় তবে ক্রিকেট সংশ্লিষ্ট অন্য কোন পেশায় কাজ করার ইচ্ছে থেকেই পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) কাছে শাস্তি মওকুফের অনুরোধ করেন সেলিম মালিক। অনেকটা একই চাওয়া ছিল লেগ স্পিনার দানিশ ক্যানেরিয়ার।

দুজনের অতীত রেকর্ড ও শাস্তির ধরণ পর্যবেক্ষন করে আজ (১০ জুলাই) সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে নিজদের প্রতিক্রিয়া তুলে ধরে পিসিবি। দুজনের উদ্দেশ্যে জানানো প্রতিক্রিয়ার সারমর্ম অনুসারে বলা যায় পিসিবি তাদের চাওয়ার প্রেক্ষিতে কোন ইতিবাচক সাড়া প্রদান করতে পারেনি।

দানিশ কানেরিয়া প্রসঙ্গে পিসিবির দেওয়া বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আপনি ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি) দ্বারা আজীবন নিষিদ্ধ হয়েছেন। যখন প্রকাশ হয় ডারহাম ম্যাচে মরভিন ওয়েস্টফিল্ডকে জেনেশুনে তার যোগ্যতা অনুসারে পারফরম্যান্স না করতে উৎসাহী করেছেন। এরপর এই সিদ্ধান্তকে ইসিবির ক্রিকেট ডিসিপ্লিনারি কমিশনের আপিল প্যানেলের সামনে চ্যালেঞ্জ জানিয়েছেন যা বহাল ছিল।’

‘এরপর লন্ডনে হাইকোর্টের একটি বানিজ্যিক বেঞ্চের মাধ্যমেও আবেদন করেছেন, যা খারিজ করা হয়। আদালতের আপিল বিভাগে করা আপনার আবেদনটিও প্রত্যাখ্যাত হয়। পিসিবির পুনর্বাসন প্রোগ্রামটি সাজার মেয়াদ শেষ হওয়া ক্রিকেটারদের জন্য। এটির আজীবন নিষিদ্ধ হওয়া ক্রিকেটাররা এই প্রোগ্রামের অন্তর্ভুক্ত হবেনা।’

‘ইসিবি দ্বারা আজীবন নিষেধাজ্ঞা আরোপ হয়েছে যা আইসিসির সদস্যদের সম্মতিক্রমে বহাল রাখা হয়। একমাত্র আপিলের মাধ্যমে সাজাটি কমানো যায় কিংবা বদলানো যায়। কিন্তু সেটা ইতোমধ্যে আপনি করেছেন যা প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে।’

অন্যদিকে সেলিম মালিক প্রসঙ্গে বলা হয়, ‘২০০০ সালের এপ্রিলের সেসব কথোপকথন নিয়ে আপনি কোন প্রতিক্রিয়া জানাতে রাজি হননি। এই ইস্যুতে পিসিবি আপনার মতামত না জানানো পর্যন্ত এই মুহূর্তে কোন পদক্ষেপ নিতে পারবেনা। প্রতিলিপিগুলোতে প্রতিক্রিয়া জানাতে অস্বীকৃতি ও এড়িয়ে যাওয়া কোনভাবেই অবস্থান পরিবর্তন করেনা। ২০১৪ সালের ৫ মে পিসিবি চেয়ারম্যানকে দেওয়া চিঠিতে আপনি লিখেছেন, ‘স্যার, পরামর্শ ও আমার নিজস্ব ইচ্ছাতে আমি একটি সিদ্ধান্তে পৌঁছেছি যে আমি আমার অন্যায়টি স্বীকার করতে প্রস্তুত।’

‘ভক্তদের কাছে ক্ষমা চাই এবং পুনর্বাসন প্রক্রিয়া শুরু করতে চাই। আমি আমার সিদ্ধান্তের পরিণতি বুঝতে পেরেছি এবং আমার পুনর্বাসন কর্মসূচীর জন্য আইসিসি ও পিসিবিকে সর্বাত্মক সাহায্য করতে প্রস্তুত। আমি প্রয়োজনে পিসিবিকে অনুরোধ করবো আইসিসির সাথে কথা বলার এবং তাড়াতাড়ি পুনর্বাসন প্রক্রিয়া শুরু করার।’

পিসিবির দেওয়া বিবৃতি মতে দানিশ ক্যানেরিয়া ইস্যুটি সম্পূর্ণ ইসিবির নিয়ন্ত্রণে বলে তাদের কিছুই করার নেই। অন্যদিকে সেলিম মালিক নিজের অপরাধ স্বীকার করে নিয়ে পিসিবির সাথে আলাপ আলোচনা শুরু করতে চাইলেও সেটি পরবর্তীতে করেননি। ফলে তার নিজের তরফ থেকে প্রক্রিয়া শুরু না করলে পিসিবি এখনই কিছু করতে পারছেনা।

উল্লেখ্য, ‘দানিশ ক্যানেরিয়া ইংল্যান্ডে কাউন্টি ক্রিকেট খেলতে গিয়ে ম্যাচ পাতানোর সাথে জড়িয়ে পড়েন। ২০১০ সালে এই অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি) আজীবন নিষিদ্ধ করে পাকিস্তানি এই লেগ স্পিনারকে।

অন্যদিকে সেলিম মালিক একই অভিযোগে ২০০০ সালে আজীবন নিষিদ্ধ হন যা ২০০৮ সালে প্রত্যাহার করে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। কিন্তু স্থানীয় আদালতের চাপে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেও পিসিবির কোন ধরণের কার্যক্রমে যুক্ত করেনি সাবেক এই ক্রিকেটারকে। এমনকি ব্যাটিং কোচ হওয়ার প্রস্তাবের গুঞ্জনও অস্বীকার করে পিসিবি।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

হায়দার আলির প্রশংসায় পঞ্চমুখ মোহাম্মদ ইউসুফ

Read Next

বাদ পড়ে হতাশার সাথে রাগও ঝাড়লেন ব্রড

Total
2
Share